1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

মৃত্যুদণ্ড বেড়েছে, কার্যকরের সংখ্যা কমেছে: অ্যামনেস্টি

মৃত্যুদণ্ড নিয়ে প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে অ্যামনেস্টি৷ সেখানে আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ ও সন্ত্রাস নির্মূল করতে দেশগুলো মৃত্যুদণ্ড দিচ্ছে বলে উদ্বেগ প্রকাশ করা হয়েছে৷ বেশি উদ্বেগ মিশর ও নাইজেরিয়াকে নিয়ে৷

অ্যামনেস্টির প্রতিবেদন অনুযায়ী, ২০১৪ সালে সারা বিশ্বে মোট ২,৪৬৬টি মৃত্যুদণ্ডাদেশ দেয়া হয়েছে৷ আগের বছরের তুলনায় তা শতকরা ২৮ ভাগ বেশি, কেননা, ২০১৩ সালে ১,৯২৫ জনকে মৃত্যুদণ্ডের আদেশ দেয়া হয়েছিল৷

ব্রিটেনভিত্তিক মানবাধিকার সংস্থাটি মনে করে, চীন সরকার এ সংক্রান্ত তথ্য প্রকাশ করলে ভয়াবহ একটা চিত্র ফুটে উঠতো৷ তাদের অনুমান, ২০১৪ সালে সহস্রাধিক ব্যক্তির বিরুদ্ধে মৃত্যুদণ্ড ঘোষণা করেছে চীনের আদালত৷

প্রকাশিত এবং প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী, ২০১৪ সালে সবচেয়ে বেশি মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয়েছে ইরানে৷ মধ্যপ্রাচ্যের এই দেশটিতে ঘোষিত কার্যকর মৃত্যুদণ্ড ২৪৯টি৷ এর বাইরে অন্তত ৪৫৪ জনের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করলেও সরকার তা গোপন করছে বলে ধারণা করা হচ্ছে৷ সবচেয়ে বেশি মৃত্যুদণ্ড কার্যকর হওয়া দেশগুলোর মধ্যে তারপরই রয়েছে যথাক্রমে সৌদি আরব (কমপক্ষে ৯০ জন), ইরাক (কমপক্ষে ৬১ জন) এবং যুক্তরাষ্ট্র (৩৫ জন)৷

কিছু দেশের পরিসংখ্যান উদ্বেগ বাড়ালেও ২০১৪ সালে মৃত্যুদণ্ড কার্যকরের ক্ষেত্রে কিছু আশাব্যঞ্জক ইঙ্গিতও দেখেছে অ্যামনেস্টি৷ আগের বছরের তুলনায় কার্যকর করা মৃত্যুদণ্ডের সংখ্যা কমেছে৷ ২০১৩ সালে কার্যকর হয়েছিল ৭৭৮টি মৃত্যুদণ্ড, ২০১৪ সালে হয়েছে ৬০৭টি৷

আরেকটি আশার দিক হলো, মৃত্যুদণ্ড দেয়া দেশের সংখ্যা না বাড়া৷ ২০১৩ সালের মতো ২০১৪ সালেও ২২টি দেশেই শুধু মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয়েছে৷ অ্যামনেস্টি মনে করে, দেশের সংখ্যা কমতে থাকাটাও বড় অর্জন৷ ২০ বছর আগে সংস্থাটি যখন প্রথম প্রতিবেদন প্রকাশ করে তখন মোট ৪২টি দেশে মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয়েছিল৷

দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে সবচেয়ে বেশি মৃত্যুদণ্ড কার্যকর হয়েছে পাকিস্তানে৷ পেশোয়ারের স্কুলে তালেবান হামলায় ১৪১ জন নিহত হওয়ার পর গত ডিসেম্বরেই ৭ জনের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করেছে দেশটি৷ বাংলাদেশে অন্তত একটি মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয়েছে বলে দাবি করেছে অ্যামনেস্টি ৷ তবে যুদ্ধাপরাধের কারণে জামায়াত নেতা কাদের মোল্লার ফাঁসি কার্যকর করা হয়েছিল ২০১৩ সালের ১২ ডিসেম্বর৷

লন্ডনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে মৃত্যুদণ্ডের রায় দেয়ার সংখ্যা বেড়ে যাওয়ায় উদ্বেগ প্রকাশ করে অ্যামনেস্টির ‘ডিরেক্টর অফ গ্লোবাল ইস্যুজ' অড্রে গাউঘ্রান বলেন, ‘‘মৃত্যুদণ্ড কোনো সুবিচার নয়৷'' মিশর এবং নাইজেরিয়ার পরিস্থিতি নিয়ে অ্যামনেস্টি ভীষণ উদ্বিগ্ন৷ ২০১৪ সালে নাইজেরিয়ায় ৬৫৯ জন এবং মিশরে কমপক্ষে ৫০৯ জনকে মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয়৷ দু দেশেই বৃদ্ধির হার উদ্বেগজনক৷ ২০১৩ সালে ১৪১ জনকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছিল নাইজেরীয় সরকার৷ মিশরে সে বছর একশ'র মতো লোককে মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয়েছিল৷

এসিবি/জেডএইচ (অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল, এএফপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়