1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

মৃত্যুদণ্ডের প্রয়োগ একটি দুঃখজনক ভুল

গত সপ্তাহে বাংলাদেশে একই দিনে ১৩ জনের মৃত্যুদণ্ড দেয়া হলো৷ বিষয়টি তেমন প্রচার পায়নি৷ অথচ আরেক জামায়াত নেতার ফাঁসির রায়ের বিষয়টি সংবাদমাধ্যমে খুব গুরুত্ব পাচ্ছে৷ এ নিয়েই লিখেছেন ডয়চে ভেলের গ্রেহেম লুকাস৷

বুধবার কাশিমপুর কারাগারে জামায়াতে ইসলামির নেতা মতিউর রহমান নিজামীকে মৃত্যুপরোয়ানা পড়ে শোনানো হয়েছে৷ তাঁর বিরুদ্ধে যুদ্ধাপরাধের প্রমাণ পেয়েছে ঢাকার তথাকথিত আন্তর্জাতিক যুদ্ধাপরাধ ট্রাইব্যুনাল৷ সেই প্রমাণের ভিত্তিতে মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয়েছে৷ খুব তাড়াতাড়িই তাঁর ফাঁসি কার্যকর করা হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে৷

মাত্র কয়েকদিন আগে তিনটি আদালত একই দিনে এক কিশোর, এক কিশোরী ও এক নারীকে হত্যার অভিযোগের প্রমাণ পাওয়ায় মোট ১৩ ব্যাক্তির বিরুদ্ধেও মৃত্যুদণ্ডের রায় দিয়েছে৷ কিন্তু এই মৃত্যুদণ্ডগুলো আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থার নজর কাড়েনি৷ অথচ তারা যুদ্ধাপরাধ ট্রাইব্যুনালের রায়গুলোর নিন্দা জানিয়ে আসছে৷

এটা খুবই দুঃখজনক, কেননা এর ফলে বাংলাদেশে যা হচ্ছে সে সম্পর্কে এক ধরণের অস্পষ্টতা তৈরি হয়৷ এশিয়া-প্যাসিফিক অঞ্চলের যে ২৩টি দেশ এখনো নিয়মিত মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করে, বাংলাদেশ তাদের একটি৷ মৃত্যুদণ্ড দেয়ার ক্ষেত্রে এই দেশটির রেকর্ড চীন, ইরান বা সৌদি আরব কিংবা পাকিস্তানের চেয়ে খুব একটা ভালো নয়৷

মৃত্যুদণ্ডের বিরুদ্ধে যুক্তিটা খুব স্পষ্ট৷ অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল মনে করে, মৃত্যুদণ্ড বেঁচে থাকার অধিকারকে খর্ব করে৷ তারা আরো মনে করে, মৃত্যুদণ্ড ‘একটি নিষ্ঠুর, অমানবিক ও মর্যাদাহানিকর শাস্তি'৷ এর ফলে অপরাধীকে যে শুধু হত্যাই করা হচ্ছে তা-ই নয়, মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করার আগে তাকে যে মানসিক ও অন্য কিছু কষ্ট সহ্য করতে হচ্ছে সেটাও গুরুত্বপূর্ণ৷

মৃত্যুদণ্ড বেশি দেয়া হয় চীন, উত্তর কোরিয়া, ইরান এবং সৌদি আরবের মতো দেশে৷ সেসব দেশে এই দণ্ড দেয়া হয় মূলত রাজনৈতিক প্রতিপক্ষের মাঝে আতঙ্ক ছড়াতে৷ ২০১৩ সালে ইরান ও সৌদি আরবে যথাক্রমে ৩৬৯ ও ৭৯ জনকে মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয়েছে৷ অপরাধ সংঘটনের সময় যারা অপ্রাপ্তবয়স্ক ছিল, এই দুটি দেশে তাদেরও মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয়েছে৷

সবচেয়ে বেশি মৃত্যুদণ্ড দেয় চীন৷২০১৩ সালে তারা এক হাজারেরও বেশি মৃত্যুদণ্ড দিয়েছে বলে ধারণা করা হয়৷ এক্ষেত্রে ইরান, উত্তর কোরিয়া, সৌদি আরব ও সোমালিয়ার সবচেয়ে ভয়াবহ দিক হলো, তারা প্রকাশ্যে মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করে৷ আফ্রিকার দেশগুলোর মধ্যে সবচেয়ে বেশি মৃত্যুদণ্ড দেয় সুদান৷ ইরাকেও অনেক মানুষকে মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয়৷ ২০১৪ সালে সে দেশে ১৬৯ জনকে মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয়েছে৷ বাংলাদেশও মৃত্যুদণ্ড দেয়৷ তথাকথিত আন্তর্জাতিক ট্রাইব্যুনাল যে রায়গুলো দিচ্ছে সেসব নিয়ে প্রশ্ন আছে৷ দেখে মনে হয়, এনসব দেশে মৃত্যুদণ্ড দেয়ার অন্যতম উদ্দেশ্য বোধহয় প্রতিশোধ নেয়া, শাসক দলের দুর্নীতিগ্রস্থ সমর্থকদের মাঝে শৃঙ্খলা ফেরানো এবং বিরোধীদের কণ্ঠ রুদ্ধ করা৷ ১৯৩৩ থেকে ১৯৪৫ সাল পর্যন্ত নাৎসি শাসিত জার্মানিতেও এভাবেই মৃত্যুদণ্ডের প্রয়োগ হয়েছিল৷

গ্রেহেম লুকাসের ছবি

গ্রেহেম লুকাস, ডয়চে ভেলে

মৃত্যুদণ্ডের বিরোধিতার আরেকটি কারণ হলো, এটি অপরাধীকে সংশোধনের সুযোগ দেয় না৷ এর ফলে যারা অপরাধের শিকার তারা হয়ত খুশি হয়, তাতে হয়ত তাদের প্রতিশোধের ইচ্ছাপূরণ হয়৷ তবে মামলার দীর্ঘসূত্রতা অনেক ক্ষেত্রে সব পক্ষের ভোগান্তিই বাড়ায়৷ আবার অনেক ক্ষেত্রে মৃত্যুদণ্ড ‘শহিদের' জন্ম দেয়, প্রতিশোধের ইচ্ছার পক্ষে যুক্তি তৈরি করে এবং আরো রক্তক্ষয়ের আশঙ্কা বাড়ায়৷

সবচেয়ে বড় কথা হলো, বিশ্বের অনেক দেশেই বিচার প্রক্রিয়া এত ত্রুটিপূর্ণ যে অনেকক্ষেত্রেই অভিযুক্তের জন্য সুবিচারের নিশ্চয়তা থাকেনা৷ যুক্তরাষ্ট্রের মতো দেশেও দরিদ্র আর সংখ্যালঘুদের ঢালাওভাবে মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয়৷ যুক্তরাষ্ট্রসহ আরো কিছু দেশে অপরাধ প্রমাণে গোয়েন্দারাও বিশেষ ভূমিকা রাখেন৷ অনেক ক্ষেত্রে নির্দোষ ব্যক্তিকেও মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয়৷ গত শতকে অন্তত এমন ১০০ জনকে মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয়েছে, যাদের মৃত্যুদণ্ড দেয়া ছিল ভুল৷

কারাভোগরত অপরাধী অনেক সময়ই বদলে যায়৷ অনেক সময় দেখা গেছে, মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি তার অপরাধ স্বীকার করে ক্ষমা চায়, সংশোধনের সুযোগ চায়৷ অনেকে সুযোগ পেলে নিজেকে নতুন করে গড়ে তোলে৷ কেউ বই লেখেন, কেউ বা ধর্মকর্ম শুরু করেন৷

কারাগারেও যাদের অনুশোচনা হয় না, তাদেরও মৃত্যুদণ্ড দিতেই হবে এমন ভাবার কোনো কারণ নেই৷ তাদের কারাগারে রেখে দিলেই তো সমাজকে তুলনামূলকভাবে কম খরচে এবং কার্যকরভাবে নিরাপদ রাখা যায়৷ দীর্ঘ আইনি প্রক্রিয়ার মাত্রাতিরিক্ত খরচ৷ হত্যাকারীকে ফাঁসির দড়ি পর্যন্ত নিয়ে যাওয়া নিশ্চিত করতে যে পরিমাণ খরচ হয়, সেটা অপরাধের শিকার যারা, তাদের সহায়তায় ব্যয় করা হলেও সমাজ থেকে ধীরে ধীরে সন্ত্রাসের সংস্কৃতি মুছে যেতে পারে৷

এখনো যেসব দেশ মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করছে, তাদের জন্য বুদ্ধির কাজ হবে জার্মানির ১৯৪৯ সালের দৃষ্টান্ত অনুসরণ করে মৃত্যুদণ্ড বিলুপ্ত করা৷ ধারাবাহিকভাবে মৃত্যুদণ্ডের এই প্রয়োগ একটি দুঃখজনক ভুল৷

আপনি কি গ্রেহেম লুকাসের সঙ্গে একমত? জানান নীচের ঘরে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়