1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

মিডিয়া সেন্টার

মৃতদেহগুলোর ওপর নজর রাখেন রতন সাধুখান

মফস্বল শহরে, শ্মশানের পাশে সাইকেল সারানোর দোকান রতন সাধুখানের৷ সেটাই তাঁর উপার্জনের একমাত্র ব্যবস্থা৷ এভাবেই জীবনটা কাটিয়ে দিতে পারতেন রতনবাবু৷ কিন্তু...

ভিডিও দেখুন 02:40

শ্মশানের পাশে দোকান হওয়ার সুবাদে প্রতিদিন বহু শবদেহ দেখতে দেখতে তাঁর হঠাৎ মনে হয়, সচেতনতার অভাবে কত মৃতদেহের সঙ্গে চোখজোড়াও পুড়ে নষ্ট হয়ে যায়৷ এইসব চোখ সংরক্ষণের ব্যবস্থা করলে কত দৃষ্টিহীন মানুষ অন্ধকার থেকে আলোয় ফিরতে পারেন!‌ তারপর থেকেই রতন সাধুখানের রোজকার কাজ, শ্মশানে আসা মৃতদেহের ওপর নজর রাখা৷ যদি সংরক্ষণযোগ্য চোখ দেখতে পাওয়া যায়, তা হলে মৃতের আত্মীয়-স্বজনকে বুঝিয়ে সেই কর্নিয়া সংগ্রহের ব্যবস্থা করা৷ আঞ্চলিক চক্ষু ব্যাংকে সেই কর্নিয়া সংরক্ষণের জন্য পাঠানো৷ সবাই যে রতনবাবুর প্রস্তাবে রাজি হন, তা নয়৷ আবার অনেকে বুঝতে পারেন, রাজি হয়ে যান৷ এভাবেই ৩০০ জোড়ার বেশি চোখ সংগ্রহ করতে পেরেছেন রতন সাধুখান৷ এখন তাঁর একটি সংগঠনও আছে, যার সদস্যরা মরণোত্তর চক্ষুদানের আবশ্যিকতা সম্পর্কে মানুষকে সতর্ক করেন৷ ওঁরা এখন চেষ্টা করছেন, কর্নিয়া প্রতিস্থাপনের কাজটা যদি জেলার সদর হাসপাতালগুলিতেও শুরু করা যায়৷ তা হলে আরও বেশি সংখ্যক দৃষ্টিহীন মানুষকে জীবনের আলোয় ফেরাতে পারবেন ওঁরা৷