1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

মুরসির বিচার, সেনাপ্রধানের ক্ষমতায় আসার পূর্বাভাস

মিশরে শুরু হয়েছে জেল থেকে পালানোর অভিযোগে ক্ষমতাচ্যুত প্রেসিডেন্ট মুরসির বিচার৷ অন্যদিকে সেনাপ্রধান আব্দেল ফাতাহ আল-সিসিকে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে প্রার্থী হতে বলেছে সে দেশের সামরিক বাহিনী৷

২০১১ সালে গণআন্দোলনের মুখে ক্ষমতা ছাড়তে বাধ্য হন স্বৈরশাসক হোসনি মুবারক৷ মুবারক বিরোধী সেই আন্দোলনে অন্যান্য রাজনৈতিক দলগুলোর মতো মুরসির মুসলিম ব্রাদারহুড দলও ছিল সক্রিয়৷ আন্দোলন যখন তুঙ্গে তখনই শুরু হয় গ্রেপ্তার অভিযান৷ মুরসিকেও তখন জেলে ঢোকানো হয়েছিল৷

মিশরের ইতিহাসে প্রথম গণতান্ত্রিকভাবে নির্বাচিত সাবেক প্রেসিডেন্ট মুরসির বিরুদ্ধে অভিযোগ, জেল থেকে তিনি এবং তাঁর দলের নেতা-কর্মীরা তখন পালিয়েছিলেন৷ সেই অভিযোগেই এবার তাঁর বিচার৷ বার্তা সংস্থা এপি জানিয়েছে, গত জুলাইয়ে ক্ষমতাচ্যুত হবার পর থেকে কারাবন্দি মুরসিকে আলেক্সান্দ্রিয়ার বোর্গ আল-আরব কারাগার থেকে হেলিকপ্টারে কায়রোয় নিয়ে আসা হয়েছে৷ মঙ্গলবারই রাজধানী কায়রোর আদালতে তাঁর হাজির হওয়ার কথা৷ আদালতের বিচারকার্য মিশরের রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনে সরাসরি সম্প্রচার করা হবে বলেও সরকারের পক্ষ থেকে বার্তাসংস্থাগুলোকে জানানো হয়েছে৷

মুবারকের পতনের পর ২০১২ সালের নির্বাচনে জিতে মিশরে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠায় ভূমিকা রাখার প্রত্যাশা জাগালেও প্রেসিডেন্ট হবার কিছুদিনের মধ্যেই বিরোধী দলগুলোর আস্থা হারান মুরসি৷ তাঁর বিরুদ্ধে ক্ষমতা কুক্ষিগত করার পাঁয়তারা করার অভিযোগ তোলা হয়৷ শুরু হয় বিক্ষোভ আন্দোলন৷ ২০১৩ সালের জুলাই মাসে মুসলিম ব্রাদারহুড সরকারের এক বছর পূর্তির পরপরই মুরসিকে ক্ষমতাচ্যুত করে সেনাবাহিনী৷

এদিকে মুরসির অপসারণে প্রত্যক্ষ ভূমিকা রাখা সেনাপ্রধান আব্দেল ফাতাহ আল-সিসিকে প্রেসিডেন্টের পদে দেখতে চেয়েছে মিশরের সেনাবাহিনী৷ এক বিবৃতিতে দ্য সুপ্রিম কাউন্সিল অফ আর্মড ফোর্সেস জানিয়েছে, সিসির প্রতি জনগণের আস্থা রয়েছে এবং সেই আস্থার প্রতি সম্মান দেখিয়ে সিসির উচিত প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে প্রার্থী হওয়া৷ এই বিবৃতির জন্য সেনাসদরকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন সিসি৷ প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে প্রার্থী হতে হলে সেনা প্রধানের পদ ছাড়তে হবে তাঁকে৷ আর তিনি নির্বাচিত হলে মিশর আবার ফিরে যাবে গণতন্ত্রের আবরণে ঢাকা সেনা শাসনের সুদীর্ঘ ইতিহাসে৷

এসিবি/জেডএইচ (ডিপিএ, এপি, এএফপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন