1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

মুজাহিদকে সেফ হোমে জিজ্ঞাসাবাদ, আইনজীবীর অভিযোগ

একাত্তরে মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগে আটক জামায়াতে ইসলামীর সেক্রেটারি জেনারেল আলী আহসান মুহাম্মদ মুজাহিদকে সেফ হোমে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে৷ তবে এই ব্যাপারে পরস্পর বিরোধী বক্তব্য দিয়েছেন উভয় পক্ষের আইনজীবীরা৷

default

হান্নান যা বললেন

একাত্তরে মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগে আটক জামায়াতে ইসলামীর সেক্রেটারি জেনারেল আলী আহসান মুহাম্মদ মুজাহিদকে মুক্তিযুদ্ধকালে তার ভূমিকা নিয়ে ধানমণ্ডির সেফ হোমে আজ জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে৷ ট্রাইব্যুনালকে বরাদ্দ দেয়া ধানমণ্ডির একটি বাড়ি জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ব্যবহার করছে তদন্ত দল, একেই সেফ হোম বলা হচ্ছে৷ আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের তদন্ত সংস্থার সদস্যরা আজ সকাল ১০টা থেকে বিকাল পাঁচটা পর্যন্ত তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করেন৷ তদন্ত সংস্থার প্রধান সমন্বয়কারী আবদুল হান্নান খান উপস্থিত সাংবাদিকদের বলেন, আলী আহসান মুহাম্মদ মুজাহিদ নিজেকে বাঁচিয়ে বক্তব্য দিচ্ছেন৷ তবে তিনি অনেক কিছু স্বীকার করেছেন৷ তার কাছ থেকে যে তথ্যই পাওয়া যাক তা যাচাই বাছাই করে দেখা হবে৷

তাজুলের বক্তব্য

তবে মুজাহিদের আইনজীবী এডভোকেট তাজুল ইসলাম টেলিফোনে ডয়চে ভেলেকে বলেন, জিজ্ঞাসাবাদের সময় মুজাহিদকে ভয়ভীতি দেখানো হচ্ছে৷ এ অভিযোগ লিখিত আকারে ট্রাইব্যুনালে জমাও দিয়েছেন তিনি৷ এডভোকেট তাজুল বলেন, জিজ্ঞাসাবাদ শেষে কী কথা হয়েছে তা আইনজীবীদেরও জানতে দেয়া হচ্ছে না৷ কিন্তু তদন্ত কর্মকর্তারা মিডিয়ার কাছে বলে দিচ্ছেন৷ এটা আইনের লংঘন৷ তিনি বলেন, আমরা জানতে পেরেছি আগে সেফ হোমে জিজ্ঞাসাবাদ করা জামায়াতের আমীর মতিউর রহমান নিজামী কিছুই স্বীকার করেননি৷ অথচ তদন্ত কর্মকর্তা মিডিয়ার কাছে বলেছেন, তিনি গণহত্যার কথা স্বীকার করেছেন৷ এ বিষয়ে ট্রাইব্যুনালের কাছে কিছু নির্দেশনা চাওয়া হয়েছে৷ এডভোকেট তাজুলের অভিযোগ জোর করে স্বীকারোক্তি আদায়ের চেষ্টা করা হচ্ছে৷

রবিবার জিজ্ঞাসাবাদের জন্য মুজাহিদকে কঠোর নিরাপত্তার মধ্যে সকাল পৌনে ৯টার দিকে কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে সেফ হোমে নেয়া হয়৷ এর আগে গত ৫ই মে জামায়াতে ইসলামীর আমির মাওলানা মতিউর রহমান নিজামীকে সেফ হোমে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়৷

এছাড়া সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরীকে ১০ই মে এবং দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীকে ১২ই মে জিজ্ঞাসাবাদ করার দিন নির্ধারণ রয়েছে৷ আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল গত ১৩ই এপ্রিল জামায়াতে ইসলামীর তিন নেতাকে এবং ১৯ এপ্রিল সালাহউদ্দিন কাদের চৌধুরীকে সরকারের বরাদ্দ করা ধানমণ্ডির বাড়িতে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করার জন্য তদন্ত সংস্থাকে অনুমতি দেয়৷

প্রতিবেদন: সমীর কুমার দে,ঢাকা

সম্পাদনা: রিয়াজুল ইসলাম

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়