1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

উত্তর কোরিয়া

মুখে শান্তির বার্তা, সঙ্গে সামরিক প্রস্তুতি

উত্তর কোরিয়াকে শান্ত করতে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী শান্তির বার্তা পাঠালেন৷ বললেন, ‘‘আমরা আপনাদের শত্রু নই৷'' কিন্তু পিয়ং ইয়ং-এর ক্ষেপণাস্ত্র মোকাবিলা করতে অ্যামেরিকার পশ্চিম উপকূলে সামরিক প্রস্তুতি শুরু হয়েছে৷

প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প পররাষ্ট্র নীতির ক্ষেত্রে তর্জনগর্জন করে চললেও পররাষ্ট্রমন্ত্রী রেক্স টিলারসন কূটনৈতিক পথেই বিভিন্ন সংকট সমাধানের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন৷ এমনকি ইরান প্রসঙ্গে প্রেসিডেন্টের সঙ্গে মতভেদের কথাও প্রকাশ্যে স্বীকার করেন তিনি৷শিকাগোর মতো শহর উত্তর কোরিয়ার ক্ষেপণাস্ত্রের আওতায় এসে পড়ায় সে দেশের সঙ্গে সমঝোতার পথে এগোতে চান টিলারসন৷

উত্তর কোরিয়ার ক্ষেপণাস্ত্রের দৌড়

উত্তর কোরিয়ার ক্ষেপণাস্ত্রের দৌড়

টিলারসন মঙ্গলবার বলেছেন, ওয়াশিংটন উত্তর কোরিয়ার প্রশাসনকে ক্ষমতাচ্যুত করার কোনো প্রচেষ্টা চালাচ্ছে না৷ দুই কোরিয়ার পুনরেকত্রীকরণের ক্ষেত্রেও কোনো তাড়া নেই৷ তবে সে দেশকে পরমাণু ক্ষেপণাস্ত্র কর্মসূচি বন্ধ করতে হবে৷ উত্তর কোরিয়া নিরস্ত্রীকরণের পথ বেছে নিলে ওয়াশিংটন সরাসরি সে দেশের সঙ্গে সংলাপ শুরু করতে আগ্রহী, বলেন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী৷ তাঁর মতে, সম্ভাব্য মার্কিন হামলা প্রতিরোধ করতে উত্তর কোরিয়ার পরমাণু অস্ত্রভাণ্ডারের প্রয়োজন নেই৷ মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী অবশ্য একই সঙ্গে উত্তর কোরিয়াকে সতর্ক করে দিয়ে বলেন, সে দেশ হুমকি হয়ে উঠলে অ্যামেরিকাকে বাধ্য হয়ে তার জবাব দিতে হবে৷

উত্তর কোরিয়া প্রসঙ্গেও হোয়াইট হাউস ও পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মতবিরোধ স্পষ্ট হয়ে গেল৷ এক টুইট বার্তায় প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প ক্ষুব্ধ হয়ে উত্তর কোরিয়ার রাশ টেনে ধরতে চীনের উপর চাপ সৃষ্টি করতে চেয়েছিলেন৷

টিলারসন অবশ্য বলেন, চীন নয় – উত্তর কোরিয়াই বর্তমান এই পরিস্থিতির জন্য দায়ী৷ চীনকে দায়ী না করলেও উত্তর কোরিয়ার উপর সে দেশের বিশাল প্রভাবের কথা মনে করিয়ে দেন তিনি৷

রিপাবলিকান দলের সংসদ লিন্ডসে গ্র্যাহ্যাম বলেছেন, কূটনীতির মাধ্যমে উত্তর কোরিয়ার পরমাণু ক্ষেপণাস্ত্র হুমকি বন্ধ করা না গেলে ট্রাম্প সে দেশের উপর ভয়াবহ সামরিক হামলা চালাতে প্রস্তুত৷

অ্যামেরিকা এর মধ্যেই দূর পাল্লার আইসিবিএম ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা করতে চলেছে৷ ক্যালিফোর্নিয়ার ভ্যান্ডেনবার্গ বিমান ঘাঁটিতে বুধবারই এই পরীক্ষা শুরু হচ্ছে৷ সাধারণত অনেক আগেই এমন পরীক্ষার কথা ঘোষণা করা হয়৷ এক্ষেত্রে অতি দ্রুত এমন সিদ্ধান্ত নেওয়া হচ্ছে৷

এসবি/ডিজি (এএফপি, রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়