1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

আলাপ

‘মুক্তি দিন দেশের মানুষকে'

সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রী দলীয় নেতা কর্মীদের নির্বাচনের প্রস্তুতি নিতে এবং সরকারের উন্নয়নের সাথে জনগণের সম্পৃক্ততা বাড়ানোর নির্দেশ দিয়েছেন৷ নির্বাচন সম্পর্কে মোটেই আশাবাদী নন অনেক পাঠক৷ সে কথাই তাঁরা জানিয়েছেন ফেসবুক পাতায়৷

যেমন আগামী নির্বাচন সম্পর্কে ডয়চে ভেলের ফেসবুক বন্ধু নজরুল ইসলাম লিখেছেন, ‘‘বেশি কিছু আশা করার মতো কোনো সুযোগ দেখছি না৷ কারণ এবারের নির্বাচনও গতবারের মতোই হবে, অর্থাৎ হবে নাম সর্বস্ব নির্বাচনমাত্র!

পাঠক আমিনুর রহমানেরও এমনটাই ধারণা৷ একই মত মাসুদ খান, শাহীন বাবু, কামরুল হাসান ও জাকিরেরও৷ মাসুদ বলছেন, ‘‘আগামী নির্বাচনেও একইভাবে হবে, অর্থাৎ নিরপেক্ষ নির্বাচন হবে না৷''

পাঠক আরাফাত রনি নির্বাচন সম্পর্কে একেবারে সরাসরি তাঁর মতামত তুলে ধরেছেন এভাবে: ‘‘বাংলাদেশে ফ্রি, ফেয়ার এবং বিশ্বাসযোগ্য নির্বাচন হওয়া সম্ভব নয়৷ এখানে যে দলই ক্ষমতায় থাকুক না কেন, এমনকি কেয়ারটেকার সরকার থাকলেও নয়৷ কারণ দুর্ভাগ্য হলেও এ কথা সত্য যে, এ দেশে গণতন্ত্র নেই৷ বাংলাদেশ চলে অর্থ এবং পেশির শক্তিতে৷''

অন্যদিকে হাসান মিয়া মনে করেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও তাঁর দল আওয়ামীলীগ ক্ষমতা ছাড়বে না৷ আর পাঠক বাশার বলছেন, ‘‘নির্বাচনের সময় যদি তত্ত্বাবধায়ক সরকার না থাকে, তাহলে নাকি এই নির্বাচনও সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচনের মতোই হবে৷''

পাঠক মোহাম্মদ জুয়েল ইব্রাহিমের তো নির্বাচন সম্পর্কে পুরোপুরি অবিশ্বাস৷ আগামী নির্বাচন সম্পর্কে তিনি বলছেন, ‘‘নির্বাচনের প্রয়োজন কী? শেষে গিয়ে নাটক আর শুধু শুধু টাকা লস৷''

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও বিরোধীদলের নেতা খালেদা জিয়াকে লক্ষ্য করে ফেসবুক পাঠক আতিকুর তাঁর মত প্রকাশ করেছেন এভাবে: ‘‘আপনাদের দু'জনের গ্যারা কল থেকে জাতিকে মুক্তি দিন৷ মুক্তি দিন দেশের মানুষকে৷''

সংকলন: নুরুননাহর সাত্তার

সম্পাদনা: দেবারতি গুহ

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়