1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

‘মুক্তিযুদ্ধের চেতনার নামে এই লুণ্ঠন আর কতদিন?’

গত মাসের ৭ তারিখে কুড়িগ্রামের চিলমারীতে হতদরিদ্রদের জন্য খাদ্যবান্ধব কর্মসূচি উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা৷ পল্লী রেশনিং কার্যক্রমের আওতায় সেদিন থেকে ১০ টাকা কেজি দরে চাল হতদরিদ্রদের দেয়া হচ্ছে৷

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গতমাসে এই কর্মসূচির উদ্বোধন করেন

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গতমাসে এই কর্মসূচির উদ্বোধন করেন

ডয়চে ভেলের কন্টেন্ট পার্টনার বিডিনিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম এর প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সারা দেশের ৫০ লাখ পরিবার এ সুবিধা পাবে৷ তবে চাল বিক্রি শুরুর পর থেকে এ নিয়ে নানা অনিয়মের অভিযোগ উঠে এসেছে৷ 

একাত্তর টেলিভিশন এই অনিয়ম নিয়ে ধারাবাহিক প্রতিবেদন প্রচার শুরু করেছে৷


পল্লী রেশনিং কার্যক্রমের আওতায় ১০ টাকা কেজি দরের চাল কেজিপ্রতি ২৮ টাকা করে ব্যবসায়ীরা কার্ডধারীদের কাছ থেকে কিনেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে৷ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বলছেন, এ চাল ব্যবসায়ীদের কেনার বৈধতা নেই৷

এছাড়া গত এক মাসে বিভিন্ন সংবাদপত্রের প্রতিবেদনে যেসব খবর প্রকাশ হয়েছে, তাতে জানা যাচ্ছে, এই চাল বিক্রিতে অনিয়মের অভিযোগে বেশ কয়েকজনকে আটক করা হয়েছে৷ বাতিল করা হয়েছে বেশ কয়েকজনের ডিলারশিপ৷ এছাড়া অভিযোগ আছে কালোবাজারে এই চাল বিক্রি করে দেয়ার৷

বগুড়ার ধুনট উপজেলায় ব্যবসায়ীর গুদাম থেকে পাচারকালে সরকারি বরাদ্দকৃত ১০ টাকা কেজি দরের চাল বোঝাই একটি ট্রাক জব্দ করেছে পুলিশ৷

এছাড়া টুইটারে যেসব খবর প্রকাশিত হয়েছে৷

এসব নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও অনেকে লিখেছেন, শেয়ার করেছেন এসব খবর৷ ড. ইমরান এইচ সরকার ফেসবুক পাতায় লিখেছেন, ‘‘এদের পকেট এত বড় যে সুযোগ পেলে পুরো দেশটাকে ভরে ফেলবে৷ খাল-বিল, বন-জঙ্গল, ঘর-বাড়ি, রাস্তা-ঘাট, অফিস-আদালত, পাবলিক টয়লেট; কিছুই তো বাদ যায়নি এদের থাবা থেকে৷ আর গরীব মানুষের ১০ টাকা কেজি চাল? সেটাও নাকি শেষমেশ তাদের পকেটেই! ছি, মুক্তিযুদ্ধের চেতনার নামে এই লুণ্ঠন আর কতদিন?''

সাংবাদিক ফারদিন ফেরদৌস লিখেছেন,

এপিবি/এসিবি

আপনার কি কিছু বলার আছে? লিখুন নীচের মন্তব্যের ঘরে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়