1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সংবাদভাষ্য

মিয়ানমারে রোহিঙ্গা সংকটের যত অস্পষ্টতা

রোহিঙ্গা মুসলমানদের ওপর সেনাবাহিনীর রাগ ও ক্ষোভ খুবই স্পষ্ট৷ তবে তারপরও রোহিঙ্গা সংকট নিয়ে গ্রেপ্তার ও বিচারের যে প্রচারণা চালু আছে তা থেকে বিরত থাকা উচিত বলে মনে করছেন রোডিয়ন এবিগহাউসেন৷

সরল চোখে দেখলে, মিয়ানমারের পশ্চিমাঞ্চলের রাখাইন রাজ্যের অবস্থা কালো আর সাদা বলে মনে হয়৷ একটি জাতিগত সংখ্যালঘু গোষ্ঠী আছে যারা বিশ্বের সবচেয়ে নিপীড়িত সম্প্রদায়গুলির মধ্যে অন্যতম৷ এরা দিনের পর দিন নির্মমভাবে নিপীড়িত হচ্ছে৷ অধিকাংশ বৌদ্ধ এবং মায়ানমারের নিরাপত্তা বাহিনীই অত্যাচারী আর রোহিঙ্গারা হচ্ছে তার শিকার৷

এই দ্বন্দ্ব নিয়ে নির্ভেজাল তথ্য ও সঠিক বিবরণীর অভাব সব সময়ই ছিল৷ সেই অবস্থাতেই আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে এ সব তথ্য প্রচার করা হয়৷ মিয়ানমারের নিরাপত্তা বাহিনীর অপরাধ প্রমাণ করাতে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমগুলো রোহিঙ্গাদের ভয়াবহ সব ছবিতে ভাসছে৷ এই ছবির অনেকগুলো আবার মিথ্যা সংবাদ বানাতে ব্যবহার করা হচ্ছে৷

প্রচারের জন্য বিশ্বের অন্যান্য জায়গার দ্বন্দ্ব-সহিংসতার ছবিও ব্যবহার করা হচ্ছে৷ অন্যদিকে, মিয়ানমারের কার্যনির্বাহী নেত্রী অং সান সু চির নেতৃত্বে সরকার কোনো ধরনের অন্যায় কাজকে অস্বীকার করেন এবং ইসলামি সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থানে অঙ্গীকারবন্ধ৷

একটি জটিল পরিস্থিতি

সারা বিশ্বের রাজনীতিবিদ, নানা সংগঠন এবং তারকারা রাখাইন সংকটের ব্যাপারে প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন৷ সেই সাথে সহিংসতা বন্ধে মিয়ানমার সরকারকে আহ্বান জানিয়েছেন৷ কিন্তু মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী নাজিব রাজাক, ইন্দোনেশিয়ায় রাষ্ট্রপতি জোকোভি, চেচনিয়ার রমজান কাদিরভ এবং তুরস্কের রেচেপ তাইয়েপ এর্দোয়ানের মত কিছু রাজনীতিবিদ রোহিঙ্গাদের কষ্টের চেয়ে মুসলিম ভ্রাতৃত্বের অ্যাজেন্ডা নিয়ে বেশি উদ্বিগ্ন৷ আর এভাবেই, এই নেতারা রাখাইনদের মধ্যেকার সংঘর্ষ নিয়ে  নিজেদের মতো করে অপ্রচলিত ও তাত্ত্বিক চিন্তাভাবনা প্রচার করছেন৷

কিন্তু সংকটের শান্তিপূর্ণ সমাধানের ব্যাপারে যারা আসলেই আগ্রহী, তারা দীর্ঘস্থায়ী সংঘাতের জটিলতা বিবেচনা করে এবং দ্রুত বিচার এড়ানোর কথাই বলবেন৷

উদাহরণ হিসেবে বলা যায়, কয়েক দশক ধরে মিয়ানমারের ‘রোহিঙ্গা‘ শব্দটি নিয়ে বিতর্ক আছে৷ রাখাইনের মুসলমানরা তাদের কর্মী, রাজনীতিবিদ এবং প্রতিনিধিরা ‘রোহিঙ্গা‘ নামে পরিচিত৷ মিয়ানমার সরকার ‘রাখাইন রাজ্যে মুসলিম' শব্দটির ওপর জোর দেয়৷ তবে ইসলামের কিছু মৌলবাদী প্রতিপক্ষ প্রতিবেশী বাংলাদেশ থেকে অবৈধভাবে আসার জন্য তাদের ‘বাঙালি' বলে৷

ঔপনিবেশিক যুগের পর থেকে দক্ষিণপূর্ব এশিয়ার দেশগুলিতে জাতীয়তা ও নাগরিক অধিকারকে জাতিগতভাবে সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে৷ ‘রোহিঙ্গা' শব্দটির ব্যাপারে মতপার্থক্য থাকায় রাষ্ট্রের অন্য অনেক সমস্যার মতো এটি এখনো আলোচনার বিষয় বলে বিবেচিত হয়৷ কারণ এতে শান, কাচিন বা চিনের মতো রাজ্যগুলির মতো বিভিন্ন জাতিগোষ্ঠীকে নির্দেশ করবে৷ কেবল যারা আদিবাসী জাতিগত গোষ্ঠীর সদস্য, তারাই দেশের নাগরিক হিসেবে স্বীকৃতি পাবে৷

রোডিয়ন এবিগহাউসেন

রোডিয়ন এবিগহাউসেন, ডয়চে ভেলে

স্বীকৃতির জন্য লড়াই

এই পরিস্থিতিতে, এটাই যৌক্তিক যে রোহিঙ্গারা একটি আদিবাসী জাতিগোষ্ঠী হিসেবে স্বীকৃত হয়ে উঠেছে যাদের পূর্বপুরুষরা আজকের মিয়ানমারের অংশে সব সময় বসবাস করত৷ হংকং-ভিত্তিক গণমাধ্যম এশিয়া টাইমসকে দেয়া সাক্ষাৎকারে রোহিঙ্গা জঙ্গিরা জানিয়েছে,  নাগরিক অধিকার পুনরুদ্ধার না হওয়া পর্যন্ত তাদের আন্দোলন চলবে৷

তবে সত্যটা এই যে, রাখাইনরা বৌদ্ধধর্মের দ্বারা বছরের পর বছর ধরে শাসিত হয়েছে আর সবসময়ই সেখানে বিভিন্ন ধরনের মুসলিম সংখ্যালঘুদের দ্বারা বেষ্টিত থেকেছে৷

বিদ্বেষের চক্র ভাঙা

‘রোহিঙ্গা' শব্দটি নানা কারণে ভীষণ রাজনৈতিক শব্দ৷ মিডিয়া, অ্যাক্টিভিস্ট বা রাজনীতিবিদরা এটি ব্যবহার করে একটি রাজনৈতিক অবস্থান থেকে৷ একইসাথে, ‘রাখাইন রাজ্যে মুসলমান' শব্দটি কোনোভাবে নিরপেক্ষ নয়৷

এই দ্বন্দ্বই বলে দিচ্ছে যে, এই সমস্যার সমাধান নিরপেক্ষভাবে হওয়ার মতো পরিস্থিতি নেই৷ তবে মানবিক বিপর্যয়ের বেলায় নীরবতা কোনো বিকল্প হতে পারে না৷ কিন্তু যারা এ ব্যাপারে এখন মতামত দেবে তারাও যে এই  দ্বন্দ্বের অংশ হয়ে উঠবে তা পরিষ্কার৷

তবে কোনোক্ষেত্রেই রাজনীতিবিদ বা অ্যাক্টিভিস্টরা যেন নিজেদের স্বার্থে এই ইস্যুকে ব্যবহার না করেন৷ তাহলে ২০১২, ১৯৯২ এমনকি ১৯৭৮ সালের আগেও যেসব সহিংসতা হয়েছিল তা সেগুলোর মতোই সহিংসতা কেবল বাড়তেই থাকবে আর সমাধানের উদ্যোগ ব্যর্থ হবে৷

রোডিয়ন এবিগহাউসেন/এএম

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়