1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

মিয়ানমার

মিয়ানমারে ‘মুসলমানরাই মুসলমানদের হত্যা করছে'

রোহিঙ্গা জাতিকে নিরাপত্তা বাহিনী ‘নিধন' করছে, এমন অভিযোগ অস্বীকার করেছেন মিয়ানমারে গণতন্ত্রের প্রতীক অং সান সু চি৷ বিবিসিকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তিনি বরং দাবি করেছেন, রাখাইন রাজ্যে ‘‘মুসলমানরাই মুসলমানদের হত্যা করছে৷''

গত অক্টোবরে মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে সীমান্ত পুলিশের একটি নিরাপত্তা চৌকিতে হামলার ঘটনার পর, রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে নিরাপত্তা বাহিনীর অভিযানে কয়েকশ' মানুষ নিহত হয়েছেন বলে জানায় বিভিন্ন মানবাধিকার সংস্থা৷ সেসময় জীবন বাঁচাতে প্রায় ৭৫ হাজাররোহিঙ্গা মুসলমান মিয়ানমার ত্যাগ করে সীমান্তবর্তী দেশ বাংলাদেশে আশ্রয় নেন৷ তাঁদের অনেকেই মিয়ানমারের নিরাপত্তা বাহিনীর হাতে ভয়ংকর নির্যাতনের কথা গণমাধ্যমকে জানান৷ সেদেশের সেনাবাহিনী অভিযানের সময় নির্বিচারে হত্যা, শিশুহত্যা, ধর্ষণসহ বিভিন্ন অপরাধ করেছে, যা জাতি নিধন এবং মানবতাবিরোধী অপরাধের সমতুল্য বলে জাতিসংঘের তদন্ত দলকে বলেন ভুক্তভোগীরা৷

তবে মিয়ানমারের ‘ডি ফ্যাক্টো' নেতা শান্তিতে নোবেল জয়ী অং সান সু চি, যিনি একজন অধিকারকর্মী হিসেবে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে অত্যন্ত পরিচিত মুখ, রোহিঙ্গাদের ওপর নিরাপত্তা বাহিনীর দমনপীড়নের কোনো সমালোচনা করেননি৷ বিবিসিকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে রাখাইন রাজ্যের পরিস্থিতি সম্পর্কে তিনি বলেন, ‘‘আমি মনে করি না যে, সেখানে জাতি নিধন করা হচ্ছে৷ আমার মতে, একটি জাতিকে নিধন করা হচ্ছে বলাটা সেখানে যা হচ্ছে, অর্থাৎ (প্রকৃত) পরিস্থিতির তুলনায় অনেক বাড়িয়ে বলা৷''

বাংলাদেশে অবস্থানরত রোহিঙ্গাদের সম্পর্কে সু চি বলেন, ‘‘ফিরে এলে মিয়ানমারে নিরাপদেই থাকবেন তাঁরা৷''

বাংলাদেশে অবস্থানরত রোহিঙ্গাদের সম্পর্কে সু চি বলেন, ‘‘ফিরে এলে মিয়ানমারে নিরাপদেই থাকবেন তাঁরা৷''

প্রসঙ্গত, মিয়ানমারে দশ লাখের বেশি রোহিঙ্গা মুসলমান বসবাস করেন৷ সেদেশের সরকার এই সংখ্যালঘু সম্প্রদায়কে বাংলাদেশ থেকে যাওয়া অবৈধ অভিবাসী হিসেবে বিবেচনা করে আসছে৷ ফলে তারা কার্যত এক দেশহীন জাতিগোষ্ঠী, যারা মিয়ানমারের সাধারণ নাগরিকরা যেসব সুযোগ-সুবিধা ভোগ করেন, তার অধিকাংশ থেকেই বঞ্চিত৷ বাংলাদেশে শরণার্থী হিসেবে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গার সংখ্যা অন্তত চার লাখ৷ সু চি অবশ্য মুসলিম প্রধান দেশটিতে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গাদের উদ্দেশ্যে বলেন, ‘‘ফিরে আসলে মিয়ানমারে নিরাপদেই থাকবেন তাঁরা৷''

রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে সেদেশের সেনাবাহিনীর অভিযান প্রসঙ্গে তাঁর বক্তব্য হলো – সেনা অভিযান ও লড়াইয়ের সাংবিধানিক অধিকার আছে সেনাপ্রবেশের৷ কেননা, বর্তমানে সামরিক বিষয়গুলো দেখাশোনার দায়িত্ব সেনাবাহিনীর৷ তবে প্রতিরক্ষা বিষয়ে সেনাবাহিনীর পূর্ণ ক্ষমতা থাকার বিষয়টি সংবিধান সংশোধনের মাধ্যমে পরিবর্তন করার জন্যও কাজ করছেন সু চি৷

এআই/ডিজি (এএফপি, রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়