1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

মিয়ানমারে পানির চাহিদা মেটাচ্ছে বিশেষ পাম্প

জিম টেলর ২০০৪ সাল থেকে মিয়ানমারে বসবাস করছেন৷ এক বর্মী মেয়েকে বিয়ে করেছেন তিনি, যার সঙ্গে তাঁর আলাপ হয়েছিল যুক্তরাষ্ট্রে৷ তাঁরা দু’জনে মিলে মিয়ানমারে দারিদ্র্যের বিরুদ্ধে লড়াই করছেন৷

টেলর এবং তাঁর টিম সেচের জন্য বিশেষ পানির পাম্প তৈরি করেছেন৷ সহজ এই সেচ ব্যবস্থার কারণে গ্রামে চাষাবাদ ও আয় অনেক বেড়ে গেছে৷ কৃষকরা এখন শসা চাষ করতে পারছেন৷ বছরে তিনবার ফসল ফলান অনেকে, যা আগে একরকম অসম্ভব ছিলো৷

বিশেষ পানির পাম্প প্রসঙ্গে সামাজিক উদ্যোক্তা জিম টেলর বলেন, ‘‘প্রথম পাম্পটির ছবি আমাদের অফিসে আছে৷ শুরুতে আসলে আমরা এগুলো বানাইনি৷ পনেরটি পাম্প ভারত থেকে আমদানি করেছিলাম৷ এরপর ইয়াঙ্গনের উত্তরের একটি গ্রামে সেগুলো নিয়ে যাই এবং বসাই৷ কৃষকরা সেগুলোর চারপাশে ভিড় করে এবং ব্যাপক উৎসাহ দেখায়৷ তখনই বুঝতে পারি সঠিক যন্ত্রটি খুঁজে পেয়েছি আমি৷''

গত কয়েক শতক ধরে কাঁধে করে পানি বহন করছে মিয়ানমারের মানুষ৷ আর হাড়ভাঙা খাটুনির এই কাজ সাধারণত নারীই করেন৷ কিছু গ্রামের পরিস্থিতি অবশ্য ভিন্ন৷ গ্রামের অনেক বাড়ির সদর দরজার কাছে বসানো রয়েছে পানির পাম্প৷ এই পাম্প বসানো বেশ সহজ, খরচও কম৷ আর এগুলো বেশ মজবুত৷

জিম টেলর কৃষকদের জীবনমানের উন্নয়নে পণ্য তৈরি করছেন৷ তিনি এসব পণ্য বিনামূল্যে বিতরণ করেন না৷ আর অনেক কৃষকের পক্ষে পুরো টাকা একসঙ্গে জোগাড় করা সম্ভব হয়না৷ তাই কিস্তির মাধ্যমে পণ্য কেনার ব্যবস্থা করেছেন টেলর৷ তিনি বলেন, ‘‘সামাজিক দিকটি হচ্ছে, আমাদের পণ্য সাধারণ মানুষের আয় বৃদ্ধিতে সহায়তা করে৷ ফলে তারা সন্তানদের স্কুলে পাঠাতে সক্ষম হন, ভালো খেতে পারেন এবং নিজেদের সম্পদ বাড়াতে পারেন৷''

উল্লেখ্য, প্রতি চারজনের একজন বর্মী দারিদ্র্যসীমার নিচে বসবাস করেন৷ টেলর এই পরিস্থিতি বদলাতে চান৷ ২০১১ সালে রাজনৈতিক পরিস্থিতির পরিবর্তনের পর দ্রুত সে দেশের উন্নতি হচ্ছে৷ উদ্যোক্তারাও এখন স্বাধীনভাবে সাধারণ মানুষের উন্নয়নে কাজ করতে পারছেন৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক