1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

মিয়ানমার-জার্মানি

মিয়ানমারে কয়েকটি সহায়তা প্রকল্প স্থগিত করল জার্মানি

সহিংসতার কারণ দেখিয়ে মিয়ানমারে জার্মান সহায়তায় পরিচালিত কয়েকটি প্রকল্পের কাজ সাময়িকভাবে বন্ধের ঘোষণা দিয়েছে জার্মান সরকার৷ সংঘাত বন্ধ হলে সেগুলো আবার চালু হবে৷

জার্মানির উন্নয়ন মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র ক্যাথরিনা ম্যানৎস সোমবার বলেন, যেসব অঞ্চলে সহিংসতা চলছে সেখানে প্রকল্পগুলো ‘নিস্ক্রিয় অবস্থায়' রাখা হয়েছে৷ যখনই সংঘাত বন্ধ হবে তখনই সেগুলো আবার চালু করা হবে বলেও জানান তিনি৷ ম্যানৎস জানান, খাদ্য নিরাপত্তা, চাকরি সৃষ্টি ও চিকিৎসা সেবা খাতে সহায়তা দিয়ে থাকে জার্মানি৷

এদিকে জার্মান সরকারের মুখপাত্র স্টেফান সাইবার্ট বলেছেন, সংখ্যাগরিষ্ঠ বৌদ্ধের দেশ মিয়ানমারের ‘নাটকীয় অবস্থা' খুব ভালোভাবে পর্যবেক্ষণ করছে জার্মানি৷ সংঘাতের সাথে সংশ্লিষ্ট সব পক্ষ ও ‘বিশেষ করে শান্তিতে নোবেলজয়ী অং সান সু চিকে' সংঘাত বন্ধে ব্যবস্থা নেয়ার আহ্বান জানান তিনি৷

এর আগে শনিবার এক বিবৃতিতে জার্মান পররাষ্ট্রমন্ত্রী সিগমার গাব্রিয়েল বলেছিলেন, ‘‘মিয়ানমারের রাখাইনে সহিংস পরিস্থিতিতে আমি গভীরভাবে উদ্বিগ্ন৷ এতে করে আবারও অনেক রোহিঙ্গা বাংলাদেশে পালিয়ে যাচ্ছে৷ সাধারণ মানুষদের জীবনের স্বার্থে আমি সব পক্ষকে সহিংসতা থেকে বিরত থাকার আহ্বান জানাই৷'' এতসংখ্যক রোহিঙ্গাকে সামলানো বাংলাদেশের জন্য কঠিন বলেও মন্তব্য করেন জার্মান পররাষ্ট্রমন্ত্রী৷ ‘‘বাংলাদেশের এমন পদক্ষেপকে আমরা প্রশংসা করি ও স্বাগত জানাই,'' বলেন তিনি৷

এদিকে মিয়ানমারের সহিংসতা নিয়ে আলোচনা করতে বুধবার জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে একটি জরুরি বৈঠক আহ্বান করা হয়েছে৷ ব্রিটেন ও সুইডেনের অনুরোধে এই বৈঠক বসছে৷

জাতিসংঘের কূটনীতিকরা বলছেন, মিয়ানমারের অন্যতম বাণিজ্যিক অংশীদার চীন মিয়ানমারের সহিংসতা নিয়ে জাতিসংঘের শীর্ষ পর্যায়ে আলোচনা প্রতিহত করছে৷

এর আগে জাতিসংঘের মানবাধিকার প্রধান জায়িদ রা'দ আল হুসেইন সোমবার বলেন, মিয়ানমারে যে সহিংসতা চলছে তা ‘এথনিক ক্লিনজিংয়ের একটি টেক্সটবুক উদাহরণ' বলে মনে হচ্ছে৷ তিনি বলেন, দেশটিতে সংখ্যালঘু রোহিঙ্গারা সহিংসতা আর অবিচারের মুখোমুখি হচ্ছে৷ জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক তদন্তকারীদের সেখানে যেতে দেয়া হয়নি৷ জায়িদ, যিনি জর্ডানের একজন প্রিন্স, বলেন, ‘‘রোহিঙ্গারা নিজেরাই নিজেদের ঘর-বাড়িতে আগুন লাগাচ্ছে - মিয়ানমার সরকারকে তাদের এমন দাবি থেকে সরে আসতে হবে৷'' তিনি এই পরিস্থিতিকে ‘বাস্তবতাকে অস্বীকার' বলে মন্তব্য করেন৷

মিয়ানমার নিয়ে অবশেষে প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের হোয়াইট হাউস৷ মুখপাত্র সারাহ হুকাবে বলেছেন, রাখাইনে জঙ্গি হামলাসহ উভয়পক্ষের অভিযান নিয়ে ‘গভীর অস্বস্তিতে' আছে যুক্তরাষ্ট্র৷

এদিকে সোমবার দিনের শেষে মিয়ানমারের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় একটি বিবৃতি প্রকাশ করেছে৷ অং সান সু চি এই মন্ত্রণালয়ের প্রধান৷ বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ‘‘সন্ত্রাসী হামলার নিন্দা জানিয়ে জাতিসংঘসহ বিভিন্ন দেশ যেসব বিবৃতি প্রকাশ করেছে, মিয়ানমার তাকে স্বাগত জানায়৷'' তবে বিবৃতিতে জাতিসংঘের এথনিক ক্লিনজিং বিষয়ক অভিযোগের ব্যাপারে কিছু বলা হয়নি৷ মিয়ানমার সেনাবাহিনী স্থিতিশীলতা পুনরুদ্ধারে তাদের যে দায়িত্ব, তা পালন করছে বলেও ঐ বিবৃতিতে জানানো হয়৷

জেডএইচ/এসিবি (এপি, এএফপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়