1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

মিশেলের ৩০ মিনিটের বক্তব্যে নাজেহাল ট্রাম্প

যুক্তরাষ্ট্রের বর্তমান ফার্স্ট লেডি মিশেল ওবামা কিছু কথা বলেছেন হিলারি ক্লিনটনের পক্ষে৷ ৩০ মিনিটের সেই বক্তব্যে মিশেল রীতিমতো ধসিয়ে দিয়েছেন ট্রাম্পের ইমেজ৷ এজন্য নারীদের পক্ষ থেকে সাধুবাদও পাচ্ছেন মিশেল ওবামা৷

মিশেল ওবামা

নারীদের বিরুদ্ধে ট্রাম্পের ঢালাও মন্তব্যকে ‘নারীদের জন্য অসম্মানজনক’ হিসেবে উল্লেখ করেন মিশেল ওবামা

নিউ হ্যাম্পশায়ারে যুক্তরাষ্ট্রের সময় অনুযায়ী বৃহস্পতিবারে দেয়া মিশেলের ওই বক্তব্যে উঠে এসেছিল আবেগ, ক্ষোভ ও ঘৃণা৷ তার এই ক্ষোভ ও ঘৃণা রিপাবলিকান প্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্পের বিরুদ্ধে৷ নারীদের বিরুদ্ধে ট্রাম্পের ঢালাও মন্তব্যকে ‘নারীদের জন্য অসম্মানজনক' হিসেবে উল্লেখ করেন তিনি৷ বিশেষ করে মিশেল বলেন, ‘‘একজন প্রেসিডেন্ট প্রার্থীর মুখ থেকে এমন কথা লজ্জাজনক৷ তিনি এমন এক কথা বলেছেন, যা আমার অন্তরাত্মা কাঁপিয়ে দিয়েছে এবং যা আমার চিন্তারও অতীত৷ তাই আমাদের সবারই উচিত এক হয়ে এর বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানানো, কেননা, যথেষ্ট হয়েছে, আর নয়৷ এটা এখনই বন্ধ হওয়া উচিত৷''

ট্রাম্পের একটি টেপ প্রকাশ করা হয়েছে, যেখানে তাকে বলতে শোনা গেছে, ‘চাইলেই পাওয়া যায় সব নারীকে, শুধু সাহস করে এগিয়ে যেতে হয়৷' এ টেপ প্রকাশ হওয়ার পর ভয়াবহ বিপদের মুখে আছেন রিপাবলিকান এই প্রেসিডেন্ট প্রার্থী৷ নির্বাচনের চার সপ্তাহও বাকি নেই৷ এই পরিস্থিতিতে এমন একটি টেপ প্রকাশ নিঃসন্দেহে বেকায়দায় ফেলেছে ট্রাম্পকে৷

বৃহস্পতিবারের বক্তব্যে মিশেল ট্রাম্পের সমালোচনা করতে গিয়ে বলেন, ‘‘নারীদের হয়রানি করা, জোর করে চুম্বন করাকে যিনি পৌরুষত্ব বলে দাবি করেন, তার আচরণগত সমস্যা রয়েছে৷ আপনি ডেমোক্র্যাট হন বা রিপাবলিকান, কোনো নারীর সঙ্গেই এমন ব্যবহার করতে পারেন না৷ কোনো নারীর প্রতি আপনি অসম্মান দেখাতে পারেন না, আপনি যত শক্তিশালীই হোন না কেন৷ এটা একেবারেই স্বাভাবিক নয়, এটা নোংরা রাজনীতি, যা অসম্মানজনক এবং অসহনীয়৷''

মিশেল আরো বলেন, ‘‘আমার জীবনে যে পুরুষ আছেন, তিনি কখনোই আমার সঙ্গে এভাবে কথা বলেননি৷ আমি ব্যক্তিগতভাবে ঘৃণা করি ওই সব পুরুষদের যারা বিশ্বাস করে চাইলেই নারীর শরীর পাওয়া যায়৷ এটা কোনো সভ্য মানুষের চিন্তা হতে পারে না, আর যে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট হতে চায়, তার ভাবনা তো কোনোভাবেই এমন হতে পারে না৷ অথচ লজ্জার কথা হলো, এই ব্যক্তি আমাদের সেই ইতিহাস ভুলে যেতে বলছেন, বন্ধ রুমের কথা বলে স্বাভাবিক হিসেবে মেনে নিতে বলছেন৷''

মিশেলের এই বক্তব্যের পর হিলারি ক্লিনটন তার টুইটারে লিখেছেন, ‘‘তোমার এসব কথা আমাদের প্রত্যেকের হৃদয় ছুঁয়ে গেছে৷''

মিশেল এও বলেন, ‘‘যদি ট্রাম্প নির্বাচিত হয়, আমরা আমাদের ছেলেদের বলব ঠিক আছে তোমরা নারীদের অপমান করতে পারো৷ আমরা আমাদের মেয়েদের বলবো তোমাদের সঙ্গে এমনটাই হওয়ার কথা ছিল৷ একটা সময় ছিল যখন আমাদের মা-নানী-দাদীরা তাদের পারিপাশ্বিকতা পরিবর্তন করতে ব্যর্থ ছিলেন, কিন্তু বর্তমানের নারীরা অনেক শক্তিশালী আর তাদের শক্তিমত্তার প্রমাণ তারা দিতে পারে এই নির্বাচনে৷ আমাদের জ্ঞান রয়েছে, আমাদের পছন্দ রয়েছে৷ আর আমাদের একটি করে ভোট রয়েছে৷''

মিশেল ওবামা অ্যামেরিকার অন্যতম জনপ্রিয় একজন ব্যক্তিত্ব৷ গ্যালাপের জরিপ অনুযায়ী দেশের ৬৪ ভাগ মানুষ তাঁকে পছন্দ করে৷ শিশুদের স্থূলতা, শিক্ষা বিষয়ে তার কাজ ভীষণ প্রশংসিত৷ পাশাপাশি তার আধুনিকতা আর স্টাইলের কারণে অনেকের কাছে তিনি পপ স্টারের মতো৷ সবার দৃষ্টিতে মিশেল ভীষণ অমায়িক, যে গুণ সহজেই অন্যকে কাছে টানে৷ 

এ পর্যন্ত ডোনাল্ড ট্রাম্পের বিরুদ্ধে ছয় জন নারী হয়রানির অভিযোগ এনেছেন৷ নিউইয়র্ক টাইমস আরো দু'জন নারীর সাক্ষাৎকার প্রকাশের পর, ট্রাম্প মামলা ঠুকে দিয়েছেন পত্রিকাটির বিরুদ্ধে৷ ট্রাম্প তাঁর বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ অস্বীকার করলেও এরই মধ্যে তার বিধ্বস্ত ইমেজকে তুলোধুনো করতে মাঠে নেমেছেন অনেকেই৷ স্বতন্ত্র বিশ্লেষকরা সাম্প্রতিক জরিপে হিলারির ক্রমাগত এগিয়ে থাকার বিষয়গুলো পর্যালোচনায় নিয়ে বলছেন, এবারের নির্বাচনে জয় তো দূরে থাক, ট্রাম্পের কারণে রিপাবলিকান দল আগামী কয়েক যুগ ধরে ক্ষত সারাতে পারবে কি না তা নিয়ে সন্দেহ রয়েছে৷

২০০৫ সালে ‘অ্যাকসেস হলিউড' নামের একটি প্রোগ্রাম শুটিংয়ের সময় ডোনাল্ড ট্রাম্প ৫৯ বছর বয়সে দ্বিতীয় বিয়ে করার মাত্র ৮ মাসের মাথায় আরেক নারীকে ‘ধরাশায়ী' করতে যে সব কাণ্ড করেছিলেন সেটার গল্প বলছিলেন৷ একটি বাসের মধ্যে বসে ট্রাম্প ওই নারীকে নিয়ে যে সব কথাবার্তা বলছিলেন, সেই টেপটি সম্প্রতি প্রকাশিত হয়৷

এপিবি/এসিবি (এপি, এএফপি, রয়টার্স, ডিপিএ)

প্রিয় পাঠক, নারীদের বিষয়ে ডোনাল্ড ট্রাম্পের বিতর্কিত মন্তব্য নিয়ে আপনার মতামত জানান নীচের ঘরে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়