1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

মিশরে সরকারের সংস্কার প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করলো বিরোধীরা

মিশরে সরকারের সঙ্গে আলোচনা করে খুশি হল না বিরোধীরা৷ তাই বলে আলোচনা থেকে এখনই সরে আসছে না তাঁরা৷ এদিকে মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা মিশরে একটি প্রতিনিধিত্বশীল সরকার গঠনের আহ্বান জানিয়েছেন৷

default

তাহরির চত্বরে বিক্ষোভ চলছেই

আলোচনা

মোট ছয়টি বিরোধী গোষ্ঠী সরকারের সঙ্গে আলোচনায় বসেছিল৷ এর মধ্যে ‘মুসলিম ব্রাদারহুড'-ও ছিল৷ যে দলটি দীর্ঘদিন ধরে নিষিদ্ধ এবং পশ্চিমা বিশ্বের অনেকের আশঙ্কা, মুবারক চলে গেলে এই দলটি মিশরকে ইরানের মত দেশে পরিণত করতে পারে৷ তবে দলটির গুরুত্বের কথা বিবেচনা করে সরকারের পক্ষ থেকেই ব্রাদারহুডকে আলোচনায় ডাকা হয়েছিল৷ এবং আলোচনায় তাদের অংশ নেয়ার বিষয়টিকে স্বাগত জানিয়েছেন স্বয়ং মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিলারি ক্লিন্টন৷ তবে আন্দোলনের সময় জনপ্রিয় হয়ে ওঠা বিরোধী নেতা এল বারাদেইকে আলোচনায় ডাকে নি সরকার৷ কেন, সেটা অবশ্য জানা যায় নি৷

আলোচনার পর ব্রাদারহুডের অন্যতম শীর্ষ নেতা সাংবাদিকদের বলেছেন, সরকার তাদের বেশিরভাগ দাবিই মানে নি৷ তাই দিনের শুরুতে তাহরির চত্বরে আন্দোলনের গতি একটু থেমে গেলেও রাতের দিকে আবার সেটা ফিরে আসে৷ তবে আলোচনার ব্যাপারে

NO FLASH Ägypten Proteste

সরকারের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, সংবিধান সংশোধন নিয়ে আলোচনা করতে রাজনৈতিক নেতা ও বিচারকদের সমন্বয়ে একটি কমিটি গঠনে বিরোধীরা একমত হয়েছেন৷

প্রেসিডেন্ট ওবামা

ফক্স টিভিকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা বলেছেন, তিনি মিশরে ‘এখনই' পরিবর্তন চান৷ তবে সেটা মুবারকের পদত্যাগের মাধ্যমে কি না, তা অবশ্য বোঝা যায় নি৷ ওবামা বলেন, একমাত্র মুবারকই জানেন কখন তিনি পদত্যাগ করবেন৷ তবে এটা নিশ্চিৎ যে, মিশর আর আগের অবস্থায় ফিরে যাবে না, বলেন ওবামা৷

মিশর বিষয়ে ওবামার প্রতিক্রিয়া দিন দিন কঠোর হচ্ছে বলে মনে হচ্ছে৷ কারণ ওবামা শুরু করেছিলেন ‘ধারাবাহিক পরিবর্তন'এর আহ্বান জানিয়ে৷ এরপর ‘প্রকৃত গণতন্ত্র' আনার কথা বলেছিলেন৷ তবে মিশরে যে সরকারই আসুক না কেন তার সঙ্গেও যুক্তরাষ্ট্রের সম্পর্ক ভাল থাকবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন ওবামা৷

এদিকে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছেন মুবারক কখন সরে যাবেন সেটা ঠিক করবে মিশরের জনগণ৷ তবে তিনি মনে করেন, মুবারক যদি এখনই সরে যায় তাহলে নির্বাচন নিয়ে জটিলতা তৈরি হতে পারে৷

আরও প্রতিক্রিয়া

স্পেন নির্বাচন এগিয়ে আনার আহ্বান জানিয়েছে৷ আর ক্যানাডা গণতান্ত্রিক সরকারের পক্ষে জনগণের দাবিকে সমর্থন জানিয়েছে৷

প্রতিবেদন: জাহিদুল হক

সম্পাদনা: রিয়াজুল ইসলাম

নির্বাচিত প্রতিবেদন