1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

মিশরে মুসলিম ব্রাদারহুডের বিক্ষোভ দিবস

সেনা অভিযানে ছয় শতাধিক মানুষের মৃত্যুর পর আজ বিক্ষোভ দিবসের ডাক দিয়েছে মুসলিম ব্রাদারহুড৷ জুমার নামাজের পর সবাইকে রাস্তায় নেমে প্রতিবাদ জানানোর আহ্বান জানিয়েছে দলটি৷

গণমাধ্যমগুলো জানিয়েছে, বুধবার নিরাপত্তাবাহিনীর অভিযানে নিহত হয়েছে ৬৩৮ জন৷ স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় খোদ গণমাধ্যমকে এই পরিসংখ্যান দিলেও রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনে তা অস্বীকার করেছে৷ বৃহস্পতিবার টুইটারে জুমার নামাজের পর কায়রোর সব মসজিদ থেকে রামসিস স্কয়ারে সবাইকে সমবেত হওয়ার আহ্বান জানান ব্রাদারহুডের মুখপাত্র গেহাদ আল হাদ্দাদ৷

অন্যদিকে, দলটি এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, প্রিয়জনদের হারানোয় তাদের মনে যে শোক আর কষ্টের অনুভূতি জন্ম নিয়েছে সেটিকে শক্তিতে পরিণত করে সেনা অভ্যুত্থানের কড়া জবাব দিতে হবে৷

পশ্চিমা বিশ্বের ব্যাপক সমালোচনার পরও মিশরের সেনা সমর্থিত সরকার হুঁশিয়ার করে দিয়েছে, পুলিশ এবং গণ প্রতিষ্ঠানের উপর যারা হামলা চালাবে, তাদের উপর গুলি চালাতে বাধ্য হবে নিরাপত্তাবাহিনী৷ বৃহস্পতিবার কায়রোর একটি সরকারি ভবনে আগুন দেয়ার পর এই হুঁশিয়ারি দেয় তারা৷

এদিকে, এই আন্দোলনের প্রতিবাদে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে জনগণের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে নিরপেক্ষ এবং বামপন্থি জোট ন্যাশনাল স্যালভেশন ফ্রন্ট৷ মুসলিম ব্রাদারহুডের সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের কঠোর জবাব দেয়ার আহ্বান জানিয়েছে তারা৷

Bildergalerie Ägypten Gewalt Muslimbrüder

গণমাধ্যমগুলোর খবর অনুযায়ী নিরাপত্তাবাহিনীর অভিযানে ৬৩৮ জন নিহত হয়েছে

আন্তর্জাতিক নিন্দা

চলমান সহিংসতার কারণে মিশরে দাতা দেশগুলোর অর্থ সহায়তা নিয়েও প্রশ্ন দেখা দিয়েছে৷ সহিংসতার আগে মিশরকে ১২ বিলিয়ন মার্কিন ডলার অর্থ সহায়তা দেয়ার আগ্রহের কথা জানিয়েছিল সৌদি আরব, কুয়েত এবং সংযুক্ত আরব আমিরাত৷ তবে, সামরিক মহড়া বাতিল করলেও অর্থ সহায়তা বাতিলের কোন ঘোষণা দেয়নি যুক্তরাষ্ট্র৷

বেসামরিক নাগরিকদের উপর সেনা অভিযানের তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা৷ এক বিবৃতিতে তিনি জানান, এই সহিংসতার পর মিশরের সাথে যুক্তরাষ্ট্রের স্বাভাবিক সম্পর্ক বজায় রাখা কঠিন হবে৷ এ কারণে আগামী মাসে মিশরের সাথে যৌথ সামরিক মহড়া বাতিলের ঘোষণা দিয়েছেন তিনি৷

অন্যদিকে, মিশরের প্রেসিডেন্ট এক বিবৃতিতে জানিয়েছেন, ওবামার বক্তব্য ঘটনার উপর ভিত্তি করে নয়; তার এই বক্তব্য সন্ত্রাসী দলগুলোকে উস্কে দিতে পারে৷ চলমান সহিংসতার কারণে মিশরে অবস্থিত সব নাগরিককে দেশে ফিরে যাওয়ার আহ্বান জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়৷

এদিকে, মিশরের এই ঘটনার নিন্দা জানিয়েছে জাতিসংঘ৷ মহাসচিব বান কি মুন এক বিবৃতিতে জানিয়েছেন, বিক্ষোভকারীদের উপর নিরাপত্তাকর্মীদের বলপ্রয়োগে তিনি মর্মাহত৷

তুরস্কের প্রধানমন্ত্রী রেচেপ তায়িপ এর্দোয়ান মিশরের সহিংসতাকে গণতন্ত্রে ফেরার পথে মারাত্মক প্রতিবন্ধক বলে উল্লেখ করেছেন৷

সহিংসতা চরমে

বুধবার নিরাপত্তাবাহিনী কায়রোয় মুরসি সমর্থকদের দুটি ক্যাম্প উচ্ছেদ করতে গেলে এই সহিংসতার ঘটনা ঘটে৷ পরবর্তীতে এই সংঘর্ষ ছড়িয়ে পড়ে অন্যান্য শহরে৷ সরকার মাস জুড়ে জরুরি অবস্থা এবং রাজধানী কায়রো সহ বিভিন্ন শহরে ও প্রদেশে সন্ধ্যা থেকে ভোর পর্যন্ত কারফিউ ঘোষণা করেছে৷

মুরসি ক্ষমতাচ্যুত হওয়ার পর তৃতীয়বারের মত এত বড় সহিংসতার ঘটনা ঘটল৷ তবে প্রাণহানির সংখ্যা এবারই বেশি৷ ২০১১ সালের ২৮শে জানুয়ারি হোসনি মুবারকের পতনের দাবিতে ফ্রাইডে অফ অ্যাঙ্গার বা ‘‘ক্রোধের শুক্রবারে'' বিক্ষোভের ডাক দিয়েছিল মুসলিম ব্রাদারহুড৷ আর ঐ আন্দোলনেই পতন হয় মুবারকের৷

এপিবি/এসবি (ডিপিএ/রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন