1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

‘মা, দেশটা কি এবার দৈত্যদের হয়ে গেল!'

বাংলাদেশে বিরোধী দলের অবরোধ কর্মসূচির সময় চলছে ব্যাপক সহিংসতা৷ যানবাহন পোড়ানো হচ্ছে, পোড়ানো হচ্ছে মানুষ৷ এই পরিস্থিতিতে শিশুমনের প্রতিক্রিয়া তুলে ধরেছেন এক ব্লগার৷ লিখেছেন একটি কবিতা৷

আমার ব্লগে সেই কবিতাটি লিখেছেন ফাত্তাহ ইয়াকুত৷ কবিতার মান নিয়ে প্রশ্ন থাকতে পারে, তবে সহজ ভাষার এ লেখাটিতে এতদিন সুন্দর পৃথিবী আর রূপকথার দেশে নিজেকে স্বপ্নে-কল্পনায় দেখে আসা শিশু হঠাৎ অবর্ণনীয় নিষ্ঠুরতাকে প্রত্যক্ষ করে মানসিকভাবে কতটা বিপর্যস্ত হতে পারে, তা ফুটে উঠেছে পরিষ্কার৷ কবিতার নাম, ‘একটি শিশুর কান্না'

কবিতায় যুদ্ধাপরাধীদের বিরুদ্ধে ট্রাইব্যুনাল রায় ঘোষণা শুরু করার পর থেকেই যে জামায়াত-শিবির দেশের বিভিন্ন স্থানে অরাজক পরিস্থিতি সৃষ্টি করে আসছে সে কথা লিখেননি ফাত্তাহ ইয়াকুত৷ সংখ্যালঘুদের বাড়ি-ঘর, মন্দিরে লুটপাট, অগ্নিসংযোগ, কোলের শিশু থেকে শুরু করে পক্ষাঘাতগ্রস্ত বৃ্দ্ধাকেও প্রহার; পুলিশের ওপর হামলা, পিটিয়ে মারা; পুলিশ ফাঁড়ি; অফিস-আদালত, বিদ্যুৎ কেন্দ্রে আগুন – তখন এমন ঘটনাও যে প্রচুর ঘটেছে আমার ব্লগের ব্লগার সেসবও লিখেননি৷ শিশুটির বয়স মাত্র সাত বছর৷ সে কি রাজনীতি বোঝে!

বোঝে না বলেই আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন সরকার যে বিরোধী দলের দাবি অগ্রাহ্য করে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচন অনুষ্ঠানের পথ না ধরে পরিস্থিতি আরো ভয়াবহ করে তোলায় ভূমিকা রেখেছে, সে কথাও লেখার প্রয়োজন মনে করেননি ফাত্তাহ৷ শিশু তো নির্বাচন, ক্ষমতা আঁকড়ে থাকা, কিংবা ক্ষমতায় যাওয়ার মরিয়া প্রয়াস- এ সবের কিছুই বোঝে না! সে দেখছে দাবি আদায়ের জন্য পুড়িয়ে মারা হচ্ছে মানুষ৷ হয়ত মায়ের হাত ধরে পথ চলতে গিয়ে দেখেছে এমন নিদারুণ বিভৎসতা, কিংবা টেলিভিশনে দেখে রাতে স্বপ্নে পেয়েছে দৈত্য-দানব-রাক্ষসের দেখা৷

Dhaka Bus Brandanschlag Unruhen Opposition 29.11.2013

‘মাগো, আমার নিঃশ্বাস যে বন্ধ হয়ে যায়, ওদের থামতে বলো না!'

সারাক্ষণ পোড়ামানুষগুলো ঘোরে তার চোখের সামনে৷ বড়রা একাত্তরে মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে সাজাপ্রাপ্তদের রক্ষা করতে কিংবা সরকারের ‘অন্যায়'-এর প্রতিবাদ জানাতে গিয়ে মানুষ পুড়িয়ে মারাকেও ভাবে ন্যায়, এমন পাশবিকতা বন্ধ করতে ব্যর্থ সরকার ধ্বংস আর হত্যাযজ্ঞ দেখেও থাকে নির্লিপ্ত৷ কিন্তু পুড়ে মরা মানুষ দেখে শিশুর মুখে খাবার ওঠেনা৷ প্রিয় মাছভাজাও আজকাল খেতে চায় না, পোড়া মাছে ভেসে ওঠে পোড়া মানুষ!

ফাত্তাহ লিখেছেন, ‘‘আমার সাত বছরের কন্যা ভাতের থালাতে

ফুঁপড়ে কেঁদে উঠে; মা তুমি

ওদের থামতে বলো না৷

আমি ঠিক গিলতে পারছি না

মাগো ! মাছ ভাজাটা দিও না, দিও না

আমার পাতে তুলে,

কেনরে, তোর তো বড় পছন্দ এটা!

থাক্ মা ওসব কথা, আধো গলায়

ফুঁপড়ে কেঁদে বলে,

ওটা দেখতে যে পোঁড়া মানুষের চামড়া

মাগো! ও থেকে বড় পোঁড়া মানুষের গন্ধ ছড়াচ্ছে

তোমরা কি তার গন্ধ পাও না?''

শিশুর মনে হয় এমন বর্বরতা দেখে ঘরের পোষা বিড়ালটির চোখেও জল এসেছে৷ কিন্তু মানুষের মৃত্যুতে মানুষ কী করে উল্লাস করতে পারে, তা সে ভেবে পায় না৷

Dhaka Bus Brandanschlag Unruhen Opposition Opfer 28.11.2013

‘মানুষের কান্না রাতের আঁধারে এক হয়ে গেছে’

মা-কে সে বলে,

‘‘মাগো তাকিয়ে দেখ, পুশিটাও

যেন বুঝতে পেরেছে

ওর চোখ দিয়ে জল ঝরছে,

শুধু শুঁকে দেখল ওমা –

বুঝি আমায় বলছে, ও মানুষের চামড়া খায় না৷

মাগো, আমার নিঃশ্বাস যে বন্ধ হয়ে যায়

ওদের থামতে বলো না!''

কিন্তু কেউ তো থামছে না৷ পোড়া মানুষের মিছিল প্রতিদিন হচ্ছে দীর্ঘ থেকে দীর্ঘতর৷ তাই কবিতায় শিশুটির প্রশ্ন, ‘‘তবে কি মা দেশটা এবার দৈত্যদের হয়ে গেল!''

মা নীরব৷ রাজনীতির ঘোরপ্যাঁচ বোঝে না আর মায়ের অসহায়ত্ব উপলব্ধি করতে পারেনা বলে মা-কেও সন্দেহ হয় তার৷ আর কয়েকদিন পরই বিজয় দিবস৷ সে কথা মনে করে মায়ের কাছে শিশুটি জানতে চায়,

‘‘তবে এবার কাকে ‘মা' বলবো

১৬ই ডিসেম্বর বিজয়ের মাসে

কার নামে তুমি পতাকা তুলবে মাগো!

পুশিটাও যেন ওর সাথে মিশে

মিউমিউ করে একই কথা বলল৷

বিড়ালের কান্না, মানুষের কান্না রাতের

আঁধারে এক হয়ে গেছে৷

তোমরা তবে কেন এভাবে মানুষ পোড়াচ্ছ?''

সংকলন: আশীষ চক্রবর্ত্তী

সম্পাদনা: দেবারতি গুহ

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়