1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

মালয়েশিয়ার নিখোঁজ বিমানের সন্ধান?

প্রায় একই দিনে মালয়েশিয়া এয়ারলাইন্সের দু'দুটি অভিশপ্ত বিমানকে ঘিরে নতুন খবর! ভারত মহাসাগরে পাওয়া ধ্বংসাবশেষ নিখোঁজ এমএইচ-৩৭০'এর হতে পারে৷ ওদিকে ইউক্রেনের আকাশে ধ্বংস হওয়া বিমানের তদন্ত বানচাল করলো রাশিয়া৷

ভারত মহাসাগরে লা রেউনিয়ঁ দ্বীপে ভেসে এসেছে বিমানের একটি অংশ, যা প্রায় ৫০০ দিন আগে নিরুদ্দেশ হওয়া এমএইচ-৩৭০ বিমানের বলে ধরে নেওয়া হচ্ছে৷ এখনো চূড়ান্ত প্রমাণ পাওয়া না গেলেও বিশেষজ্ঞরা এ বিষয়ে মোটামুটি নিশ্চিত৷ কারণ বিষুবরেখার দক্ষিণে অন্য কোনো বোয়িং ৭৭৭ মডেলের বিমান কখনো ধ্বংস হয়নি৷ ফ্রান্সের বিইএ বিমান দুর্ঘটনা তদন্ত সংস্থা বিমানের অংশটি পরীক্ষার কাজ শুরু করে দিয়েছে৷

মালয়েশিয়ার উপ-পরিবহণ মন্ত্রী বলেছেন, তাঁর প্রশাসন প্রায় নিশ্চিত যে, বিমানের অংশটি এমএইচ-৩৭০ বিমানেরই৷ সেটি শনাক্ত করতে দিন দুয়েক লাগতে পারে বলে মালয়েশিয়ার তদন্তকারীদের ধারণা৷ অস্ট্রেলিয়ার পরিবহণ মন্ত্রী ওয়ারেন ট্রাস বলেন, লা রেউনিয়ঁ দ্বীপে পাওয়া বিমানের ‘ফ্ল্যাপেরন' অংশটির উপর যে সংখ্যা লেখা রয়েছে, তার সাহায্যে সেটিকে দ্রুত শনাক্ত করা সম্ভব হবে৷ সে দেশের সমুদ্রবিজ্ঞান সংক্রান্ত গবেষণা প্রতিষ্ঠানের বিশেষজ্ঞ ডেভিড গ্রিফিন এমএইচ-৩৭০ উদ্ধার অভিযানের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন৷ তাঁর মতে, বাতাস ও সমুদ্রের স্রোত বিমানের ধ্বংসাবশেষ ভারত মহাসাগরের দক্ষিণে ঘটনাস্থল থেকে অনায়াসে উত্তরে নিয়ে যেতে পারে৷ উল্লেখ্য, মালয়েশিয়ার নিখোঁজ বিমানের খোঁজে এই মুহূর্তেও একাধিক অভিযান চালু রয়েছে৷

গত বছরের মার্চ মাসে বিমানটি কুয়ালালামপুর থেকে বেইজিং যাবার পথে ২৩৯ জন যাত্রী ও কর্মী সহ নিখোঁজ হয়ে গিয়েছিল৷ বিমানটির খোঁজে বিশাল মাপের উদ্ধার অভিযান চালানো সত্ত্বেও সাফল্য আসেনি৷

এদিকে ২০১৪ সালের এপ্রিল মাসে ইউক্রেনের আকাশে এমএইচ-১৭ বিমান ধ্বংসের কারণ তদন্ত করতে জাতিসংঘের বিশেষ ট্রাইব্যুনাল গঠনের উদ্যোগ বিফল হয়েছে৷ এই লক্ষ্যে নিরাপত্তা পরিষদে আনা এক প্রস্তাবের বিরুদ্ধে ভেটো প্রয়োগ করেছে রাশিয়া৷ ১৫টি সদস্য দেশের মধ্যে ১১টি প্রস্তাবের পক্ষে ভোট দেয় এবং ৩টি দেশ ভোটদানে বিরত থাকে৷ রুশপন্থি বিদ্রোহীরা ক্ষেপণাস্ত্রের আঘাতে বিমানটি ধ্বংস করেছিল বলে অভিযোগ উঠেছে৷ রাশিয়া এই ঘটনায় জড়িত নয় বলে দাবি করে আসছে৷ তাদের অভিযোগ, ইউক্রেনের সামরিক বাহিনীই এই ঘটনার জন্য দায়ী৷ জাতিসংঘে রুশ রাষ্ট্রদূত বলেন, ঘটনাস্থলে রুশ তদন্তকারীদের কাজ করতে দেওয়া হয়নি৷ ফলে এখন জাতিসংঘের উদ্যোগে তদন্ত হলেও কোনো পক্ষপাত হবে না, এমন কোনো নিশ্চয়তা পাওয়া যাচ্ছে না বলে তিনি মনে করেন৷ অস্ট্রেলিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী এই অবস্থানের জন্য রাশিয়ার তীব্র সমালোচনা করেন৷ উল্লেখ্য, এই ঘটনায় ৩৯ জন অস্ট্রেলীয় নাগরিক নিহত হয়েছেন৷

এসবি/ডিজি (রয়টার্স, ডিপিএ, এএফপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন