1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

মালয়েশিয়ার উন্নয়নের স্বরূপ নিয়ে কার্টুন ‘দেয়ার ইউ গো’

অল্প সময়ে দ্রুত উন্নতি করেছিল মালয়েশিয়া৷ এর অথর্নৈতিক মেরুদণ্ডটি মাহাথির মোহাম্মদের সময়ে কল্পনাতীত দৃঢ়তা পায়৷ কিন্তু ঐ গণ উন্নয়নের জোয়ারে যে সব মানুষ আশ্রয়হীন হয়েছিল, এবার তার কথাই জানালো কার্টুনের বই ‘দেয়ার ইউ গো’৷

Pulau, Penang, Malaysia, মালয়েশিয়া, উন্নয়ন, কার্টুন, দেয়ার ইউ গো,

মালয়েশিয়ার পুলাউ সৈকত

সোমবার এই চোখা বিদ্রুপের কার্টুন বইটি মালয়েশিয়ায় প্রকাশিত হয়েছে৷ সারভাইভ্যাল ইন্টারন্যাশনাল নামের একটি সংস্থা এর উদ্যোক্তা৷ পৃথিবীর সব আদিবাসীরা, বলা চলে মালয়েশিয়ার সারাওয়াক প্রদেশের পেনান থেকে শুরু করে আমাজনের ইণ্ডিয়ানরা পর্যন্ত সবাই-ই সারভাইবালকে জানিয়েছে, কীভাবে এই বইয়ের কার্টুনগুলো তাদের জীবনে উন্নয়নের অভিজ্ঞতাকে চমৎকারভাবে তুলে ধরেছে৷ একজন আদিবাসী কর্মী যিনি পেনান-এ কাজ করছেন, জানিয়েছেন - ‘দেয়ার ইউ গো' বইটিতে যা লেখা রয়েছে বাস্তবে আসলে সারাওয়াকে তেমনটিই ঘটেছিল৷

সারভাইভ্যাল ‘দেয়ার ইউ গো' বইটি মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রীর কাছে পাঠিয়েছে৷ পৌঁছে দিয়েছে সারাওয়াকের মুখ্যমন্ত্রীর কাছেও৷ এছাড়া, মন্ত্রীসভার গুরুত্বপূর্ণ পদে যারা আছেন এমনকি এই কার্টুন বইটি তারা মালয়েশিয়ার সবগুলো সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের পাঠাগারগুলোতেও পাঠিয়ে দিয়েছে৷

অধিকাংশ ক্ষেত্রে উন্নয়ন তত্ত্ব কীভাবে আদিবাসীদের তাদের শেকড় থেকে উচ্ছেদকে বৈধতার পোষাক পরায়, সেটিই এই বইয়ের কার্টুনে চিত্রিত হয়েছে৷ জন নামে পেনানের আরেক আদিবাসী সারভাইভ্যালকে জানিয়েছেন, বইটি আদতেই এখানকার বাস্তবতা তুলে ধরেছে, যখন ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের মানুষ-জন এখানে আমাদের বন ধ্বংস করতে এসেছিল৷ তাদের বক্তব্য ছিল, তারা কাজ করছে প্রগতির জন্য! আর এই বন উজাড় করাটাই ছিল প্রগতি৷ সরকার বলেছে, এই-ই হচ্ছে উন্নয়ন৷ আমরা এই উন্নয়নকে থামাতে পারিনি৷ কিন্তু শেষপর্যন্ত তারা যা করেছে তা হল আমাদের বনগুলো ধ্বংস করা৷ আর এরপর তারা চলে গেছে৷

এদিকে ‘দেয়ার ইউ গো' বইটি সম্পর্কে যুক্তরাজ্যের সাবেক প্রধানমন্ত্রী টনি ব্লেয়ার বলেছেন, আদিবাসীদের কথা বিবেচনায় রেখে এই বইটি উন্নয়ন সহায়তা দেওয়ার ক্ষেত্রে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ বিষয়কে তুলে ধরেছে৷

আয়ারল্যান্ডের প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট এবং জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক সাবেক হাই কমিশনার মেরি রবিনসন খুব চমৎকার করে বলেছেন, ‘এই ছোট্ট বইটিতে অনেক বড় একটি বার্তা রয়েছে৷' আসলেও যেন তাই, উন্নয়নের ক্ষেত্রে চিরকালই যেন এইসব ব্রাত্যজনের কন্ঠ আর তাদের জীবন অশ্রুত আর লোকচক্ষুর আড়ালে শেষপযর্ন্ত অদৃশ্যই রয়ে যায়৷

প্রতিবেদন: হুমায়ূন রেজা

সম্পাদনা: দেবারতি গুহ