1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

মাল্টিটাস্কিং স্মৃতির জন্য মোটেই ভালো নয়

মোবাইল ফোনে কথা বলতে বলতে ফেসবুক চ্যাট, হাতে রান্নার খুন্তি – এমন দৃশ্য তেমন বিরল নয়৷ কিন্তু এমন ‘মাল্টিটাস্কিং’ নাকি স্মৃতিভাণ্ডারের জন্য মোটেই ভালো নয়৷

বৈজ্ঞানিক পরীক্ষার মাধ্যমে শর্ট টার্ম ও লং টার্ম মেমারি-র ক্রিয়া-প্রতিক্রিয়া সম্পর্কে জানা গেছে৷

ব্রাউনশোয়াইগ শহরের নিউরো বায়োলজিস্ট অধ্যাপক মার্টিন কর্টে মস্তিষ্ক গবেষক৷ নতুন কিছু শিখলে তা ‘লং টার্ম মেমরি' বা স্মৃতিভাণ্ডারে রাখা এত কঠিন হয় কেন, নিজের টিমের সঙ্গে তা জানার চেষ্টা করছেন তিনি৷ মস্তিষ্কের স্নায়ুকোষগুলি প্রোটিন অণু পেতে প্রতিযোগিতার দৌড়ে নামে৷ দীর্ঘমেয়াদি শিক্ষার জন্য এই প্রোটিন জরুরি৷ অধ্যাপক কর্টে বলেন, ‘‘এর কারণ এক আণবিক প্রাচীর, যা স্থির করে দেয় ঠিক কতটা তথ্য শর্ট টার্ম মেমরি থেকে লং টার্ম মেমরি-তে পাঠানো সম্ভব৷''

এই পরীক্ষার জন্য গবেষকরা ইঁদুরের মস্তিষ্ক কেটে ভাগ করেছেন৷ তাঁদের মূল আগ্রহ ‘হিপোক্যাম্পাস'-কে ঘিরে, মস্তিষ্কের যে অংশ তথ্য গ্রহণ করার জন্য অত্যন্ত জরুরি৷

এই পরীক্ষার ক্ষেত্রে একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় মনে রাখতে হয়৷ পরীক্ষার জন্য যে ইঁদুর মারা হয়েছে, তার মস্তিষ্কের কোষ জীবন্ত রাখতে হবে৷ মস্তিষ্কের পরিবেশের নকল করে, এমন এক বিশেষ তরল দ্রব্য সেই কাজ করে৷

মস্তিষ্কের প্রতিটি কোষ মস্তিষ্কের অন্যান্য কোষের সঙ্গে যুক্ত৷ তাদের মধ্যে ১০,০০০ পর্যন্ত যোগাযোগ সম্ভব৷ মস্তিষ্কের কোষগুলির মধ্যে এই সংযোগকে ‘সিন্যাপ্স' বলা হয়৷ মস্তিষ্কের এই অংশেই শিক্ষাগ্রহণ প্রক্রিয়া চলে৷ অধ্যাপক কর্টে বলেন, ‘‘এখানে আমরা মস্তিষ্কের কোষগুলির মধ্যে সংযোগের অংশ দেখতে পাচ্ছি, যাকে সিন্যাপ্স বলা হয়৷ এখানে তথ্য জমা রাখা হয় সিন্যাপ্স-কে আরও শক্তিশালী করে তুলে৷ এটা করা যায় আপস্ট্রিম ও ডাউনস্ট্রিম কোষ একই সঙ্গে সক্রিয় হলে৷''

দুটিরই সিন্যাপ্স সক্রিয় করলে কোষে ন্যাট্রিয়াম প্রবেশ করে৷ ক্যালসিয়ামও ঢোকে, যার ফলে সিন্যাপ্সের মধ্যে প্রোটিনের নতুন অণু তৈরি হয়৷ স্মৃতির চিহ্ন অবশ্য তখনই অক্ষত থাকে, যদি হুবহু একই সিন্যাপ্স-এর মধ্যে তাকে আরও স্টিমুলেট করা হয়৷ তখন সেই স্মৃতি লং টার্ম মেমরি-তে চলে যায়৷

ইঁদুরের মস্তিষ্ক কেটে বিজ্ঞানীরা ঠিক সেটাই দেখাতে পেরেছেন৷ ইলেকট্রোডের মাধ্যমে তাতে ইলেকট্রিক স্টিমুলেশন সৃষ্টি করা হয়েছিল৷ একই সিন্যাপ্স বার বার স্টিমুলেট করায় স্মৃতির চিহ্ন আরও স্থিতিশীল হয়ে ওঠে৷ কিন্তু মস্তিষ্কের কোনো কোষের আলাদা আলাদা সিন্যাপ্স স্টিমুলেট করা হলে আগের স্মৃতির চিহ্ন মুছে যেতে পারে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

অধ্যাপক কর্টে বলেন, ‘‘এখানে আমরা এমন সিন্যাপ্স দেখতে পাচ্ছি, যা শিক্ষার স্টিমুলেশনের মাধ্যমে শক্তিশালী করা হয়েছে৷ শিক্ষার স্টিমুলেশনের মাধ্যমে নতুন প্রোটিন মলিকিউল তৈরি হয়েছে৷ কিন্তু খুব কম সময়ের মধ্যে যদি নতুন করে কিছু শেখা হয় বা মনোযোগ অন্য দিকে চলে যায়, তখন কিন্তু আগের স্মৃতি মুছে যেতে পারে৷ তখন প্রোটিন মলিকিউল আর এই সিন্যাপ্সে থাকবে না, নতুন চিহ্নের দিকে চলে যাবে৷ সেটি আগেরটির তুলনায় অনেক দুর্বল হলেও প্রোটিন মলিকিউল চুরি করে শক্তিশালী হয়ে উঠবে৷ প্রথম শিক্ষা তখন সরে যাবে, দ্বিতীয়টি মনে দাগ কাটবে৷''

এই প্রক্রিয়া শিক্ষার উপর দীর্ঘমেয়াদি প্রভাব ফেলে৷ অর্থাৎ শিক্ষার যে সব স্টিমুলেশন একই সিন্যাপ্সে এসে পরস্পরকে শক্তিশালী করে তোলে, সেগুলিই লং টার্ম মেমারি-তে স্থান পেতে পারে৷ তাই ভালো করে শেখার একটা কায়দা রয়েছে৷ অধ্যাপক কর্টে বলেন, ‘‘আমাদের পরীক্ষা থেকে দেখা যাচ্ছে, মাল্টিটাস্কিং এড়িয়ে চলাই ভালো৷ কারণ সে ক্ষেত্রে কোনো পরিকল্পনা ছাড়াই এমন সব সিন্যাপ্স শক্তিশালী করে তোলা হয়, যা হয়ত আমরা চাই না৷ দ্বিতীয়ত শিক্ষার সময় কম রাখা উচিত, যাতে শেষের অংশ শুরুর অংশ মুছে না দেয়৷''

কোষের স্তরে এই পরীক্ষাগুলি মনস্তত্ত্ববিদদের বক্তব্যকেই সমর্থন করে৷ তাঁরা বহুকাল আগেই বুঝতে পেরেছিলেন মাল্টিটাস্কিং ক্ষতিকর হতে পারে এবং ছোট ছোট লার্নিং ইউনিট মনে রাখা অনেক সহজ৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

সংশ্লিষ্ট বিষয়