1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিজ্ঞান পরিবেশ

মালি’তে শিশুদের উপর ম্যালেরিয়ার টিকা পরীক্ষা সফল

মালি এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের গবেষকদের যৌথ প্রচেষ্টায় সৃষ্ট এই ভ্যাক্সিন শিশুদের শরীরে বিপুল পরিমাণ এ্যান্টিবডি সৃষ্টি করেছে, অর্থাৎ তাদের ইমিউন ব্যবস্থা জোরদার করেছে৷

default

‘মানুষের গন্ধ পাঁউ’

ভ্যাক্সিনটি প্যালসিপারাম ম্যালেরিয়া পরজীবী প্যারাসাইটের একটি বিশেষ স্ট্রেইন বা গোত্রের উপর ভিত্তি করে সৃষ্টি করা হয়েছে৷ এই প্যারাসাইটটি হল আফ্রিকায় সবচেয়ে প্রচলিত এবং সর্বাপেক্ষা মারাত্মক৷ ভ্যাক্সিনটি পশ্চিম আফ্রিকার মালির একটি গ্রামীন প্রদেশে এক থেকে ছয় বছরের ১০০ শিশুর উপর প্রয়োগ করা হয়৷ শিশুদের ক্রমে ক্রমে তিনটি ডোজ দেওয়া হয় এবং ভ্যাক্সিনের মাত্রাও ধীরে ধীরে বাড়ানো হয়৷ দেখা যায় যে, তাদের শরীরে অন্তত এক বছর ধরে উচ্চ পরিমাণে এ্যান্টিবডি থাকে৷

এ্যান্টিবডি

শিশুদের ঐ ম্যালেরিয়া ভ্যাক্সিন ছাড়া জলাতঙ্কের একটি নিয়ন্ত্রণ টিকাও দেওয়া হয়েছিল৷ দেখা যায় যে, শিশুদের শরীর ম্যালেরিয়ার ভ্যাক্সিনটি খুব ভালোভাবেই নিয়েছে৷ ভ্যাক্সিনের ফলে শিশুদের শরীরে যে পরিমাণ এ্যান্টিবডি সৃষ্টি হয়, তা যে সব প্রাপ্তবয়স্ক সারা জীবন ম্যালেরিয়ার সংস্পর্শে থেকে প্যারাসাইটটির প্রতি ইমিউন হয়ে উঠেছেন, তাদের শরীরের এ্যান্টিবডির সমান কিংবা তারও বেশী৷ মশার কামড়ে সংক্রমিত প্যারাসাইটটি যখন মানুষের রক্তে বংশবৃদ্ধি শুরু করে, ঠিক তখনই মালিতে ব্যবহৃত ভ্যাক্সিনটি সক্রিয় হয়৷ মালির ম্যালেরিয়া গবেষণা এবং প্রশিক্ষণ কেন্দ্র ও যুক্তরাষ্ট্রের মেরিল্যান্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা এখন ৪০০ শিশুর উপর ভ্যাক্সিনটি পরীক্ষা করছেন৷

‘মানুষের গন্ধ পাঁউ'

অপরদিকে যুক্তরাষ্ট্রের ইয়েল বিশ্ববিদ্যালয়ের একদল গবেষক একটি পৃথক গবেষণায় এ্যানোফিলিস গামবিয়ে মশার ৫০টি জিন আবিষ্কার করেছেন, যেগুলি দিয়ে এই মশা ‘মানুষের গন্ধ পায়'৷ এর ফলে মশক বিতাড়নের আরো ভালো পন্থা উদ্ভাবনের আশা দেখা দিয়েছে৷ মার্কিন ‘নেচার' জার্নালে প্রকাশিত আরো দু'টি গবেষণায় বলা হয়েছে যে, গবেষকরা দৃশ্যত একটি বিশেষ প্রোটিন খুঁজে পেয়েছেন, যার মাধ্যমে ম্যালেরিয়া প্যারাসাইট মানুষের রক্তে লোহিত কণিকাগুলিতে ঢোকার চেষ্টা করে৷ এই প্রোটিনটিকে আটকে দেবার পন্থা আবিষ্কৃত হলে, তা ম্যালেরিয়ার উন্নততর ওষুধ তৈরীতে সাহায্য করতে পারবে৷

প্রতিবেদক: অরুণ শঙ্কর চৌধুরী

সম্পাদনা: আরাফাতুল ইসলাম

সংশ্লিষ্ট বিষয়