1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচন

মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ইলেক্টোরাল কলেজের ভূমিকা

ভোটাররা নন, বস্তুত মার্কিন প্রেসিডেন্ট কে হবেন, তা নির্ধারণ করে তথাকথিত ইলেক্টোরাল কলেজ, তা-ও আবার ভোট সম্পন্ন হবার এক মাস পরে৷ পদ্ধতিটি অনেক মার্কিনির পক্ষেও উপলব্ধি করা শক্ত৷

২০১৬ সালের ৮ই নভেম্বর যুক্তরাষ্ট্রে ১৮ বছরের বেশি বয়সের নাগরিকরা ভোট দেবেন বটে, কিন্তু মার্কিন প্রেসিডেন্ট জনগণের এই সরাসরি ভোটে নির্বাচিত হবেন না৷ ইলেক্টোরাল কলেজ নামের একটি প্রতিষ্ঠানের ৫৩৮ জন ইলেক্টর শেষমেষ নির্ধারণ করবেন, যুক্তরাষ্ট্রের পরবর্তী প্রেসিডেন্ট কে হবেন৷

হিসেবটা সহজ নয়৷ যুক্তরাষ্ট্রের রাজ্যগুলির সংখ্যা ৫০৷ ইলেক্টোরাল কলেজে প্রতিটি রাজ্যের নির্দিষ্ট সংখ্যক প্রতিনিধি থাকবে; কংগ্রেসের উভয় কক্ষ মিলিয়ে রাজ্যটির যত প্রতিনিধি, সেটাই হলো তার ইলেক্টরদের সংখ্যা৷ হাউস অফ রিপ্রেজেন্টেটিভস-এ একটি রাজ্যের প্রতিনিধি সংখ্যা নির্ভর করে রাজ্যটির জনসংখ্যার উপর; অপরদিকে সেনেটে প্রতি রাজ্যের দু’টি করে আসন থাকে৷ যেমন নিউ ইয়র্ক রাজ্যের রিপ্রেজেন্টেটিভদের সংখ্যা ২৭, সেই সঙ্গে দু’জন সেনেটর৷ কাজেই ইলেক্টোরাল কলেজে নিউ ইয়র্কের থাকবে ২৯ জন ইলেক্টর৷

সব মিলিয়ে ৫০টি রাজ্যের ৪৩৫ জন রিপ্রেজেন্টেটেটিভ ও সেই সঙ্গে ১০০ জন সেনেটর, এ ছাড়া ডিস্ট্রিক্ট অফ কলাম্বিয়ার তিনজন ইলেক্টর: সাকুল্যে ৫৩৮৷ ঊনবিংশ শতাব্দীর আশির দশক থেকেই এক মেইন আর নেব্রাস্কা ছাড়া বাকি রাজ্যগুলিতে ‘উইনার টেকস অল’ ভিত্তিতে কোনো একজন প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থীকে রাজ্যের সব ইলেক্টরের সমর্থনের প্রতিশ্রুতি দিয়ে আসা হচ্ছে৷ অর্থাৎ ভোটে যে প্রার্থী সেই রাজ্যে এগিয়ে থাকবেন, তিনিই সেই রাজ্যের সব ক’জন ইলেক্টরের সমর্থন পাবেন৷ মেইন আর নেব্রাস্কায় কংগ্রেসনাল ডিস্ট্রিক্টের ভিত্তিতে দু’জন, ও রাজ্য জুড়ে নির্বাচনে আরো দু’জন ইলেক্টর নির্বাচন করা হয়ে থাকে৷

পরোক্ষ গণতন্ত্র

মার্কিনিরা তাদের ভোটের মাধ্যমে শুধু নির্ধারণ করছেন, তাদের রাজ্যের বরাদ্দ ইলেক্টররা ইলেক্টোরাল কলেজে কোন প্রার্থীকে ভোট দেবেন৷ ডিসেম্বরের শেষে ইলেক্টররা তাদের নিজের নিজের রাজ্যের রাজধানীতে মিলিত হয়ে ভোট দেবেন; জানুয়ারিতে সেই সব ভোটের ফলাফল কংগ্রেসে পৌঁছাবে৷

যে প্রার্থী ২৭০টি ইলেক্টোরাল ভোট জিতবেন, তিনি প্রেসিডেন্ট হবেন৷ নভেম্বরে জনতার ভোট আর ডিসেম্বরে ইলেক্টোরাল কলেজের ভোট যে সবসময় এক হবে, এমন কথা নেই৷ সেক্ষেত্রে ইলেক্টোরাল ভোটই প্রাধান্য পাবে৷ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে তিনবার এই ঘটনা ঘটেছে৷ শেষবার ছিল ২০০০ সালে, যখন অ্যাল গোর জর্জ ডাব্লিউ বুশের চাইতে বেশি ভেটে পেলেও, বুশ ২৭১টি ইলেক্টোরাল ভোট পেয়ে জয়ী হন৷

‘ব্যাটলগ্রাউন্ড’ বা ‘সুইং’ স্টেট

ক্যালিফর্নিয়ায় ডেমোক্র্যাট প্রার্থী বেশি ভোট পাবেন, বলে ধরে নেওয়া যায়; যেমন টেক্সাসে রিপাবলিকান প্রার্থী বেশি ভোট পাবেন, বলে ধরে নেওয়া যায়৷ কাজেই ঐ দু’টি রাজ্যের সব ইলেক্টোরাল ভোট কোনো না কোনো প্রার্থীর দিকে যাবে৷ তথাকথিত ‘রণক্ষেত্র’ বা ‘দোলনা’ রাজ্যগুলিতে কিন্তু উভয় প্রার্থীই বেশি ভোট পেতে পারেন, যার ফলে সেই রাজ্যের সব ইলেক্টোরাল ভোট তাঁর দিকে যাবে৷ শোনা যাচ্ছে, এবারের সাতটি সুইং স্টেট হল কলোরাডো, ফ্লরিডা, নেভাডা, ওহাইও, ভার্জিনিয়া, আইওয়া ও নিউ হ্যাম্পশায়ার৷

স্পেন্সার কিমবল/এসি

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়