1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

মার্কিন ও দক্ষিণ কোরিয়ার নৌ মহড়ার ঘোষণা

উত্তর ও দক্ষিণ কোরিয়ার মধ্যে গোলা বিনিময়ের পর কোরিয়া উপদ্বীপের পরিস্থিতি উত্তেজনাপূর্ণ৷ কমিউনিস্ট উত্তরকে শক্ত জবাব দেওয়ার কথা বলেছেন দক্ষিণের প্রেসিডেন্ট লি মিয়ুং বাক৷ উত্তরের হামলায় ক্ষুব্ধ অ্যামেরিকা৷ যৌথ মহড়ার ঘোষণা৷

South, Korean, President, Lee Myung-bak, security, meeting, Seoul, South Korea, North Korea, মন্ত্রিসভা, দক্ষিণ কোরিয়া, প্রেসিডেন্ট, লি মিয়ুং বাক

মন্ত্রিসভার বৈঠকে দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট লি মিয়ুং বাক

মঙ্গলবার স্থানীয় সময় দুপুরে উত্তর কোরিয়া গোলা হামলা চালায় দক্ষিণের দ্বীপ ইয়নপিয়ং-এ৷ আর তার জবাব দিতে দক্ষিণও পাল্টা হামলা চালায়৷ এমনটি দাবি করে আসছে সৌল৷ এছাড়া ঐ ঘটনায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে চার৷ বুধবার সেখানে আরো দুই বেসামরিক মানুষের লাশ পাওয়া গেছে৷ নিহতদের মধ্যে দু'জন দক্ষিণ কোরিয়ার নৌসেনা রয়েছে৷

তবে উত্তরের দাবি, বারবার সতর্ক করা সত্ত্বেও দক্ষিণ কোরিয়াই প্রথমে হামলা চালায়৷ অবশ্য দক্ষিণ কোরিয়ার এক সামরিক মুখপাত্র স্বীকার করেছেন যে, উত্তরের হামলার আগে থেকেই ঐ অঞ্চলে সামরিক মহড়া চালাচ্ছিল দক্ষিণের নৌসেনারা৷ তবে তাদের মহড়া উত্তরকে লক্ষ্য করে নয় বরং তা ছিল পশ্চিমমুখী৷ ফলে হামলার জন্য কোন্ পক্ষ দায়ী তা নিয়ে বিতর্ক থাকলেও উদ্ভূত পরিস্থিতির তীব্র নিন্দা জানিয়েছে বিশ্ব সম্প্রদায়৷ কোরিয়া উপদ্বীপে শান্তি ও স্থিতিশীলতা বজায় রাখতে উভয় পক্ষকে সংযত থাকার আহ্বান জানানো হয়েছে৷ বুধবার জাপানের প্রধানমন্ত্রী নাওতো কান চীনের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন, তারা যেন কোরিয়া উপদ্বীপে উত্তেজনা হ্রাসে উত্তর কোরিয়াকে চাপ দেয়৷ এছাড়া দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট লি মিয়ুং বাককেও টেলিফোন করেন কান৷ এসময় তিনি সৌল এবং ওয়াশিংটনের সাথে একযোগে কাজ করার প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করেন৷ এদিকে, চীন বুধবার আবারও উত্তর এবং দক্ষিণ উভয়পক্ষকেই শান্ত এবং সংযত থাকার আহ্বান জানিয়েছে৷

কিন্তু তা সত্ত্বেও পরিস্থিতি খুব একটা সুবিধাজনক নয়৷ কারণ দক্ষিণের প্রেসিডেন্ট লি মিয়ুং বাক পরিস্থিতি বিশ্লেষণে তাৎক্ষণিক মন্ত্রিসভার বৈঠক করেন৷ বৈঠকের পর তিনি হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেছেন যে, উত্তরকে একটি শক্ত জবাব দিতে হবে৷ এদিকে, হোয়াইট হাউসের বিবৃতিতে বলা হয়েছে যে, মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট লি মিয়ুং বাক’কে টেলিফোন করেন বুধবার৷ এসময় তিনি স্পষ্ট করে জানিয়ে দিয়েছেন যে, অ্যামেরিকা দক্ষিণ কোরিয়ার পাশে রয়েছে৷ শুধু তাই নয়, মার্কিন ও দক্ষিণ কোরিয়া যৌথ নৌ মহড়া শুরু করার ঘোষণা দিয়েছে৷ চারদিনের এই মহড়া শুরু হবে রবিবার৷ আর সেজন্য পরমাণু শক্তি সম্পন্ন বিমানবাহী জাহাজ ইউএসএস জর্জ ওয়াশিংটন রওয়ানা দিয়েছে৷ ৭৫ টি যুদ্ধ জাহাজ নিয়ে টোকিওর দক্ষিণাঞ্চলে অবস্থিত মার্কিন নৌঘাঁটি ছেড়েছে এটি৷ এতে রয়েছে ছয় হাজারেরও বেশি নৌসেনা এবং নাবিক৷

কোরিয়ায় মার্কিন সামরিক বাহিনীর বিবৃতিতে অবশ্য বলা হয়েছে যে, গতকালের হামলার পূর্বেই এই মহড়ার পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছিল৷ ঐ অঞ্চলের স্থিতিশীলতা বজায় রাখতে দক্ষিণ কোরিয়া এবং যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিশ্রুতি ও সামর্থ্য প্রদর্শনে এই মহড়ার আয়োজন৷ এমনকি এটা প্রকৃতিগতভাবেই প্রতিরক্ষামূলক বলে বিবৃতিতে উল্লেখ করা হয়৷

প্রতিবেদন: হোসাইন আব্দুল হাই
সম্পাদনা: আব্দুল্লাহ আল-ফারূক

নির্বাচিত প্রতিবেদন