1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

‘মার্কিন অস্ত্র না থাকলে বিশ্ব আরও নিরাপদ হতো’

যুক্তরাষ্ট্র ২০১৪ সালে বিভিন্ন দেশের মানবাধিকার পরিস্থিতি নিয়ে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে৷ এতে বাংলাদেশের মানবাধিকার সমস্যাগুলোর মধ্যে বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড এবং গুমের কথা উল্লেখ করেছে৷

এর পরেই আছে অনলাইনে মত প্রকাশ এবং গণমাধ্যমের উপর কিছু বাধা, নিম্নমানের কর্ম পরিবেশ ও শ্রম অধিকার৷ বৃহস্পতিবার প্রকাশিত এই প্রতিবেদনের শুরুতে বাংলাদেশকে ধর্মনিরপেক্ষ, গণতান্ত্রিক এবং সক্রিয় নাগরিকদের দেশ হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে৷

দৈনিক প্রথম আলো এ বিষয়ে তাদের করা প্রতিবেদনটি ফেসবুকে শেয়ার করলে সেখানে অনেক পাঠক মন্তব্য করেছেন৷ বেশিরভাগ পাঠক প্রতিবেদন প্রকাশকারী দেশ যুক্তরাষ্ট্রের মানবাধিকার পরিস্থিতি নিয়েই মন্তব্য করেছেন৷ সাইফুল মিয়া লিখেছেন, ‘‘অ্যামেরিকাতেই মানবাধিকার নেই৷ সেখানকার মানুষ সবসময় পুলিশের ভয়ে থাকে৷ যুক্তরাষ্ট্রের সরকার পুলিশ দিয়ে কৃষ্ণাঙ্গ মানুষদের হত্যা করছে৷'' খোকন মিয়া লিখেছেন, ‘‘নিজেদের সমস্যা নিয়ে মাথা ঘামান, বাংলাদেশ যুক্তরাষ্ট্রের চেয়েও ভালো আছে!!!'' শেন আকবরের মন্তব্য, ‘‘প্রতিদিন অ্যামেরিকান পুলিশ মানুষ হত্যা করে চলেছে...৷ ওদের বিচারের প্রয়োজন হয় না...৷'' মো: ফারুক লিখেছেন, ‘‘...আগে নিজেরা মানবাধিকার আইন মেনে চল, তারপর অন্যকে নসিহত দিও৷''

শরীফ পারভেজের প্রশ্ন, কে সবচেয়ে বেশি মানবাধিকার লঙ্ঘনকারী? এই প্রশ্নের প্রেক্ষাপট ব্যাখ্যা করতে গিয়ে তিনি লিখেছেন, ‘‘যুক্তরাষ্ট্রের প্রধান ব্যবসা অস্ত্র৷ তারা দেশের ভেতরে সহ সারা বিশ্বের কাছে অস্ত্র বিক্রি করে৷ এ সব অস্ত্র না থাকলে বিশ্বটা আরও নিরাপদ হতে পারত৷''

এদিকে, প্রতিবেদনে বাংলাদেশের সার্বিক প্রশংসা করার জন্য মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী জন কেরিকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন মো: মাহবুবুল আলম৷ তবে যুক্তরাষ্ট্রসহ পশ্চিমা দেশগুলিতে প্রচুর বিচার বর্হিভূত হত্যার ঘটনা ঘটে বলে মন্তব্য করেন তিনি৷

জুনায়েত ইসলাম লিমন মনে করেন, বাংলাদেশের প্রধান মানবাধিকার সমস্যা, বাইরের দেশগুলো বাংলাদেশকে নিজেদের মতো করে থাকতে দেয় না৷ ‘‘এদের কূটচাল না থাকলে ৭১-এর পর দেশ অনেক উন্নতি করতে পারতো,'' বলেও মন্তব্য করেন তিনি৷

সংকলন: জাহিদুল হক

সম্পাদনা: দেবারতি গুহ

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়