1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

‘মামা কাঙ্গা বা কূপ নারী আমাদের রানি’

আফ্রিকার আর দশটা দেশের মতোই নাইজেরিয়ার সমাজটাও বড় বেশি পুরুষতান্ত্রিক৷ তবে সেই পুরুষতান্ত্রিকতার বেড়াজাল ভেদ করে অন্যরকম এক পেশায় নিয়োজিত নাইজেরিয়ার এক নারী৷ আর সেই পেশার কারণেই তাঁর নাম কূপ নারী৷

মেগাসিটি লাগোস এবং এর আশেপাশের এলাকায় বিশুদ্ধ পানির স্বল্পতা যেমন রয়েছে, তেমনি পানির সরবরাহও অনেক কম৷ লাগোসের রাজ্য পানি কর্পোরেশন জানিয়েছে, শহরের ১ কোটি ৮০ লাখ মানুষের প্রতিদিন ৫৪ কোটি গ্যালন পানি প্রয়োজন৷ যেখানে তারা পাচ্ছে মাত্র ২১ কোটি গ্যালন পানি৷ ২০২০ সালে এই পানির চাহিদা দাঁড়াবে দিনে ৭৪ কোটি ৫০ লাখ গ্যালন৷ তখন ঐ শহরের জনসংখ্যা হবে ২ কোটি ৯০ লাখ৷ এ কারণে ট্যাংকার এবং ব্যাক্তিগত কূপের চাহিদা বাড়ছে৷ সেইসাথে স্বাস্থ্য ঝুঁকি কমাতে বিশুদ্ধ পানির চাহিদাও বাড়ছে৷

পানির এই স্বল্পতা রাবিয়ু-র মতো কূপ খননকারীদের ব্যবসার সুযোগ বাড়িয়েছে৷ অথচ রাবিয়ু এই কাজটা শুরু করেন ১৯৯৭ সালে৷

Symbolbild - Verschleierte Frau in Nigeria

কে এই কূপ নারী?

এই কাজটা শিখেছিলেন তার দ্বিতীয় স্বামীর কাছ থেকে৷ এরপর আর পিছু ফিরে তাকাতে হয়নি তাঁকে৷ এখন তিনি পরিচিত মামা কাঙ্গা বা কূপ নারী নামে৷ ৪৬ বছর বয়সি ওলোলাদে রাবিয়ু ছয় সন্তানের জননী৷ আফ্রিকার লাল মাটি খুঁড়ে বিশুদ্ধ পানি বের করে ইতিহাস তৈরি করেছেন তিনি৷ সংবাদ সংস্থা এএফপিকে রাবিয়ু জানান, কূপ খোঁড়ার এই পেশায় একমাত্র নারী হওয়ায় তিনি ভীষণ খুশি৷ রাবিয়ু বলেন, ‘‘আমি এই কাজটা করতে ভালোবাসি এবং উপভোগ করি৷ এমন কোনো কূপ নেই যেখানে আমি প্রবেশ করতে পারি না৷''

তিনি কাজটাকে এভাবে ব্যাখ্যা করেন, ‘‘শুরুটা মোটেও সহজ ছিল না কিন্তু আমি আমার ভয় কাটিয়ে উঠেছি এবং পেশা নির্বাচনে আমার কোনো ভুল হয়নি৷ আমার স্বামী কুয়ো খননের প্রাথমিক বিষয়, যেমন কোথায় পানির স্তর কেমন, পানির গভীরতা, কি কি সমস্যার মুখোমুখি হতে হবে, কি কি যন্ত্রপাতি ব্যবহার করতে হবে এ বিষয়ে ভালোভাবে বোঝান৷ এরপর বিষয়টা আমার কাছে সহজ হয়ে যায়৷''

রাবিয়ুর প্রতিবেশী এবং গ্রাহকরা তাঁর যোগ্যতার প্রশংসা করেন৷ তাঁদেরই একজন বলেন, ‘‘প্রায় সাত বছর আগে তিনি আমার কুয়াটি খনন করেছেন এবং এত ভালোভাবে করেছেন যে এখন পর্যন্ত কোন সমস্যা হয়নি৷ আমার মনে হয় এ বিষয়ে তিনি একজন শিল্পী এবং অন্য অনেক পুরুষের চেয়ে তিনি বেশ দক্ষতার সাথে এটা করেন৷''

রাবিয়ুর এক সন্তান স্পেনে আছেন এবং সেখানে তিনি এই ব্যবসার সাথে জড়িত৷ রাবিয়ু বলেন, কাজটা বেশ বিপদজনক এবং এতে মেরুদণ্ড ভাঙার একটা ভয়ও থাকে৷ তবে নিজের উপর এবং সৃষ্টিকর্তার উপর বিশ্বাস রাখা উচিত৷

রাবিয়ু এই পেশার পাশাপাশি কূপ খননে প্রশিক্ষণও দিচ্ছেন৷ তাঁর কাছে প্রশিক্ষণ নেয়া ইউসুফ মাইনাসারা বললেন, ‘‘মামা কাঙ্গা আমাদের রানি, আমাদের হিরো এবং আমাদের মা৷ আমরা আসলেই তাঁর জন্য গর্বিত৷''

এপিবি/ডিজি (এএফপি, এপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন