1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

মানুষের বসবার ঘরের ছবি তোলেন দোমিনিক নাবোকোভ

ফরাসি আলোকচিত্রশিল্পী দোমিনিক নাবোকভ খ্যাতনামা মানুষজনের বসবার ঘরের ছবি তোলেন – সে ছবিতে আবার সেই বিখ্যাত মানুষজনের কেউই থাকেন না৷ যা থাকে, তা হলো তাদের ব্যক্তিত্বের পরিচয় ও পরশ৷

default

প্রতীকী ছবি

বার্লিনে তাঁর ফ্ল্যাটে আলোকচিত্রশিল্পী দোমিনিক নাবোকভ৷ ফ্রান্সের মানুষ দোমিনিক মানুষজনের ড্রয়িং রুম বা লিভিং রুম, অর্থাৎ বসার ঘরের ছবি তোলেন – তবে আমার-আপনার মতো সাধারণ মানুষদের নয়, নাম করা চিত্রতারকা, শিল্পী ও বুদ্ধিজীবীদের বসার ঘরের ছবি৷ প্রখ্যাত ফরাসি চিত্রাভিনেতা জেরার দেপার্দিউ-এর বাড়িতেও তিনি ছবি তুলেছেন৷

দোমিনিক বলেন, ‘‘আমি বড়াই করতে চাই না, কিন্তু জেরার দিপার্দিউ-এর সঙ্গে আলাপ আমার বোনের মাধ্যমে৷ আমার বোন একজন চিত্রপরিচালক৷ দেপার্দিউ তাঁর বাড়ি নিয়ে আদৌ মাথা ঘামাতেন না৷ আমি যখন তাঁর বসার ঘরের ছবি তুলছি, তখন তাঁর বাড়িতে ফরাসি ভাস্কর ‘রোদাঁ'-কে নিয়ে ছবির শুটিং চলেছে৷ গোটা ঘরটা একটা স্টুডিও ফ্লোরের মতো, চতুর্দিকে ঐ ফিল্মের জন্য তৈরি করা নানা মূর্তি৷’’

নাবোকভ বহু নাম করা মানুষের বাড়িতে ছবি তুলেছেন৷ ওনার ছবি থেকে আন্তর্জাতিক হাই সোসাইটির হু-ইজ-হু-কে জানা যায়৷ তিনি প্যারিসে মিতেরঁ পরিবারের বাড়িতে ছবি তুলেছেন; ফরাসি অভিনেত্রী জান মোরো, কিংবা নিউ ইয়র্কের ভ্যান্ডারবিল্ট শিল্পপতি পরিবারের বাসভবনে ছবি তুলেছেন৷

নিউ ইয়র্ক আর প্যারিসের পরে বার্লিন

তাঁর প্রথম বই ‘নিউ ইয়র্ক লিভিং রুমস’ প্রকাশিত হয় ১৯৯৮ সালে; তার চার বছর বাদে প্রকাশিত হয় ‘প্যারিস লিভিং রুমস'৷ ২০১৪ সাল যাবৎ তিনি বার্লিনের বিভিন্ন বসার ঘর নিয়ে একটি বই-এর কাজে ব্যস্ত৷ আজ তিনি এক বুদ্ধিজীবীর বাড়িতে ছবি তুলছেন, যিনি সারা জীবন ধরে শিল্পকলা আর অ্যান্টিক সংগ্রহ করে আসছেন৷

দোমিনিকের কোনো ছবিতেই তিনি বাড়ির বাসিন্দাদের দেখান না৷ তাঁর মতে, ‘‘কারো বসার ঘরের ছবি তোলার মানে তার সম্পর্কে অনেক কিছু জানতে পারা৷ যেন তার একটা প্রতিকৃতি তোলা৷ কাজেই আমি বহু বছর আগেই ঠিক করেছি যে, আমি সবসময়ে সেলিব্রিটিদের বাদ দিয়ে বাড়ির ছবি তুলব – নয়ত ছবিটাই মাটি হবে৷ একটা ঘর তার বাসিন্দা সম্বন্ধে ঠিক ততটাই বলে, যতটা তার জামাকাপড় থেকে জানতে পারা যায়৷’’

দোমিনিক নাবোকভের সারা দুনিয়ায় অবাধ চলাচল৷ যুক্তরাষ্ট্র আর প্যারিসের মধ্যে তাঁর যাতায়াত; বহু দশক ধরে তাঁর কাজ ‘নিউ ইয়র্কার’, ‘ভোগ’, ‘ভ্যানিটি ফেয়ার’ অথবা ‘ল্য মঁদ’-এর মতো পত্রিকায় প্রকাশিত হচ্ছে৷

ব্যক্তিগত

ফ্যাশন ডিজাইনার ইভ স্যাঁ লোরঁ পরলোকগমন করেন ২০০৮ সালে৷ তার আগে তাঁর লিভিং রুমেরও ছবি তুলেছেন দোমিনিক নাবোকভ৷ স্মৃতিচারণ করলেন: ‘‘আমি ইভ স্যাঁ লোরঁ-র বসার ঘরে কী দেখেছি? বহু জিনিস৷ প্রথমে ধাঁধাঁ লেগে গিয়েছিল৷ যেন কায়রোর কোনো মিউজিয়াম! যেন আমি কোনো ফারাও-র কবরে প্রবেশ করেছি৷ ঐ সুবিশাল ঘরটায় নিজেকে খুব একলা মনে হয়েছিল৷ যদিও আমি জানতাম যে, বাড়ির বাটলার কোথাও দাঁড়িয়ে আমার ওপর নজর রাখছে – অবশ্য আমি তাকে দেখতে পাইনি৷ দু'ঘণ্টা ধরে ওখানে থাকার পর আমি আবার আলোয় বেরোই....জানি না কেন, আমার ঐ ঘরটাতে বেশ ভয়-ভয় করছিল৷ আমার সেটা বলা উচিত নয়, কিন্তু আমি যেন মৃত্যুর আভাস পাচ্ছিলাম৷ অন্তত আমার সেরকম অনুভূতি হচ্ছিল৷’’

আর এখন তিনি বার্লিনে এই বসবার ঘরটিতে বসে আছেন, যেখানে প্রতি পাঁচ মিনিট অন্তর একটি লোকাল ট্রেন জানলার পাশ দিয়ে ঘটাং-ঘটাং শব্দ করে চলে যায়৷

সাশা হেন/এসি

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

সংশ্লিষ্ট বিষয়