1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

মানুষের তৈরি বাধা পেরিয়ে চলেছে হাতিরা

নামিবিয়ার এক প্রত্যন্ত প্রদেশে হাতিরা হেলেদুলে পথ চলেছে ন্যাশনাল হাইওয়ে পার হয়ে৷ মানুষ, পাঁচটি দেশ, সেই পাঁচটি দেশের রাজনীতি, কত বাধা পার হয়ে হাজার হাজার বছরের চেনা পথে হাতিদের পরিভ্রমণ৷

তৃষ্ণা, পিপাসা, তেষ্টা৷ পানির জন্যই হাতির পাল ভোরবেলা নদীতে আসে৷ উত্তর-পূর্ব নামিবিয়ার কোয়ান্ডো নদীতে সবসময় জল থাকে৷ কাজেই তৃষ্ণার্ত গ্রীষ্মের দিনগুলিতে এখানে হাতিদের ভিড়৷ কিন্তু এলাকাটিতে ক্রমেই আরো বেশি মানুষ বসবাস করতে আসছে৷ এরা গরিব চাষি, যারা খেতের ফসলের উপর নির্ভর করে৷ হাতিদের হাত, পা, কিংবা শুঁড় থেকে কীভাবে ভুট্টার ক্ষেত বাঁচানো যায়, তাই নিয়েই রেমন্ড কিটুম্বেকা-র চিন্তা৷ রেমন্ড শোনালেন সে কাহিনি৷ বললেন, ‘‘সাতটা হাতি এসেছিল৷ আমরা আওয়াজ পেয়েই দৌড় লাগিয়েছি, তাদের তাড়ানোর জন্য৷ কিন্তু হাতিরা মানুষকে ভয় পায় না, তারা পালায়ও না৷ বরং খেতের ফসল নষ্ট করে৷ তারপর আমরা জানি না, আমরা কী খেয়ে বাঁচব৷ জীবনের ভয়ও থাকে৷''

তবে রেমন্ড কিটুম্বেকা-কে সাহায্য করার লোক আছে৷ বেনেটি লিকুকেলা নামিবিয়ার একটি পরিবেশ সুরক্ষা সংগঠনের হয়ে কাজ করেন৷ চেষ্টা করেন, হাতি ও মানুষের মধ্যে সংঘাত এড়ানোর৷ অনেক সময় সহজ পন্থাতেই সেটা সম্ভব হয় এমন সব পদার্থ ব্যবহার করে, চাষিরা যা সহজেই পেতে পারেন৷

লঙ্কার ধোঁয়া

আইআরডিএনসি পরিবেশ সুরক্ষা সংগঠনের বেনেটি লিকুকেলা জানালেন, ‘‘আমরা হাতির মলের সঙ্গে লঙ্কা মেশাই৷ এর লক্ষ্য হলো, হাতির পাল হানা দেওয়ার ফলে যে সব চাষিরা তাদের ফসল হারিয়েছেন, সেই সব চাষিদের সাহায্য করা৷ আমরা হাতি তাড়ানোর জন্য লঙ্কা ব্যবহার করি কেননা লঙ্কার ধোঁয়া হাতিদের নাকে আরো বেশি করে লাগে৷ হাতিরা মানুষের তুলনায় এক'শ গুণ বেশি ভালো শুঁকতে পারে কিনা!''

মরিচের ঘুঁটের ধোঁয়ায় নাকমুখ জ্বালা করে, যেন কাঁদানে গ্যাস৷ এখানে এত মানুষ বাস করা সত্ত্বেও হাতিদের জন্য জায়গা থাকবে – এই হলো বেনেটি লিকুকেলা-র লক্ষ্য৷ হাতিরা যে সব পথে হাজার হাজার বছর ধরে পরিভ্রমণ করছে, সেই সব রুটগুলো তাদের ফিরিয়ে দেওয়াই হলো মূল কথা৷ এখন তাদের বেঁচে থাকার মতো পর্যাপ্ত জায়গা রয়েছে৷ এলাকার রেঞ্জাররা নিয়মিতভাবে মুক্ত ‘করিডর'-গুলো ঘুরে দেখেন, হাতিদের গতিবিধির উপর নজর রাখেন আর চাষিদের যাতে বিপদ না ঘটে, সেদিকে খেয়াল রাখেন৷ লিকুলেলা জানালেন, ‘‘হাতিদের পরিভ্রমণের যে পথটি বোটসোয়ানা থেকে জাম্বিয়া আর অ্যাঙ্গোলার দিকে চলে গেছে, আমরা তার উপর দাঁড়িয়ে রয়েছি৷ দুঃখের বিষয়, পথটা ট্রান্স-জামবেজি হাইওয়ের উপর দিয়ে গেছে, যার ফলে হাতি ও মানুষ, উভয়েরই বিপদ ঘটতে পারে৷''

বাধাবিপত্তি

শুধু হাইওয়ে পার হওয়াই নয়, হাতিদের মাইগ্রেটরি রুট বিভিন্ন দেশের সীমান্ত পার হয়ে গেছে৷ কাজা, অর্থাৎ কাভাঙ্গো-জামবেজি সংরক্ষিত এলাকা আয়তনে ফ্রান্সের সমান – পাঁচটি দেশ এর মধ্যে পড়ে৷ রাজনৈতিক প্রতিবন্ধক ছাড়া আরো অনেক বাধাবিপত্তি দূর করতে হয়েছে৷ জাম্বিয়ার পরিবেশ ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের জেমস সাম্বি জানান, ‘‘এখানে একটা বেড়া ছিল৷ বেড়াটা এখান থেকে শুরু হয়ে ডিভুন্ডু অবধি প্রায় দু'শ কিলোমিটার গেছে৷ কাজেই বেড়াটা ৭০ কিলোমিটার সরিয়ে দেওয়া হয়েছে৷''

আনুমানিক দু'লক্ষের বেশি হাতি কাজা সংরক্ষিত এলাকার বাইরে থাকে৷ সারা বছর ধরে তারা শত শত কিলোমিটার পরিভ্রমণ করে – ন্যাশনাল পার্কের বাইরেও৷ তবে সেখানেও আজ তারা মোটামুটি নিরাপদ, কেননা বহু গ্রাম ও এলাকা এই সব বন্য জীবজন্তু থাকার ফলে লাভবান হয়৷ অনেকে তাদের নিজস্ব সুরক্ষিত এলাকা সৃষ্টি করেছে৷ বেনেটি লিকুকেলা এলাকার পৌরপ্রধানদের সঙ্গে যোগাযোগ রেখে চলেন৷ স্থানীয় মোড়লদের উৎসাহের কারণেই হাতিদের দীর্ঘ পরিভ্রমণের পথগুলি খোলা রাখা সম্ভব হয়েছে৷

মানুষ যা মূল্যবান বলে মনে করে, মানুষ তা রক্ষাও করে৷ উত্তর-পূর্ব নামিবিয়ায় পরিবেশ সুরক্ষা এই সহজ নীতিটির উপর ভিত্তি করে৷ শুধু সেই কারণেই হাতিরা তাদের নিজস্ব পথে যেতে পারে, যদিও পথে মানুষের তৈরি কিছু কিছু বাধা পড়তে পারে বৈকি!

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক