1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

পাঠক ভাবনা

মানবপাচার প্রতিবেদনটি ছিল গুরুত্বপূর্ণ

‘মানবপাচার রোধে ভারতের সঙ্গে চুক্তি'৷ এ নিয়ে আপনাদের প্রতিবেদনটি খুব মনোযোগ দিয়ে পড়েছি৷ সত্যিই, অসাধারণ এই প্রতিবেদনটি করায় ডয়চে ভেলেকে ধন্যবাদ জানাই৷'' এই মন্তব্য বগুড়ার নিয়মিত পাঠকবন্ধু এম এ বারিকের৷

প্রতিবেদনটির মাধ্যমে অনেক গুরুত্বপূর্ণ তথ্য উঠে এসেছে, বলেছেন তিনি৷ লিখেছেন, ‘‘মানবপাচার প্রতিরোধে ২০১২ সালে বাংলাদেশ সরকার একটি আইন করে, যাতে সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ড৷ এর আওতায় জেলা পর্যায়ে ট্রাইব্যুনাল গঠন করে মামলা পরিচালনার কথাও বলা হয়৷ ডয়চে ভেলের মাধ্যমে বাংলাদেশ সরকারের প্রতি আমার অনুরোধ যে, এই আইনটিই যেন কার্যকর করা হয়৷ এছাড়া বাংলাদেশের যেসব সীমানা দিয়ে প্রতি বছর অসংখ্য নারী ও শিশু পাচার হয় সেখানে কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা বসানো হোক৷ জাতিসংঘ জনসংখ্যা তহবিলের (ইউএনএফপিএ) তথ্য অনুযায়ী, বাংলাদেশ থেকে প্রতিবছর গড়ে প্রায় ১৫ হাজার মানব পাচার হয়, যাঁদের অধিকাংশই নারী ও শিশু৷ তাদের হিসাব অনুযায়ী, গত ১০ বছরে বাংলাদেশ থেকে তিন লাখের বেশি নারী ও শিশু পাচার হয়েছে ভারতে৷ এ পরিসংখ্যান থেকে খুব সহজেই বোঝা গেল বাংলাদেশের সীমান্ত এলাকা কতটা নিরাপদ৷'''

পরের ই-মেলটিও তিনিই লিখেছেন৷ তাঁর কথায়, ‘‘গতকাল ডয়চে ভেলের বেশ কয়েকটি প্রতিবেদন আমার ভালো লেগেছে৷ যেমন ‘জার্মানির বিখ্যাত রাস্তাগুলো'৷ সেখান থেকে জার্মানির সবচেয়ে পুরনো রাস্তা এবং রাস্তার পাশের ‘ওয়াইন' সংস্কৃতির কিছুটা ধারণা পেলাম৷ এ রাস্তাগুলোর প্রাকৃতিক
সৌন্দর্য পর্যটকদের দৃষ্টি কাড়ে সর্বদাই৷ ৮৫ কিলোমিটার লম্বা জার্মান ওয়াইন স্ট্রিট সম্পর্কে জেনে ভালোই লাগলো৷ ডয়চে ভেলের আর একটি প্রতিবেদনও ছিল বেশ মজার৷ ‘শহরে হঠাৎ বুনো আগন্তুক' – এই প্রতিবেদন থেকে জানতে পারলাম জার্মানদের নাকি বন্য প্রাণী দেখতে সব সময় জঙ্গল বা চিড়িয়াখানায় যেতে হয় না৷ কখনো কখনো হঠাৎ করেই শহরের ঘর-বাড়ি বা অফিসে ঢুকে পড়ে বুনো হরিণ, ভালুক, ষাড়, শূকর, রেকুন কিংবা শিয়াল৷ ছবিঘরে ছিল তেমনই কিছু অনাহূত অতিথির ছবি৷ হঠাৎ করে অফিসে বন্য প্রাণী ঢোকা মানে তো ভয় পাওয়ার কথা৷ যে প্রথমে প্রাণীটিকে দেখবে, সে তো চমকে উঠবেই৷ তাই নয় কি? এমএ বারিক, ভাটরা, সিহালী, শিবগঞ্জ, বগুড়া, বাংলাদেশ৷

- অনেক ধন্যবাদ ভাই বারিক, প্রায় প্রতিদিন আমাদের ওয়েবসাইটের বিভিন্ন প্রতিবেদন সম্পর্কে আপনার মূল্যবান মতামত জানানোর জন্য৷ অন্যান্য পাঠকবন্ধুদের কাছ থেকে আমরা এভাবেই মতামত প্রত্যাশা করছি৷

সংকলন: নুরুননাহার সাত্তার

সম্পাদনা: দেবারতি গুহ

নির্বাচিত প্রতিবেদন