1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বাংলাদেশ

মাথায় বল রেখে বিশ্ব রেকর্ড গড়া বাংলাদেশির হতাশার গল্প

মাথায় বল রাখা অবস্থায় স্কেটিং, সাইকেল চালানো কিংবা সাঁতরানোর মতো নানা কাজে পারদর্শী তিনি৷ গোটা বিশ্ব হতবাক তাঁর এই অসাধারণ নৈপুণ্যে৷ সন্তুষ্ট নিজেও, তবে রয়ে গেছে হতাশা৷

৪১ বছর বয়সি আব্দুল হালিমের বাড়ি মাগুরায়৷ ছোটবেলায় হতে চেয়েছিলেন পেশাদার ফুটবলার৷ সেই চেষ্টায় কমতিও ছিল না৷ কিন্তু ফুটবলার হিসেবে সাফল্য না এলেও এসেছে অন্যত্র৷ মাথায় বল রেখে দিব্যি তিনি পারেন সাইকেল চালাতে, দৌঁড়াতে, এমনকি জুতা বদলাতেও৷ এমনকি বলের উপর দাঁড়িয়ে আরেক বল মাথায় রেখে, দুই হাতে দু'টি বল ঘোরাতেও পারেন তিনি৷ দেখে মনে হবে, বল বুঝি তাঁর মাথায় কেউ আঠা দিয়ে আটকে দিয়েছে৷


বল মাথায় রেখে সব কাজ করার সামর্থ অবশ্য একদিনে অর্জন করেননি আব্দুল হালিম৷ বছরের পর বছর ধরে চর্চা করেছেন৷ এরপর এসেছে সাফল্য, যা ইতোমধ্যে এনে দিয়েছে গিনেস বিশ্ব রেকর্ডের স্বীকৃতি৷ তা-ও একভাবে নয়৷ মাথায় বল নিয়ে সর্বোচ্চ পথ হাঁটার রেকর্ডের পাশাপাশি বল মাথায় রেখে সবচেয়ে দ্রুত গতিতে ১০০ মিটার রোলারস্কেটিংয়ের রেকর্ডও তাঁর৷ নিজের নৈপুণ্যে বাংলাদেশকে এক অন্য উচ্চতায় নিয়ে যাওয়া এই ক্রীড়াবিদের সাফল্যের কথা সম্প্রতি প্রকাশ করেছে ব্রিটেনের ডেইলি মেইল পত্রিকা৷

ডেইলি মেইলকে সাফল্যের কথা জানানোর পাশাপাশি হতাশার কথাও বলেছেন আব্দুল হালিম৷ তিনি মনে করেন, গিনেস বিশ্ব রেকর্ড গড়লেও স্থানীয় মানুষের কাছে তাঁর এই বিশেষ গুণের আলাদা কোনো মূল্য তিনি পাননা৷ বল নিয়ে নানা কসরত দেখিয়ে কিছু অর্থ উপার্জন তিনি করতে পারছেন ঠিকই, কিন্তু পরিবারের চাহিদা পূরণে তা যথেষ্ট নয় বলেই মনে করেন তিনি৷

আব্দুল দুই সন্তানের পিতা৷ একটি সন্তান রোগে ভুগছে, যার চিকিৎসার জন্য দশ লাখ টাকা প্রয়োজন৷ কিন্তু সেই টাকা কোথা থেকে আসবে তিনি জানেন না৷ আব্দুলের আশা, সরকার তাঁর সাফল্যের কথা শুনবে এবং প্রতিভার যথার্থ মূল্য দেবে৷

ডেইলি মেইলকে নিজের এক স্বপ্নের কথাও জানিয়েছেন আব্দুল হালিম৷ সুযোগ পেলে বিশ্ব ভ্রমণে বেরিয়ে হাজার হাজার মানুষের সামনে তাঁর ফুটবল মাথায় রাখার নৈপুণ্য দেখাতে চান তিনি৷ উপযুক্ত সহায়তা পেলে সেটা সম্ভব মনে করেন আব্দুল হালিম৷

এআই/এসিবি

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়