1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

মাটির নীচে লাফালাফির বিশেষ আয়োজন

মাটির নীচে ‘ট্র্যাম্পোলিন’, মানে লাফালাফির ব্যবস্থা! ভাবতে অবাক লাগলেও ওয়েলসে রয়েছে এমন ব্যবস্থা৷ শুধু লাফালাফি কেন, শত কিলোমিটার গতিতে ওড়ার ব্যবস্থাও আছে সেখানে৷

স্নোডোনিয়া জাতীয় পার্কের কাছে ওয়েলসের উত্তরের অঞ্চলে ছবির মতো সুন্দর গ্রাম, পাহাড় আর উপত্যকার দেখা মেলে৷ অনেক পর্যটক যান সেখানে৷ তবে শুধু মাটির উপরের নয়, নীচের দৃশ্য দেখতেও৷ সেখানে পরিত্যক্ত এক খনির মধ্যে রয়েছে বিশ্বের সবচেয়ে বড় ভূগর্ভস্থ ‘ট্র্যাম্পোলিন'৷

খনির ভেতরে ভিন্ন ভিন্ন স্তরে তিনটি ট্র্যাম্পোলিন রয়েছে৷ গুহাটি ৬০ মিটার লম্বা এবং ৩৫ মিটার উঁচু৷ ফানস্পোর্টের জন্য বিখ্যাত স্থানীয় কোম্পানি জিপ ওয়ার্ল্ড এটি পরিচালনা করছে৷ কোম্পানিটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক শন টেলর বলেন, ‘‘আমাদের কোম্পানির সঙ্গে সম্পর্কিত অনেক মানুষ, বিশেষ করে আমাদের বন্ধুরা এই আইডিয়া বের করেছে৷ আমরা অনন্য কিছু একটা চেয়েছিলাম, যা এখানে পেয়েছি৷ এটা পৃথিবীর প্রথম এ ধরনের পার্ক৷''

শত বছর আগে স্লেট খনিটিতে সতের হাজার শ্রমিক কাজ করতেন৷ শিল্পায়ন এবং নতুন সামগ্রীর আবির্ভাবের কারণে একসময় এর প্রয়োজন ফুরিয়ে যায়৷ পরিত্যক্ত খনিটি খেলার জায়গায় পরিণত করতে ছয় মাসের মতো সময় লেগেছে৷ ৩০০ টন আবর্জনা সরাতে হয়েছে৷ এমনকি একটি লেকও ভরাট করা হয়েছে৷

তবে জিপ ওয়ার্ল্ড অ্যাডভেঞ্চার হিসেবে শুধু ট্র্যাম্পোলিন গুহাই অফার করছে না৷ বছর খানেক আগে গুহাটির কাছে জিপ লাইন চালু করেছে কোম্পানিটি৷ ১,৭৫০ মিটার লম্বা এই লাইন ধরে একশো কিলোমিটার গতিতে উড়ে যাওয়া যায়৷ দর্শনার্থীরা বিষয়টি বেশ উপভোগ করেন৷ প্রতিষ্ঠানটি এ রকম আরো এক প্রকল্প নিয়ে কাজ করছে৷

শন টেলর বলেন, ‘‘এটা টপ সিক্রটে প্রকল্প৷ আপনিই প্রথম যাকে বলছি৷ আমরা ওটার নাম দিয়েছি ‘জিপ বিলো'৷ এক্ষেত্রে দর্শনার্থীরা এক অ্যানিমেটেড দুনিয়ার মধ্যে জিপ করবেন৷ আগুন, ঝর্না, বরফখণ্ড কিংবা পাথরের পাশ কাটিয়ে ছুটে চলার মতো ব্যাপার৷ সব মিলিয়ে দেড় ঘণ্টার যাত্রা৷''

এ সব উদ্যোগের মাধ্যমে ওয়েলসের উত্তরে আরো পর্যটক আনতে চান টেলর ও তাঁর সহকর্মীরা৷ ভূগর্ভস্থ ট্র্যাম্পোলিন কাজটা ভালোভাবেই করছে৷ ছোট-বড় সবার পছন্দ এই খেলা৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক