1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

পাঠক ভাবনা

‘মাংসের ফ্লেভার যুক্ত ট্যাবলেট চাই'

প্রাণীহত্যা না করেও যে মাংস খাওয়া সম্ভব তারই চেষ্টা করেছেন বিজ্ঞানীরা এবং খানিকটা সফলও হয়েছেন এরই মধ্যে৷ এ বিষয়ে লেখা প্রতিবেদনটি পড়ে প্রাণী হত্যার পক্ষে-বিপক্ষে ডিডাব্লিউ-র পাঠকদের নানা মন্তব্য উঠে এসেছে ফেসবুক পাতায়৷

গরুর মাংসের ভক্ত মসরুর আহমেদ নিজে যেমন ভালোবাসেন মাংস খেতে, তেমনি অন্যদেরও খাওয়ায় উৎসাহ দিয়েছেন৷ তার ভাষায়, ‘‘আমি কিন্তু গরুর মাংস খুবই ভালো পাই, ডাক্তার আমাকে অ্যালার্জির জন্য না করেছিল, কিন্তু জিব্বার লোভ কি সামলানো যায়, যাই হোক গরুর মাংসের মজাই আলাদা, সবাই গরুর মাংস খাবেন৷''

রোমিও রাজকুমারের অনেকটা এরকমই মত, কারণ তিনিও যে মাংসপ্রেমী৷

তবে কামরুল হাসানের মতে বিজ্ঞানীদের এই চিন্তাটি খুবই উন্নত, তিনি আশাবাদী৷

মনে হয় মাংস খেতে ভালোবাসেন পাঠকবন্ধু ইবনে আল আরাফাতও৷ তার মন্তব্য এই পাগলারা (বিজ্ঞানীরা) যা বলবে তাই আমাদের মানতে হবে???

প্রাণীহত্যা না করেও যে মাংস খাওয়া সম্ভব তারই চেষ্টা করছেন বিজ্ঞানীরা৷ তবে প্রতিবেদনটি পড়ে কিন্তু আগন্তুক অগ্রপথিক রসিকতাই করেছেন৷ তার মন্তব্য, ‘‘শাক-সবজি হত্যার ব্যাপারে কিছু করবেন না? তাদের কি প্রাণ নেই.....৷''

বন্ধু জাকারিয়ার মতে জীবিত প্রাণীর গোশত খাওয়া হারাম৷ পাঠক তুহিনেরও মত অনেকটা এরকমই৷ মিরাজ হোসেন, নজরুল ইসলাম, স্নেহা জাহান নাসিমা – এরা সকলেই এই একই মত পোষণ করেন৷

মামুন হাসান বলছেন এসব নাকি বিজ্ঞানীদের ব্যর্থ প্রচেষ্টা৷

শিব শঙ্কর ব্রহ্ম বিজ্ঞানীদের সমর্থন করে জানিয়েছেন, ‘‘ইতিবাচক মনোভাবই কিন্তু ইতিবাচক ফলাফল আনে'' কাজেই তিনি এগিয়ে যেতে পরামর্শ দিয়েছেন৷

মামুন হাসান তো এটাকে উদ্ভট চিন্তাভাবনা বলে উড়িয়ে দিয়েছেন৷ শাজাহান তালুকদার বলছেন, সৌদিরা নাকি এভাবেই খায়৷

আবদুল্লাহেল ফরিদ মনে হয় খুবই মজা পেয়েছেন ফেসবুরকে প্রতিবেদনটি পড়ে৷ তিনি বিজ্ঞানীদের লক্ষ্য করে রসিকতা করেছেন, ‘‘মাংসের ফ্লেভার যুক্ত ট্যাবলেট বের করুন আর এক পাতিল সবজিতে যেন একটা ট্যাবলেট ফেলে দিলেই কাজ হয়!''

সংকলন: নুরুননাহার সাত্তার

সম্পাদনা: সঞ্জীব বর্মন

নির্বাচিত প্রতিবেদন