1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

মহাশূন্যে প্রাণের অনুসন্ধান

কাজটা অনেকটা খড়ের গাদায় ছুঁচ খোঁজার মতো! কিন্তু ভূপৃষ্ঠে বসেই যদি দূর দূর গ্রহে প্রাণের খোঁজ করা যায় – স্রেফ স্পেকট্রোস্কোপির সাহায্যে? হাইডেলব্যার্গে ভারতীয় গবেষক সিদ্ধার্থ হেগড়ে ঠিক সেই কাজই করছেন৷

হাইডেলব্যার্গের মাক্স প্ল্যাঙ্ক ইনস্টিটিউট ফর অ্যাস্ট্রোনমি-র‘জ্যোতির্বিজ্ঞান ভবন'৷ ভারতীয় গবেষক এবং অ্যাস্ট্রোবায়োলজিস্ট সিদ্ধার্থ হেগড়ে মহাশূন্যে প্রাণের চিহ্ন অনুসন্ধান করার একটি পন্থা উদ্ভাবন করেছেন৷ হেগড়ের পন্থায় ভবিষ্যতে ঠিক সেই সব গ্রহে মহাকাশ যান পাঠানো হবে, যেখানে হেগড়ের পন্থা অনুসরণ করে কৌতূহলোদ্দীপক কিছু একটা পাওয়া গিয়েছে৷

হেগড়ে মহাশূন্যের বিভিন্ন গ্রহের উপর নজর রাখেন৷ তাঁর এই পর্যবেক্ষণ থেকে নানা গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পাওয়া যায়৷ তিনি বলেন, ‘‘আমরা নক্ষত্র থেকে আলো সংগ্রহ করে স্পেকট্রোস্কোপি দিয়ে তার বর্ণালী বিশ্লেষণ করি৷ বর্ণালীর রংগুলি পরস্পরের সঙ্গে মিলিয়ে দেখি৷ তারাটি কী ধরনের গ্যাস দিয়ে তৈরি, এ ভাবে আমরা তার হদিশ পাই৷ সেই তথ্য দিয়ে আমরা বিভিন্ন গ্রহের আবহমণ্ডল সম্পর্কে জানতে পারি৷''

আমাদের এই পৃথিবী মিল্কি ওয়ে ছায়াপথের অংশ৷ কিন্তু ছায়াপথে কোটি কোটি অন্যান্য নক্ষত্র রয়েছে৷ এছাড়া সব গ্রহকে নিয়ে গবেষণা করা হয়নি; কাজেই তাদের সম্বন্ধে বিশেষ কিছু বলা সম্ভব নয়৷ সিদ্ধার্থ বলেন, ‘‘আমরা যদি অন্য কোনো গ্রহে প্রাণের সন্ধান পাই, এমনকি অতি সাধারণ জীবাণু অথবা কোষও যদি খুঁজে পাওয়া যায়, তাহলে সেটাই হবে একটা বিরাট অর্জন৷ সেভাবে আমার জানতে পারব যে, বিশ্বব্রহ্মাণ্ডে আমরা একা নই৷''

স্পেনের রিও টিন্টো নদী, চিলি-র আটাকামা মরুভূমি কিংবা যুক্তরাষ্ট্রের ইয়েলোস্টোন ন্যাশনাল পার্ক: এগুলি হল মানুষ কিংবা প্রাণীর জীবনধারণের পক্ষে অতি কঠিন ঠাঁই৷ এখানকার পরিবেশ হয় অতি গরম, নয়তো অতি বিষাক্ত – কিন্তু কিছু ব্যাকটেরিয়া এখানেও বেঁচে থাকতে পারে৷ সিদ্ধার্থ বলেন, ‘‘জীবন কীভাবে শুরু হয়েছে, আমরা জানি না৷ কিন্তু আমরা জানি যে, বহু প্রাণী এ সব জায়গায় প্রতিকূল পরিবেশে বেঁচে থাকতে পারে – যেমন উচ্চ তাপমাত্রা, অম্ল কিংবা ক্ষার অথবা তেজস্ক্রিয়তা সহ্য করে৷ কিন্তু এ সব কিছু কীভাবে শুরু হয়েছে, তা আমরা জানি না৷''

একটি মহাকাশ অভিযানের ব্যয় কম নয়৷ মহাকাশে প্রাণের অনুসন্ধান করার এই ল্যাবোরেটরি প্রক্রিয়া সেই ব্যয় কমাতে সাহায্য করে: যেখানে প্রাণ নেই কিংবা ছিল না, সেখানে প্রাণের সন্ধান করে অর্থের অপচয় হয় না৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক