1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

মহাকাশ সংক্রান্ত তথ্য সংরক্ষণের অভিনব উদ্যোগ

মহাকাশের রহস্য জানতে কে না চায়? আধুনিক প্রযুক্তির কল্যাণে জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা নিত্য-নতুন তথ্য পেলেও তা সংরক্ষণ ও প্রয়োজনে তার নাগাল পেতে হিমশিম খেতে হয় তাঁদের৷ এক জার্মান বিজ্ঞানী সেই সমস্যা সমাধানের চেষ্টা করছেন৷

তথ্য প্রযুক্তি ও বিজ্ঞানের মধ্যে সৃজনশীলভাবে সমন্বয় সাধন করতে হাইডেলব্যার্গ ইন্সটিটিউট ফর থিওরেটিকাল স্টাজিস বা ‘হিটস' গড়ে তোলা হয়েছিল৷ সেখানকার গবেষক কাই পলস্টারার নিজের অভিজ্ঞতার কথা জানালেন৷ তিনি বলেন, ‘‘এখানে বিজ্ঞানের ক্ষেত্রে পছন্দমতো কাজ করার, নিজের প্রকল্পের পরিকল্পনা করার যে স্বাধীনতা রয়েছে, তা সত্যি অনবদ্য৷ অন্য কোথাও এমন সুযোগ পাওয়া কঠিন৷ নিজের আগ্রহ, গবেষণার বিষয়, তার পরিকল্পনা – সবই নিজের হাতে৷''

কাই পলস্টারার জ্যোতার্বিজ্ঞানীদের তথ্য সংরক্ষণের কাজ সহজ ও আরও কার্যকর করে তুলতে চান৷ এই লক্ষ্যে তিনি ‘অ্যাস্ট্রো কম্পিউটার সাইন্স' নামের একটি ক্ষেত্র গড়ে তুলছেন৷ মহাকাশের অনেক ছবির নাগাল পাওয়া কঠিন৷ বিভিন্ন মানমন্দিরের আর্কাইভে সে সব পড়ে থাকে৷ যেমন একশো বছরেরও বেশি পুরানো অ্যান্ড্রোমিডা গ্যালাক্সির এক ফটো-প্লেট৷ জ্যোতির্বিজ্ঞানীদের কাছে এটা গুপ্তধনের মতো৷ এই কাচ ভেঙে গেলে অমূল্য তথ্য চিরকালের জন্য হারিয়ে যাবে৷ কাই পলস্টারার তাই এই সব ছবির ডিজিটাল সংস্করণ তৈরি করে সবার নাগালে আনতে চান৷

আগামী কয়েক বছরে জ্যোতির্বিদ্যা সংক্রান্ত তথ্যের পরিমাণ বিশাল মাত্রায় বেড়ে যাবে৷ টেলিস্কোপগুলির ক্ষমতা আরও বাড়তে থাকবে৷ চলতি দশকের শেষে চিলি-তে মার্কিন লার্জ সিনপটিক সার্ভে টেলিস্কোপ কাজ শুরু করবে৷ মাত্র তিন রাতেই এই টেলিস্কোপ গোটা আকাশের ছবি তুলতে পারবে৷ শুধু এই একটি টেলিস্কোপ প্রতি রাতে ৬০ টেরা বাইট পরিমাণ তথ্য সৃষ্টি করবে৷ ড.কাই পলস্টারার বলেন, ‘‘ভেবে দেখুন, প্রতি রাতে ৬০ মিটার উঁচু ডিভিডি-র স্তূপ তৈরি হচ্ছে৷ অর্থাৎ বিশাল পরিমাণ ডাটা৷ আর পুরানো পাঞ্চ কার্ডের হিসেবে প্রতি রাতে বিশাল কন্টেনার জাহাজ ভরে যাবে৷ পুরোটাই তথ্য সংরক্ষণের জন্য৷ এর অর্থ হলো, আমাদেরই তৈরি ডাটার ভার আমরা আর সামলাতে পারছি না৷''

কাই পলস্টারার তাই এমন কম্পিউটার প্রোগ্রাম তৈরি করতে চান, যার সাহায্যে অনেকগুলি আর্কাইভের মধ্যে সুনির্দিষ্টভাবে কোনো মহাজাগতিক বস্তুর খোঁজ চালানো যাবে৷ কাজে লাগানো হবে এমন সফটওয়্যার, যা মানুষের সাহায্য ছাড়াই আরও বুদ্ধিমান হয়ে উঠতে পারে৷ ড. পলস্টারার বলেন, ‘‘যন্ত্রের শিক্ষাগ্রহণ অনেকটা ছোট শিশুদের সঙ্গে খেলার মতো৷ আমার ছোট মেয়ের সঙ্গে যখন বিল্ডিং ব্লক তৈরির খেলা খেলি, তখন তাকে বলি না – যাও এমন দেখতে, এমন রংয়ের বা এমন আকারের একটা ব্লকের টুকরো নিয়ে এসো৷ একই রকম দেখতে একটা ব্লক দেখিয়ে তাকে বলি, এমন ব্লক খুঁজছি৷ তখন সে বেশ তাড়াতাড়ি সেটা খুঁজে পায়৷''

যে সব জ্যোতির্বিজ্ঞানী বিশ্বব্রহ্মাণ্ডের বিবর্তন প্রক্রিয়া কম্পিউটারে ফুটিয়ে তুলতে চান, তাদের জন্য এটা বেশ গুরুত্বপূর্ণ৷ মহাকাশের ছবির সঙ্গে তাঁদের মডেল মিলিয়ে দেখতে হয়৷ আর্কাইভে নতুন বা বিরল কোনো মহাজাগতিক বস্তু পেলে মডেলেও পরিবর্তন করা যাবে৷ ড. পলস্টারার বলেন, ‘‘বড় ক্যাটালগ ঘাঁটতে গেলে বা তা বিশ্লেষণ করতে গেলে কম্পিউটার আমাদের বুদ্ধিমান অ্যাসিস্টেন্টের মতো সাহায্য করবে, সেটাই তো চাই৷ যান্ত্রিক, একঘেয়ে কাজ তাকেই করতে হবে৷''

কাই পলস্টারার এই সব ডাটার থ্রিডি সিমুলেশনের স্বপ্ন দেখছেন৷ গ্যালাক্সি বা ছায়াপথের ত্রিমাত্রিক প্রতিচ্ছবি তাদের বিবর্তন বুঝতে অনেক বেশি সাহায্য করবে৷ ফলে বিশ্বব্রহ্মাণ্ড সম্পর্কে আরও নতুন জ্ঞান আহরণ করা সম্ভব হবে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

সংশ্লিষ্ট বিষয়