1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

মহাকাশে চুল ধোয়ার মহড়া দিতে চেয়েছিলেন ইয়েলেনা

নারী অধিকারের প্রশ্নে সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়ন সহ কমিউনিস্ট দেশগুলির একটা সুনাম ছিল৷ অথচ আজকের রাশিয়ায় দীর্ঘ ১৭ বছর ধরে কোনো নারী মহাকাশচারী দেখা যায়নি৷ অবশেষে ইয়েলেনা সেরোভা সেই ‘ঐতিহ্য’ ভাঙতে চলেছেন৷

Russland Kosmonautin Valentina Tereschkowa

ভালেন্টিনা টেরেশকভা (ফাইল ফটো)

নিজের হেয়ারস্টাইল, শিশুকন্যার ভবিষ্যৎ – এমন সব বিষয়ের ব্যাখ্যা দিতে হয়েছে ৩৮ বছর বয়স্ক মহাকাশ বিজ্ঞানী ইয়েলেনাকে৷ কারণ তিনি একজন নারী৷ গত প্রায় সাত বছর ধরে মহাকাশ যাত্রার অনুশীলন করে চলেছেন তিনি৷ স্বামীও প্রাক্তন ‘ট্রেনি কসমোনট'৷ তাঁদের কন্যাসন্তানের বয়স ১১৷ প্রশ্ন উঠেছে, সে কি মা-কে ছেড়ে এতদিন থাকতে পারবে? মহাকাশে গেলে তাঁর লম্বা কালো চুল কীভাবে ধোবেন, তাও ‘ডেমনস্ট্রেট' করতে প্রস্তুত ছিলেন ইয়েলেনা৷ শুধু মুচকি হেসে বলেছিলেন, ‘‘আপনারা আমার সহকর্মী পুরুষ কসমোনটের হেয়ারস্টাইল নিয়ে আগ্রহী নন?''

অথচ সোভিয়েত ইউনিয়নই ১৯৬৩ সালে প্রথম নারীকে মহাকাশে পাঠিয়েছিল৷ ফলে ভালেন্টিনা টেরেশকভা গোটা বিশ্বে বিখ্যাত হয়ে পড়েন৷ কিন্তু তার পরে মাত্র দু'জন নারী এই গৌরব অর্জন করতে পেরেছেন৷ ইয়েলেনা চতুর্থ নারী, যিনি এই সুযোগ পাচ্ছেন৷

শুধু পৃথিবীতে নয়, মহাকাশেও পুরুষদের একচেটিয়া আধিপত্যের পেছনে নানা যুক্তি দেখানো হয়েছে৷ বলা হয়েছে, মহাকাশে যেতে হলে ও সেখানে কাজ করতে গেলে পেশিশক্তির প্রয়োজন৷ দৈহিক বল ছাড়া চলবে না৷ ‘অবলা নারী'-রা সেখানে আর কী করবে! তার উপর সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়নে সামরিক বাহিনীই মহাকাশ যাত্রার নিয়ন্ত্রণ করতো৷

রাশিয়ার ‘স্পেস নিউজ' পত্রিকার সম্পাদক ইগর মারিনিন সংবাদ সংস্থা এএফপি-র সঙ্গে সাক্ষাৎকারে এই মানসিকতার বিষয়টি সম্পর্কে আরও কিছু মন্তব্য করেছেন৷ তাঁর মতে, রাশিয়ার ভাবমূর্তির স্বার্থে মহাকাশে নারীদের প্রতি বৈষম্যের সময় শেষ করার সময় এসে গেছে৷ রুশ মহাকাশ সংস্থার প্রধান নিজে ইয়েলেনা সেরোভা-কে বাছাই করেছেন৷ তবে আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশন আইএসএস-এও নারী-পুরুষের ভারসাম্য নেই৷ ইগর আরও বলেন, প্রায় ছয় মাস ধরে সেখানে পাঁচজন পুরুষ ছোট জায়গায় এক আকর্ষণীয় নারীর সঙ্গে সময় কাটাবেন – এটা চিন্তার বিষয় বৈকি৷

এসবি/ডিজি (এএফপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন