1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিজ্ঞান পরিবেশ

মস্তিষ্কের চাপ কমাতে কৃত্রিম কোমা

ফর্মুলা ওয়ানের জীবন্ত কিংবদন্তি মিশায়েল শুমাখার মস্তিষ্কে আঘাত পেয়ে কোমায় আছেন গত এক মাস যাবত৷ ফ্রেঞ্চ আল্পসে স্কি করতে গিয়ে মাথায় ভয়ংকর আঘাত পান তিনি৷ তবে এখন তাঁকে সেই ‘গভীর ঘুম’ থেকে জাগিয়ে তোলার প্রক্রিয়ায় চলছে৷

ফ্রান্সের গ্রেনবেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন শুমাখারকে যে ওষুধ দিয়ে ঘুম পাড়িয়ে রাখা হয়েছিল, সেটা বন্ধ করা হয়েছে যাতে ধীরে ধীরে তিনি জেগে ওঠেন৷ সংবাদমাধ্যমে এ কথা প্রকাশ হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে স্বস্তির নিশ্বাস ফেলেছেন শুমির হাজারো ভক্ত৷ তবে এতে দীর্ঘ সময় লাগতে পারে বলে জানিয়েছেন শুমাখারের ম্যানেজার সাবিনে কেম৷ তাই প্রশ্ন উঠেছে কৃত্রিম কোমার প্রক্রিয়াটিকে নিয়ে৷

প্রশ্ন হলো: কী এই কৃত্রিম কোমা?

Michael Schumacher Porträt

কৃত্রিম কোমায় আছেন শুমাখার

অ্যানেস্থেসিয়া দিয়ে দীর্ঘ সময়ের জন্য ঘুম পাড়িয়ে রাখাকে কৃত্রিম কোমা বলা হয়৷ মারাত্মক দুর্ঘটনা বা কঠিন কোনো অপারেশনের পর, ডাক্তাররা নিরাময় প্রক্রিয়াকে ত্বরান্বিত করার জন্য দীর্ঘস্থায়ী ঘুমে পাঠিয়ে দেন রোগীকে৷

মস্তিষ্কে আঘাত লাগা মারাত্মক হতে পারে

অনেক সময় ভীষণভাবে হোঁচট খেলে বা পড়ে গেলে মস্তিষ্কে প্রচণ্ড লাগতে পারে, ফুলেও যেতে পারে৷ হাঁটু কিংবা হাতে চোট লাগলে ফোলাটা চারিদিকে ছড়িয়ে পড়তে পারে৷ কিন্তু মস্তিষ্ক হাড় দিয়ে ঘেরা৷ তাই এর ভেতরে চাপটাও বেশি হয়৷ এই অবস্থা জীবন বিপন্নকারী৷ এমনটা হলে চাপ কমানোটা অত্যন্ত জরুরি৷ এ জন্য রোগীর দেহের তাপ ৩২ থেকে ৩৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস নামানো হয়৷ এতে শরীরের মেটাবলিজম প্রক্রিয়ায় চাপ কমে৷ অক্সিজেনের ব্যবহার কম হয়৷ এই সব করা না হলে স্নায়ুকোষ মরে যেতে পারে এবং স্থায়ী ক্ষতিও হতে পারে৷

বিশ্রাম নিতে দেওয়া হয়

এই সময় শরীরকে যতদূর সম্ভব বিশ্রাম নিতে দেওয়া হয়৷ নিবিড় পর্যবেক্ষণে থাকলে শরীর অনেক কাজ করা থেকে অব্যাহতি পায়৷ নিশ্বাস-প্রশ্বাসের দায়িত্ব নেয় একটি যন্ত্র৷ হার্টবিট ও উচ্চরক্তচাপের দিকে সর্বদা লক্ষ্য রাখা হয়৷ রোগীকে স্টমাক টিউব কিংবা সেলাইন দিয়ে খাওয়ানো হয়৷

কৃত্রিম কোমার মাধ্যমে কঠিন আঘাতের ফলে হওয়া ‘স্ট্রেস' থেকে সম্পূর্ণ মুক্ত থাকে রোগী৷ দীর্ঘস্থায়ী অ্যানেস্থিয়ার ফলে ভুক্তভোগীদের ব্যথার অনুভূতি হয় না৷ কারণ ওষুধ দিয়ে ব্যথা-বেদনার অনুভূতি অপসারিত করা হয়৷

রোগীকে কতদিন কৃত্রিম কোমায় রাখা দরকার, তা নির্ভর করে আঘাত কতটা গুরুতর তার ওপর৷ কারো কারো ক্ষেত্রে কয়েকদিনেই সঙিন অবস্থাটা পার করা যায়৷ আবার কোনো কোনো রোগীকে কয়েক সপ্তাহ অচেতন অবস্থায় নিবিড় পর্যবেক্ষণে রেখে দিতে হয়৷

পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার ঝুঁকিও থাকে

অন্যদিকে অচেতন অবস্থা দীর্ঘায়িত হতে থাকলে পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার ঝুঁকিও বেড়ে যায়৷ থ্রম্বোসিস বা রক্তনালীতে রক্ত জমাট বেঁধে যেতে পারে৷ ফুসফুসের সংক্রমণ, কার্ডিওভাসকুলারের সমস্যা, পেশি ও ইমিউন সিস্টেমে দুর্বলতা ইত্যাদি দেখা দিতে পারে৷ এজন্য রোগীকে প্রয়োজনের বেশি অচেতন অবস্থায় রাখতে চান না চিকিৎসকরা৷ মস্তিষ্কের চাপ তেমন সংকটপূর্ণ না হলে রোগীকে কৃত্রিম কোমা থেকে জাগিয়ে তোলা হয়৷ অ্যানেস্থেসিয়া ও ব্যথার ওষুধ ধীরে ধীরে কমিয়ে দেওয়া হয়৷ আর শরীরও ধীরে ধীরে নিশ্বাস-প্রশ্বাসের মতো কার্যক্রম নিজের হাতে তুলে নেয়৷

রোগীরা অবশ্য এতদিন পর জেগে উঠে অনেক কিছুই স্মরণ করতে পারেন না৷ অনেক সময় বিভ্রান্ত ও আক্রমণাত্মকও হয়ে ওঠেন তাঁরা৷ স্থায়ীভাবে মস্তিষ্কের ক্ষতি হয়েছে কিনা, সেটা নির্ধারণ করা যায় রোগী কৃত্রিম কোমা থেকে জেগে উঠলে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন