1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিজ্ঞান পরিবেশ

মশা মারতে আর কামান দাগার প্রয়োজন নেই

মশার হাত থেকে বাঁচার অনেক উপায় আছে৷ নোংরা জলাশয় পরিষ্কার আর কীটনাশকের ব্যবহার গরীব দেশগুলোতে বেশ জনপ্রিয়৷ কিন্তু তারপরও রেহাই হচ্ছে না সেসব দেশের মানুষের৷ এরই মধ্যে আরেকটা পন্থা নিয়ে হাজির হয়েছেন জিন বিজ্ঞানীরা৷

default

ফাইল ফটো

ম্যালেরিয়া আর ডেঙ্গুর অত্যাচারে অতিষ্ঠ গরীব দেশের মানুষ৷ বিশেষ করে শিশুরা৷ প্রতিবছর শুধু সাব-সাহারা আফ্রিকা অঞ্চলেই ১০ লক্ষেরও বেশি শিশু মারা যাচ্ছে ম্যালেরিয়ায়৷

এই পরিস্থিতি থেকে উত্তরণে নতুন একটা উপায়ের কথা জানালেন জিন বিজ্ঞানীরা৷ তারা এর নাম দিয়েছেন ‘সিমেলে'৷ গ্রীক পুরাণে সিমেলে নামে এক নারীর কথা শোনা যায়, যার নামে রাখা হয়েছে নামটি৷

পদ্ধতিটি এরকম – একটি পুরুষ মশার জিনে বিষাক্ত পদার্থ ঢুকিয়ে দেয়া হবে৷ শুক্রাণুর মাধ্যমে সেটা চলে যাবে নারী মশার দেহে৷ ফলে সেই নারী মশা ডিম পাড়ার ক্ষমতা হারিয়ে ফেলবে৷ তবে নারী মশার দেহেও আগে থেকেই বিষ প্রতিরোধক একটি জিন ঢুকিয়ে রাখা হবে৷ ফলে তার মারা যাওয়ার আশঙ্কা থাকবে না৷

এই গবেষণার সঙ্গে জড়িত ছিলেন ড. জন মার্শাল৷ তিনি লন্ডনের ইম্পেরিয়াল কলেজের গবেষক৷ তিনি বলেন, তাদের উদ্ভাবিত পদ্ধতি কীটনাশকের বিকল্প হিসেবে কাজ করবে, সে দাবি তিনি করছেন না৷ বরং বিকল্প উপায় হিসেবে একে ব্যবহার করা যেতে পারে বলে মনে করেন মার্শাল৷

তিনি বলেন, যদি মশা নিধনের জন্য আগে থেকেই প্রচলিত থাকা উপায়গুলোর সঙ্গে তাদের পন্থাও কাজে লাগানো যায় তাহলে ম্যালেরিয়ার বিরুদ্ধে একটা শক্ত প্রতিরোধ গড়ে তোলা সম্ভব হবে৷

‘জেনেটিক্স' জার্নালের চলতি সংখ্যায় গবেষণাটি প্রকাশিত হয়েছে৷

ম্যালেরিয়া নিয়ে জিন বিজ্ঞানীরা অবশ্য এর আগেও কাজ করেছেন৷ যেমন ব্রিটেনের বিজ্ঞানীরা জেনেটিক্যালি মডিফাইড বা জিএম মশা সৃষ্টি করেছেন৷ এর ফলে কোনো পুরুষ জিএম মশার সঙ্গে মিলনের পর স্ত্রী মশা ডিম পাড়ার ক্ষমতা হারিয়ে ফেলে৷

পরীক্ষাগারে এই বিষয়ে সাফল্য লাভের পর গত বছর একটি দ্বীপে কয়েক লাখ জিএম মশা ছাড়েন বিজ্ঞানীরা৷ পরে দেখা যায়, ঐ দ্বীপে মশার সংখ্যা আগের চেয়ে ৮০ শতাংশ কমে গেছে৷ এ বছরই বিশ্বের আরো পাঁচটি দেশে এ ধরনের পরীক্ষা চালানোর কথা৷

প্রতিবেদন: জাহিদুল হক

সম্পাদনা: সঞ্জীব বর্মন