1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

মধ্যম আয়ের দেশ হলেও আয় বৈষম্য এখনও কমেনি

বাংলাদেশ এখন মধ্যম আয়ের দেশের তালিকায়৷ আরেকটু নির্দিষ্ট করে বললে নিম্ন মধ্যম আয়ের দেশ৷ বিশ্বব্যাংক বুধবার এই তালিকা প্রকাশ করেছে৷ আর একে বাংলাদেশের অর্থনীতিবিদরা অর্জন হিসেবে দেখলেও আয় বৈষম্য কমেছে বলে মনে করেন না৷

বিশ্বব্যাংক মধ্যম আয়ের দেশগুলোকে দুটি শ্রেণিতে ভাগ করেছে৷ একটি হচ্ছে নিম্ন মধ্যম আয়ের দেশ, অন্যটি উচ্চ মধ্যম আয়ের দেশ৷ বাংলাদেশ এখন থেকে নিম্ন মধ্যম আয়ের দেশ হিসেবে পরিচিত হবে৷

যেসব দেশের মাথাপিছু জাতীয় আয় ১ হাজার ৪৫ ডলার বা তার নিচে, তাদের বলা হয় নিম্ন আয়ের দেশ৷ বাংলাদেশ স্বাধীনতার পর থেকে এ তালিকাতেই ছিল৷ আর ১ হাজার ৪৬ ডলার থেকে শুরু করে যেসব দেশের মাথাপিছু জাতীয় আয় ১২ হাজার ৭৩৬ ডলার, তারা মধ্যম আয়ের দেশের অন্তর্ভুক্ত৷

এর মধ্যে আবার আয় ১ হাজার ৪৬ ডলার থেকে শুরু করে ৪ হাজার ১২৫ পর্যন্ত হলে তা হবে নিম্ন মধ্যম আয়ের দেশ এবং আয় ৪ হাজার ১২৬ ডলার থেকে শুরু করে ১২ হাজার ৭৩৬ ডলার হলে দেশগুলোকে বলা হয় উচ্চ মধ্যম আয়ের দেশ৷ এর চেয়ে বেশি মাথাপিছু জাতীয় আয় হলে সেই দেশগুলিকে বলা হয় উচ্চ আয়ের দেশ৷

বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) হিসাবে ২০১৪-১৫ অর্থবছরে বাংলাদেশের মাথাপিছু জাতীয় আয় ১ হাজার ৩১৪ ডলার৷ তবে বিশ্বব্যাংকের পদ্ধতি অনুযায়ী তা এখন ১ হাজার ৪৫ ডলারকে ছাড়িয়ে গেছে৷ এ কারণেই নতুন তালিকায় মধ্যম আয়ের দেশ হতে পেরেছে বাংলাদেশ৷ সরকারের ১০ বছরের প্রেক্ষিত পরিকল্পনায় ২০২১ সালের মধ্যে দেশকে মধ্যম আয়ের দেশ হওয়ার কথা বলা আছে৷ তবে তার পাঁচ বছর আগেই মধ্যম আয়ের দেশ হলো বাংলাদেশ

Charity Armenspeisung Frau Pakistan

মাথাপিছু আয় বৃদ্ধির মানে এই নয় যে বাংলাদেশে আয় বৈষম্য কমেছে

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের অধ্যাপক ড. হেলাল উদ্দিন ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘বাংলাদেশে প্রবৃদ্ধি যে ঊর্ধ্বমুখী, মাথা পিছু আয় বাড়ছে এটা তার বড় প্রমাণ৷ বাংলাদেশের প্রতি বিনিয়োগকারী এবং ঋণদাতারা এখন আগের চেয়ে বেশি আস্থা পাবেন৷ আন্তর্জাতিক ঋণবাজার থেকে ঋণ গ্রহণের ক্ষেত্রে একটি তুলনামূলক সুবিধা পাবে বাংলাদেশ ৷ বাংলাদেশকে এখন কম ঝুঁকিপূর্ণ দেশ হিসেবে গণ্য করা হবে৷ তবে ঋণের ক্ষেত্রে নতুন শর্তের মুখোমুখি হতে হবে বাংলাদেশকে৷''

তিনি জানান, ‘‘নিম্ন মধ্যম আয়ের দেশের কাতারে উন্নীত হলেও বাংলাদেশ স্বল্পোন্নত দেশের (এলডিসি) তালিকাতেই থাকবে৷ তাই এলডিসির সুবিধাগুলোও বহাল থাকবে বাংলাদেশের জন্য৷''

ড. হেলাল বলেন, ‘‘তবে এই মাথাপিছু আয় বৃদ্ধির মানে এই নয় যে বাংলাদেশে আয় বৈষম্য কমেছে৷ মানব উন্নয়ন সূচকে আমরা পিছিয়ে আছি৷ দারিদ্র্য সীমা কমলেও আমাদের আরো অনেক দূর যেতে হবে৷''

তিনি বলেন, ‘‘মধ্যম আয়ের দেশের সর্বোচ্চ মাথাপিছু আয় সীমা ১২ হাজার ৭৩৬ ডলার ৷ আর আমাদের মাথাপিছু আয় আয় ১ হাজার ৩১৪ ডলার ৷ সুতরাং এটা স্পষ্ট যে প্রকৃত অর্থে মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হতে হলে বাংলাদেশকে আরো ১১ হাজার ডলার মাথাপিছু আয় বাড়াতে হবে৷''

তিনি মনে করেন, ‘‘আমাদের এখন কাজ হচ্ছে এই মাথাপিছু আয়কে আরো এগিয়ে নেয়ার পাশাপাশি গড় হিসেবে নয় প্রকৃত অর্থেই সবার আয় বাড়ানোর দিকে নজর দেয়৷ আর এজন্য শিক্ষা, অবকাঠামো ও মানব সম্পদ উন্নয়নের দিকে নজর দিতে হবে৷ নজর দিতে হবে বণ্টন ব্যবস্থার দিকে৷''

ড. হেলাল বলেন, ‘‘ল্যাটিন আমেরিকা এবং আফ্রিকার অনেক দেশ এই নিম্ন মধ্যম আয়ের দেশের তালিকায় আটকে আছে৷ এর প্রধান কারণ তারা শিক্ষা এবং মানব সম্পদের উন্নয়ন ঘটাতে পারেনি৷ উত্‍পাদন বাড়াতে পারেনি, পারেনি রপ্তানি বাড়তে৷ বাংলাদেশকে সেখান থেকে এখন শিক্ষা নিতে হবে৷ মধ্য আয়ের দেশের কাতারে যাওয়া বাংলাদেশের একটা অর্জন৷ এটা সক্ষমতার প্রমাণ৷''

Landwirtschaft in Bangladesch Bauer Bohnen Ernte

ব্র্যাকের প্রতিষ্ঠাতা ফজলে হাসান আবেদ ২০১৫ সালের ‘বিশ্ব খাদ্য পুরস্কার' পাচ্ছেন

বাংলাদেশের আরেক অর্জন

বাংলাদেশের বেসরকারি উন্নয়ন প্রতিষ্ঠান ব্র্যাকের প্রতিষ্ঠাতা ফজলে হাসান আবেদ ২০১৫ সালের ‘বিশ্ব খাদ্য পুরস্কার' পাচ্ছেন৷ বুধবার বিশ্ব খাদ্য সংস্থার চেয়ারম্যান পুরস্কার বিজয়ী হিসেবে তার নাম ঘোষণা করেন৷ বাংলাদেশসহ ১০টি দেশে দারিদ্র্য বিমোচনে ফজলে হাসান আবেদের ব্র্যাকের ভূমিকা থাকায় তাকে এই পুরস্কারের জন্য নির্বাচিত করা হয়৷

১৯৭২ সালে আবেদ ব্র্যাক এনজিও প্রতিষ্ঠা করেন৷ যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশে ত্রাণ কার্য পরিচালনার পর পরবর্তীতে বিভিন্ন প্রাকৃতিক দুর্যোগে কাজ করে এই প্রতিষ্ঠান৷ এরপর ব্র্যাক নারী ক্ষমতায়ণে ও দারিদ্র্য বিমোচনে কাজ করে৷ ব্র্যাকের সহায়তায় দেড় কোটি গরিব দরিদ্রতা থেকে মুক্তি পেয়েছে৷

বর্তমানে ব্র্যাকের কর্মী সংখ্যা এক লাখ ১০ হাজার৷ বাংলাদেশসহ বিশ্বের ১০ টি দেশে কাজ করছে ব্র্যাক৷ বাংলাদেশ ছাড়াও পাকিস্তান, ফিলিপাইন, শ্রীলঙ্কা, লাইবেরিয়া, সিয়েরা লিওন, দক্ষিণ সুদান, তাঞ্জানিয়া, উগান্ডা, হাইতিতে ব্র্যাক কাজ করছে৷

২০১০ সালে ফজলে হাসান আবেদকে ব্রিটেনের রাণী ‘নাইট' উপাধি দেন৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন