1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

মধ্যপ্রাচ্য শান্তি প্রক্রিয়ায় নতুন স্পন্দন

মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রীর কূটনৈতিক তৎপরতার ফলে মধ্যপ্রাচ্য শান্তি প্রক্রিয়ায় অগ্রগতির আশা দেখা যাচ্ছে৷ চলতি মাসেই বর্তমান আলোচনা প্রক্রিয়ার মেয়াদ শেষ হবার আগে সমাধানসূত্রের কাঠামো স্থির করার উদ্যোগ নিচ্ছেন তিনি৷

যখন মস্ত বড় আশাবাদীও মধ্যপ্রাচ্য শান্তি প্রক্রিয়ায় সাফল্যের আশা প্রায় ছেড়ে দিয়েছে, তখনও হাল ছাড়ার পাত্র নন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ঘন ঘন মধ্যপ্রাচ্য সফর করছেন, দুই পক্ষ ও আঞ্চলিক শক্তিধর দেশগুলির সঙ্গে আলোচনা করছেন৷ এবার মাত্র ১২ ঘণ্টার মধ্যে জেরুসালেমে ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রী বেনইয়ামিন নেতানিয়াহুর সঙ্গে দু-দুবার আলোচনা করেছেন৷ মঙ্গলবার সেই বৈঠকের পর আবার ছুটেছেন ইউরোপীয় সহযোগীদের সঙ্গে আলোচনা করতে৷ কেরি সম্ভবত বুধবার আবার রামাল্লাহ-য় গিয়ে ফিলিস্তিনি প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাসের সঙ্গে আলোচনা করবেন৷ চলতি পর্যায়ের আলোচনার মেয়াদ স্থির করা হয়েছে ২৯শে এপ্রিল পর্যন্ত৷

আলোচনায় অগ্রগতি সম্পর্কে এখনো কিছু জানা যায়নি৷ তবে গত শনিবার প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী ২৬ জন ফিলিস্তিনি বন্দিদের মুক্তি না দেওয়ায় আলোচনা বানচাল হবার উপক্রম দেখা যাচ্ছিল৷ বিলম্ব সত্ত্বেও বন্দিদের মুক্তি দেওয়া হবে বলে শোনা যাচ্ছে৷ অন্যদিকে ফিলিস্তিনিরা যাতে আলোচনা ছেড়ে চলে না যায়, ইসরায়েল সেই আশ্বাসও দাবি করছে৷ ফিলিস্তিনিরা চাইছে, ভবিষ্যতেও কোনো শর্ত ছাড়াই ইসরায়েল প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী ফিলিস্তিনি বন্দিদের মুক্তি দিক৷

দুই পক্ষই একে অপরের উপর একাধিক শর্ত চাপাতে উন্মুখ হয়ে রয়েছে৷ সেই সঙ্গে শান্তি প্রক্রিয়ার মূল অন্তরায়গুলিও দূর হয়নি৷ ফিলিস্তিনিদের অটল দাবি, অধিকৃত পশ্চিম তীরে ইহুদি বসতি নির্মাণ বন্ধ করতে হবে, আলোচনার ভিত্তি হিসেবে ১৯৬৭ সালের সীমান্তকে স্বীকৃতি দিতে হবে এবং আরও প্রায় ১,০০০ ফিলিস্তিনি বন্দিদের মুক্তি দিতে হবে, যাদের মধ্যে মারওয়ান বারগুতির মতো জনপ্রিয় নেতার নাম রয়েছে৷ ইসরায়েল এমন নির্দিষ্ট শর্ত ছাড়াই আলোচনা চালাতে চায়৷ বিশেষ করে নেতানিয়াহু সরকারের জোটসঙ্গী চরম রক্ষণশীল দলগুলি ফিলিস্তিনিদের কোনোরকম ছাড় দিতে প্রস্তুত নয়৷

এমন প্রেক্ষাপট আগেও অনেকবার দেখা গেছে৷ শান্তি প্রক্রিয়ায় কোনো রকম অগ্রগতি দেখা যায়নি৷ ফলে প্রশ্ন উঠছে, এবারও সেই একই পরিণতি দেখা যাবে না, এমন নিশ্চয়তা কে দিতে পারে? পর্যবেক্ষকদের মতে, পরিস্থিতি কিছুটা বদলেছে৷ ওবামা প্রশাসন ও সামগ্রিকভাবে মার্কিন রাজনৈতিক অঙ্গন আর আগের মতো ইসরায়েলের প্রতি অন্ধ সমর্থন দেখাচ্ছে না৷ যদিও সে দেশের নিরাপত্তার প্রশ্নে মার্কিন সংহতি অটুট রয়েছে৷ ইউরোপ ইসরায়েলের প্রতি অনেক কড়া মনোভাব দেখাতে শুরু করেছে, এমনকি অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞা নিয়েও আলোচনা চলছে৷ অধিকৃত এলাকায় ইসরায়েলি প্রতিষ্ঠানগুলির বিরুদ্ধে ইউরোপ এরই মধ্যে কিছু পদক্ষেপ নিয়েছে৷

ইহুদি রাষ্ট্র হিসেবে ইসরায়েলের ভবিষ্যৎ সম্পর্কে দেশের মধ্যেও বিতর্ক চলছে৷ দুই রাষ্ট্র-ভিত্তিক সমাধানসূত্র বিফল হলে ফিলিস্তিনিদের নিয়ে একই রাষ্ট্রে থাকতে হলে দেশের মৌলিক চরিত্রই পুরোপুরি বদলে যাবে৷ দুই সম্প্রদায়ের জনসংখ্যার বিশাল তারতম্যই সেই অঘটন ঘটাতে যথেষ্ট৷ দক্ষিণ আফ্রিকার ‘অ্যাপারথাইড' জমানায় কৃষ্ণাঙ্গদের প্রতি যে প্রাতিষ্ঠানিক বৈষম্য দেখানো হতো, আজকের যুগে ফিলিস্তিনিদের প্রতি সেই আচরণ অত্যন্ত কঠিন হয়ে উঠছে৷ তাই অনেকে বলছেন, ফিলিস্তিনিদের জন্য নয় – ইসরায়েলের নিজস্ব স্বার্থেই অবিলম্বে এক ফিলিস্তিনি রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করা উচিত৷

এসবি/ডিজি (ডিপিএ, রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়