1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

মধ্যপ্রাচ্যে খ্রিষ্টানহত্যা বন্ধ করতে বললেন পোপ

আবারও জলবায়ু পরিবর্তনের ক্ষতি নিয়ে খোলামেলা কথা বললেন পোপ ফ্রান্সিস৷ তবে এবার তাঁর ভাষণে বেশি গুরুত্ব পেয়েছে মধ্যপ্রাচ্যে আইএস-এর খ্রিষ্টাননিধন এবং ক্যাথলিক চার্চের অতীত নিষ্ঠুরতার প্রসঙ্গ৷

দক্ষিণ অ্যামেরিকা সফরের অংশ হিসেবে বৃহস্পতিবার বলিভিয়ায় যান পোপ ফ্রান্সিস৷ শুক্রবারই তাঁর প্যারাগুয়েতে যাওয়ার কথা৷ ইকুয়েডর থেকে বলিভিয়ায় পৌঁছানোর পর সান্তা ক্রুজে আয়োজিত এক সভায় তিনি সারা বিশ্বে, বিশেষ করে মধ্যপ্রাচ্যে ‘খ্রিষ্টানদের বিরুদ্ধে গণহত্যা'-র উল্লেখ করে এ নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেন৷ তিনি বলেন, ‘‘আজ আমরা বড় দুঃখের সঙ্গে লক্ষ্য করছি মধ্যপ্রাচ্য এবং বিশ্বের অন্যান্য জায়গায় কীভাবে আমাদের ভাই এবং জবাই করা হচ্ছে, নির্যাতন করা হচ্ছে৷ শুধু মহান যিশুর ওপর বিশ্বাস রাখার কারণেই হত্যা করা হচ্ছে তাঁদের৷'' সার্বিকভাবে চলমান পরিস্থিতিকে ‘তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধ' হিসেবে উল্লেখ করে পোপ আরো বলেন, ‘‘এক ধরণের গণহত্যাই চলছে এখন৷ এটা বন্ধ করতেই হবে৷''

পোপ ফ্রান্সিস আগেও মধ্যপ্রাচ্যে খ্রিষ্টানদের বিরুদ্ধে হত্যা-নির্যাতনের বিষয়ে উদ্বেগ এবং উষ্মা প্রকাশ করেছেন৷ ইরাক এবং সিরিয়ায় খ্রিষ্টানদের ধরে ধরে হত্যা করা হচ্ছে, নারীদের ধর্ষণ করা হচ্ছে, ধর্মান্তরিত করা হচ্ছে – এ সব উল্লেখ করে ইসলামি জঙ্গি সংগঠন আইএস-এর কঠোর সমালোচনাও করেছেন তিনি৷

Bolivien La Paz Papst Franziskus und Evo Morales

পোপের হাতে উপহার তুলে দিচ্ছেন বলিভিয়ার প্রেসিডেন্ট এবো মরালেস

বলিভিয়ায় ক্যাথলিক চার্চের অতীত কর্মকাণ্ডের সমোলোচনা করতেও ছাড়নেননি পোপ ফ্রান্সিস৷ ঔপনিবেশিক শাসনের সময় দক্ষিণ অ্যামেরিকায় ক্যাথলিক চার্চ যে আদিবাসীদের ওপর ধর্মের নামে অত্যাচার চালিয়েছে, তা স্বীকার করে নিয়ে বিনীতভাবে ক্ষমাও চেয়েছেন তিনি৷ বলিভিয়ার প্রথম আদিবাসী প্রেসিডেন্ট এবো মরালেসসহ উপস্থিত অন্য আদিবাসী শ্রোতাদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, ‘‘কথাটা বলার সময় অনুশোচনা হচ্ছে আমার৷ ঈশ্বরের নামে এক সময় স্থানীয়দের বিরুদ্ধে কী নারকীয় পাপকর্মই না হয়েছে!''

বরাবরের মতো বিশ্বের আপামর দরিদ্র মানুষের হয়েও কথা বলেছেন পোপ ফ্রান্সিস৷ সান্তা ক্রুজবাসীদের প্রতি বর্তমান সময়ের ভোক্তাসমাজকে প্রত্যাখ্যান করার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, ‘‘এখন সবার মানসিকতাটাই কেমন যেন, সব কিছুরই একটা মূ্ল্য নির্ধারণ করা হয়, সবই এখন কেনা যায়, সবকিছুই সমঝোতাযোগ্য৷ এমন ভাবনা নিয়ে চলার অবস্থা এবং সামর্থ্য খুব অল্প লোকের আছে৷''

এসিবি/ডিজি (এপি, এএফপি, রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন