1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

মজুরি বৃদ্ধি ও ক্রেতা হারিয়ে পোশাক কারখানায় লোকসান

একদিকে মজুরি বৃদ্ধি, অন্যদিকে শ্রমিক নিরাপত্তার প্রশ্নে ক্রেতারা মুখ ফিরিয়ে নেয়ায় বাংলাদেশের তৈরি পোশাক কারখানা পড়েছে লোকসানের মুখে৷ গত ১৫ বছরে এমন পরিস্থিতি দেখা যায়নি৷ ফলে কিছু পোশাক কারাখানা বন্ধ হয়ে গেছে৷

গত বছরের ১লা ডিসেম্বর থেকে বাংলাদেশের পোশাক কারখানায় নতুন মজুরি কার্যকর হয়৷ ৭৭ ভাগ মজুরি বৃদ্ধি পেয়ে শ্রমিকদের এখন সর্বনিম্ন মজুরি দাড়িয়েছে ৫,৩০০ টাকা৷ গত বছরের ২৪শে এপ্রিল রানা প্লাজা ধসে ১,১৩৪ জন শ্রমিকের মৃত্যু এবং এর আগে তাজরিন ফ্যাশনস-এ আগুনের ঘটনায় শ্রমিক নিরাপত্তা এবং নিম্ন মজুরি নিয়ে চাপের মুখে পড়েছে বাংলাদেশের পোশাক শিল্প৷ এই চাপ এড়াতে শ্রমিকদের মজুরি বাড়ানো হয়৷ কিন্তু মজুরি বৃদ্ধির চাপ সহ্য করতে পারছে না অনেক পোশাক কারখানা৷

এর কারণ, আন্তর্জাতিক ক্রেতারা পোশাকের দাম বাড়াচ্ছে না৷ ফলে ছোট ছোট অনেক পোশাক কারাখানা এরই মধ্যে বন্ধ হয়ে গেছে৷ তৈরি পোশাক শিল্পের মালিকদের সংগঠন বিজিএমইএ ভবনের সামনে বন্ধ হওয়া এ সব পোশাক কারখানার শ্রমিকরা প্রতিদিনই ভিড় করছেন৷ গত সপ্তাহে ঢাকার মোহাম্মদপুর এলাকার এরকম একটি পোশাক কারাখানা বন্ধ করে দেয়ার পর সেই কারখানার শ্রমিকদের সঙ্গে এই প্রতিবেদকের কথা হয় বিজিএমইএ ভবনের সামনেই৷ তাঁরা জানান, মালিক কর্তৃপক্ষ দু'মাসের বেতন না দিতে পেরে কারাখানা বন্ধ করে দিয়েছে কিছু না জানিয়েই৷ একই ভবনের আরো কয়েকটি গার্মেন্টসও বন্ধ হওয়ার পথে বলে জানান তাঁরা৷

৯৪৬টি পোশাক কারখানার ওপর জরিপ চালিয়ে দেখা গেছে যে, তাদের মাত্র ৪০ ভাগ নতুন মজুরি বাস্তবায়ন করতে পেরেছে৷ এর মধ্যে চট্টগ্রামে পেরেছে মাত্র ৫ ভাগ কারখানা৷ বিজিএমইএ-র সহ সভাপতি শহীদুল আযিম জানান, ‘‘অনেক পোশাক কারখানারই নতুন মজুরি বাস্তবায়নে সক্ষমতা নেই৷''

একই সঙ্গে রানা প্লাজা ধসের পর শ্রমিক নিরাপত্তা, কম মজুরি এবং রাজনৈতিক অস্থিরতাসহ নানা প্রশ্নে পশ্চিমা ক্রেতারা বাংলাদেশ থেকে মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছেন৷ তাঁরা ভারত, ভিয়েতনাম, ইন্দোনেশিয়া ও কম্বোডিয়ায় চলে যাচ্ছেন৷ ব্যাবিলন গ্রুপ নামের একটি পোশাক কারাখানার পরিচালক ইমদাদুল হক জানান, গত বছর ফ্রান্সের একটি ক্রেতা প্রতিষ্ঠান ১,৩০,০০০ শার্ট নিয়েছে৷ আর এবার তারা নিচ্ছে অর্ধেকেরও কম মাত্র ৬০,০০০ পিস শার্ট৷ অন্যদিকে, সিমকো গ্রুপ একই ক্রেতাকে পোশাক সরবরাহ করে লাভের পরিবরর্তে শতকরা ২ ভাগ লোকসান গুনছে৷ পরিস্থিতি সামলাতে ক্রেতাদের পোশাকের দাম বাড়াতে অনুরোধ করলেও তাঁরা সাড়া দিচ্ছেন না৷ জানা গেছে, এখন ৫টি পোশাক কারখানার মধ্যে ৪টিই এই পরিস্থিতির মুখোমুখি৷ যেমন ব্যাবিলন গ্রুপ এর আগে ২.৬৯ ভাগ লাভ করলেও এখন তাদের উল্টো ২.৪২ ভাগ লোকসান হচ্ছে৷

গত চার মাসে বাংলাদেশের পোশাক কারখানায় প্রবৃদ্ধির ধারা গত ১৫ বছরেও সর্বনিম্ন, যা পোশাক কারখানার জন্য অশনি সংকেত৷ বিজিএমইএ-র সহসভাপতি শহীদুল আযিম বলেন, ‘‘একদিকে ক্রেতারা নানা প্রশ্নে অর্ডার কমিয়ে দিচ্ছেন আর অন্যদিকে রয়েছে বাড়তি মজুরির চাপ৷ এই দুই দিকের চাপ এখন সামাল দিতে হচ্ছে পোশাক কারখানার মালিকদের৷''

Bangladesch Demonstration der Textilarbeiter in Dhaka

শ্রমিক নিরাপত্তা এবং নিম্ন মজুরি নিয়ে চাপের মুখে পড়েছে বাংলাদেশের পোশাক শিল্প

গার্মেন্টস শ্রমিক ঐক্য পরিষদের আহ্বায়ক সিরারজুল ইসলাম রনি জানান, ‘‘কিছু পোশাক কারখানা বাড়তি মজুরি দিতে না পেরে বন্ধ হয়ে গেছে৷ আর শ্রমিক নিরাপত্তা নিশ্চিত না করায় ১০টি কারখানা বন্ধ করে দেয়া হয়েছে৷ এর ফলে শ্রমিকরা বেকার হচ্ছেন৷ তাই আন্তর্জাতিক ক্রেতাদেরও দায়িত্ব নিতে হবে৷ তাদের উচিত হবে পোশাকের জন্য বাড়তি দাম দেয়া৷ কম দামে পোশাক কেনার মানসিকতা ছাড়তে হবে৷ পোশাক কারখানা বন্ধ হলে শ্রমিকরা কাজ হারাবে৷ তখন নিরপত্তার চেয়ে বেকারত্বই বড় প্রশ্ন হয়ে দেখা দেবে৷'' বাংলাদেশ বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম তৈরি পোশাক রপ্তানিকারক দেশ৷ রপ্তানি আয়ের প্রায় ৮০ ভাগ আসে এই খাত থেকে৷ পোশাক কারখানায় নিয়োজিত আছে প্রায় ৪০ লাখ শ্রমিক, যাঁদের ৮০ ভাগই নারী৷ তাই পোশাক কারখানার যে কোনো ধরণের বিপর্যয় পুরো অর্থনীতির উপর নেতিবাচক প্রতিক্রিয়া ফেলবে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়