1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

ভোপাল গ্যাস দুর্ঘটনা মামলার পুনর্বিচারের আর্জি খারিজ

৮৪-সালের ভোপাল গ্যাস দুর্ঘটনা মামলার পুনর্বিচারের জন্য কেন্দ্রীয় তদন্ত সংস্থার আর্জি আজ খারিজ করে দিল ভারতের সুপ্রিম কোর্ট৷ ৯৬ সালে আদালতের রায়ে আসামিদের মাত্র দুবছরের লঘু শাস্তি দেয়া হয়েছিল৷

default

গ্যাস পীড়িতদের সকলেই দায়ী করেছে সিবিআইকে

ভোপাল গ্যাস বিপর্যয় মামলায় আসামিদের শাস্তি ঘোষণার ১৪ বছর পর কেন এই মামলার পুনর্বিচারের আর্জি, তার কোন সদুত্তর দিতে পারেনি কেন্দ্রীয় তদন্ত সংস্থা সিবিআই এবং মধ্যপ্রদেশ সরকার৷ আজ সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতি এস.এইচ কাপাডিয়ার নেতৃত্বে পাঁচজন বিচারকের এক সাংবিধানিক বেঞ্চ সেই কারণে ঐ মামলার পুনর্বিচারের সিবিআই-এর আবেদন খারিজ করে দেন৷

এই রায়ে কেন্দ্রীয় আইনমন্ত্রী বীরাপ্পা মইলি বলেন, সুপ্রিম কোর্টের রায় সরকার মেনে নেবে৷ রায়ের ন্যায্য অন্যায্য বিচার করবেনা৷ অ্যাটর্নি জেনারেলের পরামর্শে বিশেষ মন্ত্রীগোষ্ঠীর নির্দেশে সিবিআই পুনর্বিচারের আবেদন করেছিল৷

ভোপাল গ্যাস পীড়িতদের সমর্থকরা সুপ্রিম কোর্টের আজকের রায়ে ক্ষুব্ধ৷ এরজন্য গ্যাস পীড়িতদের সকলেই দায়ী করেছে সিবিআইকে৷ তাদের মতে, সিবিআই সময়মত পুনর্বিচারের আর্জি জানালে এটা হতোনা৷ ভোপাল গ্যাস পীড়িত সমিতির আহ্বায়ক জয় প্রকাশ বলেছেন, আমরা ন্যায় বিচার ভিক্ষা চাইছিনা, দাবি করছি৷এটা আমাদের সাংবিধানিক অধিকার৷ অপর এক এনজিওর শীর্ষ ব্যক্তি বলেন, সিবিআই বারংবার অযোগ্যতা, অনিচ্ছা এবং মামলা চালাতে ঢিলেমির পরিচয় দিয়ে গেছে৷ এই রায়ে প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে বিজেপি৷ মুখপাত্র প্রকাশ জাভেদকরের অভিযোগ, সরকার দোষীদের শাস্তি দিতে চায়নি৷স্রেফ মুখরক্ষার জন্য সিবিআইকে দিয়ে পুনর্বিচারের আবেদন দাখিল করেছিল মাত্র৷ শীর্ষ আদালত তাই এক কথায় তা নাকচ করে দেন৷

উল্লেখ্য, শুরুতে ১৯৯৬ সালে, ভোপাল গ্যাস দুর্ঘটনার অপরাধীদের বিরুদ্ধে অভিযোগ হাল্কা করে পেশ করেছিল তদন্তকারী সংস্থা৷ অনিচ্ছাকৃত হত্যার বদলে আনা হয়েছিল কর্তব্যে গাফিলতির ফৌজদারি অভিযোগ৷ তার পরিণতিতে তৎকালীন ইউনিয়ন কার্বাইডের সাতজন কর্তাব্যক্তির দুবছর করে জেল হয় এবং সঙ্গে সঙ্গে তাঁরা সকলেই জামিন পেয়ে যান৷ এই রায়ে দেশ জুড়ে দেখা দেয় বিক্ষোভ৷ সরকার জনতাকে শান্ত করতে মন্ত্রীগোষ্ঠী গঠন করে মামলার পুনর্বিচারের আবেদন করার সিদ্ধান্ত নেন৷

ভোপালের ইউনিয়ন কার্বাইড কারখানায় তৈরি হতো বিষাক্ত কীটনাশক মিথাইল আইসোসায়নেট৷ ৮৪ সালের ৩রা ডিসেম্বর রাতে কারখানা থেকে বিষাক্ত গ্যাস লিক করলে একদিনেই মারা যায় তিন হাজার মানুষ৷ জল,মাটি ও বায়ু দূষণে পরবর্তীকালে মারা যায় ও পঙ্গু হয়ে যায় আরো ২৫ হাজার মানুষ৷

প্রতিবেদন: অনিল চট্টোপাধ্যায়, নতুনদিল্লি

সম্পাদনা: আব্দুল্লাহ আল-ফারূক

সংশ্লিষ্ট বিষয়