1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

ভেজাল খাদ্যে জীবনের ঝুঁকি বাড়ছে ভারতে

ভারতে ৩০ থেকে ৩৫ শতাংশ খাদ্যসামগ্রীতে ভেজাল দেয়া হয় ইচ্ছাকৃতভাবে৷ বিভিন্ন দোকানে শাকসবজি, ফলফলাদিতে বিপজ্জনক মাত্রায় কীটনাশক কেমিক্যালস-এর কণা পাওয়া গেছে৷ ভেজাল পরীক্ষা এবং নজরদারি বাড়াতে সম্প্রতি গঠিত হয়েছে বিশেষ সেল৷

আমাদের খাদ্যাভাসে এসেছে বিরাট পরিবর্তন৷ নানা রকমের মনের মতো খাবার ভারতীয় ভোক্তাদের রুচিবোধটাকে দিয়েছে পাল্টে৷ যদিও সবাই জানে ঐসব খাবারে আছে প্রচুর ভেজাল৷ সরকারি নিয়মবিধি যাই থাক, ভেজাল চলছে একইভাবে৷ সবথেকে বিপজ্জনক হলো কাঁচা শাকসবজি ও ফলফলাদিতে বিপজ্জনক মাত্রায় বেড়ে চলেছে কীটনাশক কেমিক্যালস ব্যবহার৷ জনস্বাস্থ্যের ওপর যার ফল হয় মারাত্মক৷ এমন কী  বেড়ে যায় ক্যান্সারের মত দূরারোগ্য ব্যাধির আশঙ্কা৷

একটি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা দিল্লি আদালতে এই মর্মে একটি জনস্বার্থ মামলা দায়ের করলে আদালত একটি বিশেষ সেল গঠনের নির্দেশ দেন৷ আবেদনে বলা হয়েছে, কীটনাশক কণা থাকার পরিণামে ক্যান্সার হবার এবং স্নায়ুতন্ত্র ও লিভারের ক্ষতি হবার আশঙ্কা বেড়ে যায়৷ ভারতে বিশেষ করে দিল্লিতে শাকসবজি ও ফলফলাদিতে কীটনাশক কেমিক্যালস-এর কণা থেকে যায় ইউরোপীয় মানের তুলনায় ৭৫০ গুণ বেশি৷এনজিওগুলির দাবি, আন্তর্জাতিকভাবে নিষিদ্ধ পাঁচটি বিষাক্ত কীটনাশকের  মধ্যে চারটি পাওয়া গেছে ভারতীয় শাকসবজি ও ফলে৷ বাজার সমীক্ষা এবং আচমকা খাদ্যসামগ্রী  পরীক্ষা করার কথা বলেছে আদালত৷

Symbolbild Indien Mädchen Hausarbeit Hausmädchen Ausbeutung

সবথেকে বিপজ্জনক হলো কাঁচা শাকসবজি ও ফলফলাদিতে বিপজ্জনক মাত্রায় বেড়ে চলেছে কীটনাশক কেমিক্যালস ব্যবহার (ফাইল ফটো)

বিশেষজ্ঞ কমিটি আদালতকে জানিয়েছেন, বাজারের শাকসবজি ও ফলে কীটনাশক রাসায়নিকের কণা থেকে যায় কিনা তা পরীক্ষা করার জন্য  দিল্লি প্রশাসনের অবকাঠামো আরো শক্তিশালী করা প্রয়োজন৷ যেমন, আধুনিক পরীক্ষাগার, প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত শ্রমশক্তি এবং পরিসর৷ শাকসবজি ও ফলফলাদিতে কীটনাশক দেয়া হচ্ছে কিনা সেদিকেও কড়া নজর রাখা দরকার৷

যেসব শাকসবজি ও ফলে কীটনাশক কণা আছে সেগুলি চিহ্নিত করতে হবে এবং বিনা পরীক্ষায় এক রাজ্য থেকে অন্য রাজ্যে তা পাঠানো বন্ধ করতে হবে৷ বিদেশ থেকে যেসব খাদ্য সামগ্রী আসে বিমানবন্দরের কাছে তা পরীক্ষার ব্যবস্থা রাখা হবে৷

হলুদ রঙের ডাল যেমন, মুগ ডাল, ছোলার ডাল,খেসারি ডাল৷ এতে হলুদ রঙের উজ্জ্বলতা বাড়াতে মেশানো হয় মেটানিল ইওলো৷ মটরশুঁটি, কাঁচা লঙ্কা এবং অন্যান্য কাঁচা শাকসবজির তাজাভাব এবং সবুজতা উজ্জ্বল করতে মোশানো হয় ম্যালাচিট গ্রীন৷ এই কেমিক্যালসে ক্যান্সার হবার বিপদ থাকে৷ এক খন্ড ভেজা ব্লটিং পেপারে রাখলে বোঝা যায় যে তাতে ঐ কেমিক্যালস দেয়া হয়েছে কিনা৷ সরষের তেলে ভেজাল দিতে আর্জিমোন বীজ মেশানো হয়৷ এতে বাচ্চা ও বুড়োবুড়িদের  গ্লুকোমার মত মারাত্মক চোখের অসুখ হতে পারে৷

পনির, খোলা কনডেন্স মিল্কে মাড় মিশিয়ে তার ঘন ও তাজাভাব বাড়ানো হয়৷ খেলে এতে পেটের অসুখ হয়৷ এমন কী বাচ্চাদের আইসক্রীমে মেশানো হয় ওয়াশিং পাউডার৷ ঐসব আইসক্রীমের ওপর কয়েক ফোঁটা লেবুর রস ফেললে যদি বিজবিজ করে ফেনা উঠতে থাকে তাহলে বুঝতে হবে তাতে ওয়াশিং পাউডার মোশানো হয়েছে৷ খেলে পেট ও লিভার খারাপ হয়৷ কারবাইড দিয়ে পাকানো ফল অনেকদিন খেলে ডাইরিয়া, মুখে ঘা, মাথা ঘোরা এমন কী ক্যান্সার হতে পারে৷ সামান্য আর্থিক লাভের জন্য ব্যবসায়ীরা এই ধরণের জনস্বাস্থ্যের বিরাট ক্ষতি করে চলেছে৷ এটা বন্ধ করার উপায় নজরদারি এবং কঠোর শাস্তি৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন