1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

ভূমিকম্প প্রতিরোধী বাড়ি বানালেন জার্মান এক ছাত্র

২০১৫ সালের ভূমিকম্পে নেপালে বহু মানুষ হতাহত হন৷ তখনই জার্মানির ডেসাউ-এর এক স্থাপত্যবিদ্যার ছাত্রের মাথায় ধারণা আসে: স্রেফ ইট-কাঠ-সুড়কি দিয়ে তৃতীয় বিশ্বের উপযোগী এক ভূমিকম্প প্রতিরোধী বাড়ি বানানোর৷

২০১৫ সালে নেপালে একাধিক ভূমিকম্প হয়, যাতে সব মিলিয়ে প্রায় দশ হাজার মানুষ প্রাণ হারান, আহত হন ২০ হাজারের বেশি৷

ভূমিকম্পের মাত্র ক'দিন আগে ইয়ান ভারজাভা তাঁর কয়েকজন ঘনিষ্ঠ বন্ধুর সঙ্গে নেপালে গিয়েছিলেন৷ সবাই আর্কিটেকচারের ছাত্র৷ সকলে মিলে সেখানে একটি স্কুলবাড়ি তৈরি করেছিলেন৷ জার্মানিতে ফিরে ইয়ান শুনলেন নেপালে ভূমিকম্পের কথা৷ শুনলেন, নতুন স্কুলবাড়িটা দাঁড়িয়ে আছে বটে, কিন্তু অন্যান্য বহু ভেঙে পড়েছে৷

স্থাপত্যবিদ্যার এই ছাত্রের কথায়, ‘‘স্বভাবতই আমরা খুব দুঃখ পেয়েছিলাম৷ তার পরেই ভাবলাম, নেপালে আমাদের চেনা লোকদের সঙ্গে যোগাযোগ করে জিগ্যেস করতে হবে, তারা কেমন আছেন আর আমরা কোনোরকম সাহায্য করতে পারি কিনা৷ তখন আমার মাথায় এলো একটি সহজ ধরনের বাড়ি বানানোর কথা – যাতে পাহাড়ি অঞ্চলের অতি গরীব গ্রামগুলোতেও বাসস্থানের ব্যবস্থা করা যাবে৷''

কয়েক সপ্তাহের মধ্যে ইয়ান তাঁর ‘ভূমিকম্প প্রতিরোধী' বাড়ির নকশা করে ফেলেন – এমন এক বাড়ি, বাসিন্দারা যা সহজেই স্থানীয় উপাদান ব্যবহার করে নিজেরাই তৈরি করতে পারবেন৷ তার জন্য কংক্রিট, স্ক্রু-ড্রাইভার কিংবা বোরিং মেশিনের দরকার পড়বে না৷

ইয়ান ভারজাভা জানান, ‘‘আমি বিশেষভাবে দেখার চেষ্টা করেছি যে, বাড়ি তৈরিতে যে সব জিনিস ব্যবহার করা হবে, তা যেন সেখানেই পাওয়া যায়: কাঠ, পাথর, করোগেটেড টিন৷ এছাড়া যে সব যন্ত্রপাতি ব্যবহার করা হবে, সেগুলোও যেন সেখানে পাওয়া যায়: যেমন পেরেক, হাতুড়ি, করাত কি কোদাল৷''

সেই সঙ্গে আছে বাড়িটা কিভাবে তৈরি করতে হবে, তা নিয়ে একটি ভিডিও টিউটোরিয়াল৷ ইয়ান নিজেই এই টিউটোরিয়াল তৈরি করেছেন, যেখানে ধাপে ধাপে দেখানো হয়েছে, কোন কাজের পর কোন কাজ করতে হবে; কী কী জিনিসের খেয়াল রাখতে হবে, যাতে বাড়িটা সত্যিই ভূমিকম্প প্রতিরোধী হয়ে উঠতে পারে৷ ইয়ান বলেন, ‘‘লোকজন ভিডিও দেখলে সহজে বুঝতে পারে, কেননা হাতে-নাতে করে দেখানো হয়েছে; লোকজন দেখছেন, প্রতিটি কাজ কিভাবে করা হচ্ছে ও কেন – লিখিত নির্দেশাবলীতে যা সম্ভব ছিল না, যদিও আমি ছবি সুদ্ধ একটা ৬০ পাতার ‘ইনস্ট্রাকশন' লিখেছিলাম৷''

ইয়ান আর তাঁর বন্ধুরা মাত্র নয় দিনের মধ্যে একটি ভূমিকম্প প্রতিরোধী বাড়ি তৈরি করে ফেলেছেন – তৈরি করার সময় ভিডিও তোলা হয়েছে৷ এই ভিডিও টিউটোরিয়াল বিভিন্ন ভাষায় ‘ডাব' করা হবে৷ বড় ধরনের ভূকম্পনেও বাড়িটা ধসে পড়বে না, কেননা তার একক অংশগুলো হালকা আর পরস্পরকে ধরে রাখছে৷

ইয়ান ভারজাভা জানান, ‘‘বাড়ির একটা বড় বৈশিষ্ট্য হলো এই ‘বেভেল' বা ঢালু করা কোণগুলো৷ এর ফলে ভূমিকম্পের শক্তি বাড়ির দেয়ালগুলো দিয়ে ঘুরে যায়৷ দেয়ালটা এদিকে ঠ্যালে, আর পরের দেয়ালটা সেই শক্তি শুষে নেয়৷ এভাবে ভূমিকম্পের শক্তি ভাগাভাগি হয়ে যায়৷ সাধারণ সমকোণ দেয়ালগুলোতে একটি দেয়াল তার অক্ষ থেকে সরে যায়৷ এছাড়া ছাদটা দেয়ালের ওপর থাকলেও, দেয়ালের সঙ্গে জোড়া নেই – বরং দু'টোর ভিতরে একটা ফাঁক রয়েছে৷ কাজেই দেয়ালের একাংশ ভেঙে পড়লেও, ছাদটা ভেঙে পড়ে কাউকে চাপা দেবে না৷''

দেয়ালের ইটগুলো একবার সোজা, একবার বাঁকা করে বসানো – যা শুধু একদিকে মুখ করে বসানো ইটের দেয়ালের চেয়ে অনেক বেশি স্থায়ী, নেপালে সাধারণত যা করা হয়৷

এরপর ইয়ান তাঁর ভিডিও টিউটোরিয়ালটি ইন্টারনেটে দেবেন৷ কাজেই অন্যরাও এই ভূমিকম্প প্রতিরোধী বাড়ি বানাতে পারবেন৷ তবে আইডিয়াটা সারা বিশ্বে ছড়িয়ে দেওয়ার জন্য তরুণ স্থপতি ও আবিষ্কারকের সাংগঠনিক ও আর্থিক পৃষ্ঠপোষকতার প্রয়োজন৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

সংশ্লিষ্ট বিষয়