1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

ভিয়েতনামে সামাজিক পরিবর্তন আনছে ‘মিম’

ভিয়েতনাম একটা কমিউনিস্ট দেশ৷ সেখানে এখনো দিনে দু’বার মাইকে সরকারি খবর বাজিয়ে শোনানো হয়৷ সেদেশের সবগুলো গণমাধ্যম সরকার নিয়ন্ত্রিত৷ এমন একটা দেশে পরিবর্তন আনছে ‘মিম’৷

মিম বিষয়টা সহজে বুঝতে একটা উদাহরণ দেয়া যেতে পারে৷ ক'দিন আগে ভিয়েতনামে টিকা খাওয়ানোর পর বেশ কিছু শিশুর মৃত্যু ঘটে৷ এর ফলে দেশটির স্বাস্থ্যমন্ত্রীর পদত্যাগের দাবি ওঠে৷ তবে কমিউনিস্ট একটা দেশে যেহেতু সহজে সরকারের বিরুদ্ধে যাওয়া যায় না, তাই সাহায্য নেয়া মিমের৷ স্বাস্থ্যমন্ত্রীর একটি ছবিতে ‘আমি ছাড়া শেষকৃত্য পরিচালনা কোম্পানিগুলো কীভাবে চলতো' লিখে সেটা ফেসবুকে ছড়িয়ে দেয়া হয়৷ এটাই হলো মিম৷ ছবি ছাড়াও মিম হতে পারে একটা ভিডিও ক্লিপ বা ওয়েবসাইট কিংবা শুধু একটা শব্দ, যেটা ইচ্ছে করেই ভুল বানানে লেখা৷ তবে মিমের বিশেষত্ব হলো সেটা সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম কিংবা ব্লগ বা ই-মেলের মাধ্যমে অনলাইনে ছড়িয়ে দিতে হবে৷

ভিয়েতনামের মতো কমিউনিস্ট দেশে মিমটা বেশ কার্যকর প্রমাণিত হচ্ছে৷ কেননা সেখানে কেউ ব্লগ লিখলে সহজেই তাঁকে গ্রেপ্তার করা যেতে পারে এবং সেই ব্লগটা ‘ব্লক' করে দেয়া যেতে পারে৷ কিন্তু মিমের মাধ্যমে একটা বিষয় খুব দ্রুতই ছড়িয়ে পড়তে পারে৷ তাছাড়া এটা ‘ডিলিট' করা বা মুছে দেয়াটা কঠিন৷ কারণ সরকার সাধারণত ‘কিওয়ার্ড সার্চ অ্যালগরিদম' ব্যবহার করে আপত্তিকর শব্দ মুছে ফেলার ব্যবস্থা করে৷ কিন্তু এর মাধ্যমেতো আর আপত্তিকর ছবি খুঁজে পাওয়া সম্ভব নয়৷ সেজন্য চীনের জনপ্রিয় মাইক্রোব্লগিং সাইট ‘ওয়াইবো'-তে যখন চীনা শিল্পী আই ওয়ে ওয়ের নাম ব্লক করে দেয়া হয় তখন ব্যবহারকারীরা ওয়েওয়ের জায়গায় সূর্যমুখীর বীজ ব্যবহার করা শুরু করে৷ আই ওয়ে ওয়ের একটি চিত্রকর্মে এই বীজের ব্যবহার রয়েছে৷

মার্কিন লেখক আন জিয়াও মিনা মিমের নাম দিয়েছেন ‘স্ট্রিট আর্ট অফ দ্য ইন্টারনেট'৷ তিনি এটাকে স্বৈরশাসকদের জন্য একটা বড় চ্যালেঞ্জ মনে করেন৷

জেডএইচ/ডিজি (এএফপি, এপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন