1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

ভিডিও ব্লগিং যেভাবে মিডিয়াকে বদলে দিচ্ছে

জনপ্রিয় ভিডিও ব্লগার বা ভ্লগাররা এখন তাদের অনলাইন খ্যাতিকে টেলিভিশনের দিকে নিয়ে যাচ্ছেন৷ মিডিয়া শিল্পে এই পরিবর্তন নিয়ে ডয়চে ভেলের বিশেষ প্রতিবেদন৷

ভিডিও ব্লগারদের দেখা মূলত মেলে ইউটিউবে৷ তরুণ প্রজন্ম তাদের প্রতি বেশ আকৃষ্টও৷ গত কয়েক বছর ধরে এই আকর্ষণ শুধু বেড়েই চলেছে৷ আর এই বিষয়টি বিভিন্নভাবে কাজেও লাগাচ্ছেন জনপ্রিয় ভ্লগাররা৷ বিশ্বের সবচেয়ে বড় ভিডিও শেয়ারিং প্ল্যাটফর্ম ইউটিউবে জনপ্রিয় ভ্লগারদের কয়েকজন তাদের জনপ্রিয়তা কাজে লাগিয়ে টেলিভিশনে কাজ নিচ্ছেন৷

ইউটিউব জার্মানির মুখপাত্র মুনিরা লাটরাশ এই বিষয়ে বলেন, ‘‘এই উদ্ভাবকদের (ভ্লগারদের) লাখ লাখ অনুসারী এবং দর্শক রয়েছেন৷ অনেক ব্র্যান্ডের পক্ষে এত সমর্থন আদায় আর সম্ভব নয়, অন্তত এভাবে সম্ভব নয়৷''

ইউটিউব থেকে টেলিভিশনে

ইউটিউব তারকা ফ্রানচেস্কা রামসে, যিনি ‘চেসকালাই' নামেই বেশি পরিচিত, সম্প্রতি ফোর্ড এবং মার্কিন পাবলিক ব্রডকাস্টিং সার্ভিস পিবিএস এর সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ হয়েছেন টেলিভিশন শো করার জন্য৷

শো-র নাম ‘ফাইন্ডিং ইয়োর রুটস,' এতে বিখ্যাত মার্কিন নাগরিক এবং গবেষকদের পারিবারিক ইতিহাস এবং পরিচয় তুলে ধরা হয়৷ রামসের জন্য অবশ্য এধরনের প্রোগ্রাম নতুন নয়৷ ইউটিউবে তাঁর ভিলগ ‘শিট হোয়াইট গার্লস সে... টু ব্ল্যাক গার্লস' বেশ জনপ্রিয়৷

তাঁর প্যারোডি ভিডিওগুলো আসলে আরেক ভাইরাল ভ্লগ ‘শিট গার্লস সে' থেকে উৎসাহ পেয়ে তৈরি৷ গত বছর ডয়চে ভেলেকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে রামসে জানান, বর্ণবাদ নিয়ে নিত্যদিনের অভিজ্ঞতা শেয়ার করতে চেয়েছিলেন তিনি৷ আর সেখান থেকেই তাঁর ভ্লগের সূচনা৷

শুধু রামসে নন, আরো কয়েকজন জনপ্রিয় ইউটিউবার এখন তাদের জনপ্রিয়তাকে পুঁজি করে টেলিভিশনের দিকে পা রাখছেন৷ এদের একজন রেবেকা ব্রাউন৷ তিনি বলেন, ‘‘আমি স্কুলে তেমন জনপ্রিয় ছিলাম না৷ এরপর হঠাৎ আমি এই ওয়েবসাইটের সন্ধান পাই যেখানে একে অপরের সঙ্গে সম্পৃক্ত৷ এটা সত্যিই এক ‘কুল' জায়গা যেখানে আমি কথা বলতে পারি এবং সেটা শোনার মানুষও রয়েছে৷''

ব্রাউন, যিনি ইন্টারনেটে ‘বেকি-ও' নামে বেশি পরিচিত, তাঁর নিজের চুল নিজেই উপড়ে ফেলার মানসিক ব্যাধি ‘ট্রিকোটেলোমেনিয়া' নিয়ে প্রকাশ্যে কথা বলেন৷ ইউটিউবে ব্রাউনের ভ্লগ অনুসরণ করেন দুই লাখের বেশি মানুষ৷

তিনি এখন সোশ্যাল মিডিয়া বিষয়ক বিবিসির টেলিভিশন অনুষ্ঠান ‘বিবিসি ট্রেন্ডিং'-এর সঙ্গে কাজ করার বিষয়ে আলোচনা করছেন৷ ইউটিউবও ভবিষ্যতে ব্রাউনের সঙ্গে আরো ঘনিষ্ঠভাবে কাজ করার আগ্রহ প্রকাশ করেছে৷ তরুণদের রাজনীতিতে ভোট দানে উৎসাহিত করতে কিছু অনুষ্ঠান করতে পারেন ব্রাউন, যা ইউটিউব তাদের ‘বাইট ইন ব্যালট' চ্যানেলে প্রদর্শন করবে৷

ইউটিউবের লাটরাশ মনে করেন, ভিডিও ব্লগারদের অকৃত্রিমতা তাদেরকে তাদের দর্শকদের সঙ্গে সম্পৃক্ত হতে সহায়তা করে৷ তিনি বলেন, ‘‘তারা তাদের সমর্থকদের শুধু দর্শক হিসেবে বিবেচনা করে না, তারা তাদেরকে পুরো প্রক্রিয়ার একটি অংশ মনে করে৷ তারা তাদেরকে অনুষ্ঠানের সঙ্গে সম্পৃক্ত করে, আইডিয়া শেয়ার করে৷''

ভ্লগিং যেভাবে টেলিভিশনকে বদলে দিচ্ছে

আসলে ভিডিও ব্লগারদের জনপ্রিয়তা এবং গ্রহণযোগ্যতা টেলিভিশন চ্যানেলগুলোকে মেধা বাছাই সহজ করে দিয়েছে৷ মাল্টি-চ্যানেল-নেটওয়ার্ক মিডিয়াক্রাফ্ট-এর ভাইস প্রেসিডেন্ট ক্রিস্টফ পোরোপাটিটস এই বিষয়ে বলেন, ‘‘আগে লং কাস্টিং এবং এডিটোরিয়াল টিমের সিদ্ধান্তের ভিত্তিতে ট্যালেন্ট বাছাই করতে হতো, এখন দর্শকই তাদের বেছে দিচ্ছেন৷''

লাটরাশ-ও বিষয়টি একইভাবে দেখছেন৷ তিনি বলেন, ‘‘দর্শকই নির্ধারণ করছেন কে তারকা, এবং কে তারকা নন৷''

নির্বাচিত প্রতিবেদন