1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিজ্ঞান পরিবেশ

ভিটামিন ট্যাবলেটের মিথ

সুস্থ থাকার জন্য ইউরোপে অ্যামেরিকায় ভিটামিন ট্যাবলেট খাওয়ার প্রবণতা খুব বেশি৷ এই ট্যাবলেট কিনতে ডাক্তারের প্রেসক্রিপশনও প্রয়োজন হয়না৷ ইদানীং গবেষকরা এর উপকারিতা নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করছেন৷

default

অ্যামেরিকার একটি ওষুধের দোকানে ভিটামিন ট্যাবলেটের সম্ভার

মাল্টিভিটামিন ট্যাবলেট৷ এই একখানা ট্যাবলেটেই অনেক রকমের ভিটামিন৷ শীত জানান দিতে শুরু করলেই টপাটপ ভিটামিন সি ট্যাবলেট খেয়ে নেয়া৷ অন্য সময়ে মাল্টি ভিটামিন৷ কিন্তু সত্যিই কী কাজ হয়? ভিটামিন ট্যাবলেটের মিথটা নিয়ে সংশয়ী গবেষকরা৷

জার্মানিতে বলুন, ইউরোপের অন্যান্য দেশে বলুন বা অ্যামেরিকায় বলুন, ফার্মেসি, ড্রাগস্টোর আর সুপার মার্কেটের তাক ভিটামিন ট্যাবলেটে বোঝাই৷ ভিটামিন সি, ভিটামিন ডি, ভিটামিন ই, মাল্টিভিটামিন থরে থরে সাজানো৷ কোন ডাক্তারের প্রেসক্রিপশন প্রয়োজন নেই৷ তাক থেকে শুধু তুলে নিন৷ ব্যস, মনে করলেন আপনার শরীরে ভিটামিনের ঘাটতি এই ট্যাবলেট পুষিয়ে দেবে৷ কিন্তু এমনটা মনে করার কোন কারণ নেই, বলছেন একদল মার্কিন গবেষক৷

এই তো গত বছর গবেষকরা দীর্ঘমেয়াদী এক গবেষণাকাজের ফল প্রকাশ করেন৷ এক লাখ ষাট হাজারেরও বেশি মধ্যবয়সি মহিলাদের ওপর চালানো হয় এই বৈজ্ঞানিক সমীক্ষা৷ প্রাপ্ত তথ্য উপাত্ত থেকে দেখা গেছে, মাল্টিভিটামিন ট্যাবলেট খেয়েছেন যারা, তাঁদের স্বাস্থ্য যারা ট্যাবলেট খাননি, তাদের চেয়ে অপেক্ষাকৃত ভাল, এমন নয়৷ অন্তত ক্যান্সার, হার্টের রোগ বা স্ট্রোক-এর মত বড় বড় অসুখের কথা বিবেচনা করলে৷ গবেষণা রিপোর্টের লেখিকা ম্যারিয়ান নয়হাউজার বলেছেন: ‘‘এমনকি যেসব মহিলা যথেষ্ট ভিটামিন সমৃদ্ধ খাবার খাননি, তাঁরাও মাল্টিভিটামিন ট্যাবলেট খেয়ে উপকার পাননি৷''

ডঃ নয়হাউজার অ্যামেরিকার সিয়াটেলের ফ্রেড হাচিনসন ক্যান্সার রিসার্চ সেন্টারের ক্যান্সার প্রতিরোধ কর্মসূচিতে কাজ করছেন৷ তিনি বলছেন: ‘‘ মাল্টিভিটামিন ট্যাবলেটে হয়ত দু ডজন উপাদান থাকতে পারে৷ কিন্তু টাটকা শাক সব্জি আর ফলে রয়েছে অন্য আরও শতাধিক উপকারী যৌগ৷ তার মানে একখানা মাল্টিভিটামিন ট্যাবলেট খেলে বহু উপকারী যৌগ থেকে বঞ্চিত হবে শরীর৷''

১৯৭০-এর দশকে নোবেলজয়ী মার্কিন বিজ্ঞানী লাইনাস পলিং এরকম একটা ধারণা সাধারণ মানুষের মাথায় ঢুকিয়ে দেন যে ভিটামিন সি খেলে ঠান্ডা লাগবেনা৷ উল্লেখ্য, বিজ্ঞানী পলিং চিকিৎসা বিজ্ঞানে এবং রসায়নেও নোবেল পুরস্কার পান৷ পলিং-এর তত্ত্ব এমনটাই জনপ্রিয় হয়ে ওঠে যে ড্রাগস্টোরগুলোর তাকে নানা জাতের ভিটমিন সি ট্যাবলেটের সমাহার৷ কিন্তু গবেষণার ফল থেকে ভিন্ন ফল পাওয়া গেছে৷ কয়েক দশক ধরে ১১,০০০ মানুষের ওপর চালিত পরীক্ষার ফল বিশ্লেষণ করেন গবেষকরা৷ ২০০৭ সালে তাঁরা এই সিদ্ধান্তে আসেন যে ভিটামিন সি ঠান্ডা প্রতিহত করেনি৷ অন্তত ঠান্ডা লাগার সময়কালটাকে কী কমিয়ে দিতে পারে ভিটামিন সি ট্যাবলেট? তেমন কিছু কমেনা, বলছেন গবেষকরা৷ সাধারণত বয়স্কদের মধ্যে ঠান্ডা লাগার লক্ষণগুলো থাকে বছরে ১২ দিন৷ প্রতিদিন ভিটামিন সি পিল খেলে তা ১১ দিনে নামতে পারে৷ বাচ্চাদের ক্ষেত্রে তা বছরে ২৮ দিন থেকে ২৪ দিনে নামতে পারে৷ আর তাই গবেষকদের সিদ্ধান্ত: হ্রাসের পরিমাণ যেহেতু নগণ্য সেহেতু সারা বছর ধরে ট্যাবলেট খেয়ে যাওয়ার কোন যুক্তি নেই৷ তাছাড়া সর্দি কাশির লক্ষণগুলো দেখা দেয়ার পর ভিটামিন সি ট্যাবলেট খেলে তাতে কোন কাজই হবেনা বলে তাঁরা মনে করেন৷

প্রতিবেদক : আব্দুল্লাহ আল-ফারূক

সম্পাদনা : দেবারতি গুহ

সংশ্লিষ্ট বিষয়