1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

ভারত-বাংলাদেশ সমুদ্রসীমা বিরোধ: ন্যায্যতার সমাধান

বাংলাদেশের সঙ্গে ভারতের সমুদ্রসীমা নিয়ে আন্তর্জাতিক আদালতের রায়কে ন্যায্যতার সমাধান বলে উল্লেখ করেছেন বিশ্লেষকরা৷ তাঁরা মনে করেন, এতে বিরোধ নিষ্পত্তি হয়েছে এবং দুই দেশই তার প্রাপ্য অংশ পেয়েছে৷

বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী মঙ্গলবার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এ রায় প্রকাশ করেন৷ জানান, ‘‘বঙ্গোপসাগরে বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে বিরোধপূর্ণ এলাকা ছিল প্রায় ২৫,৬০২ বর্গ কিলোমিটার৷ এর মধ্যে ১৯,৪৬৭ বর্গ কিলোমিটার এলাকা পেয়েছে বাংলাদেশ৷''

পররাষ্ট্রমন্ত্রীর কথায়, ‘‘এই রায়ের ফলে বাংলাদেশ শেষ পর্যন্ত ১ লাখ ১৮ হাজার ৮১৩ বর্গ কিলোমিটারের বেশি টেরিটোরিয়াল সমুদ্র, ২০০ নটিক্যাল মাইল একচ্ছত্র অর্থনৈতিক অঞ্চল এবং চট্রগ্রাম উপকূল থেকে ৩৫৪ নটিক্যাল মাইল পর্যন্ত মহীসোপানের তলদেশে অবস্থিত সব ধরনের প্রাণিজ ও অপ্রাণিজ সম্পদের উপর সার্বভৌম অধিকার প্রতিষ্ঠা করতে পেরেছে৷''

নেদারল্যান্ডসের স্থায়ী সালিশি আদালত (পার্মানেন্ট কোর্ট অফ আর্বিট্রেশন বা পিসিএ) সোমবার এ রায় ঘোষণা করে৷ রায়ের কপি সোমবার দুপুরেই বাংলাদেশের কাছে হস্তান্তর করা হয়৷ কিন্তু আদালতের কার্যবিধি অনুযায়ী, রায়টি ৮ই জুলাই, মঙ্গলবারের আগে জনসমক্ষে প্রকাশ করার বিষয়ে বাধ্যবাধকতা ছিল৷

পররাষ্ট্রমন্ত্রী সংবাদ সম্মেলনে রায় জানাবার পর বলেন, ‘‘রায় পর্যালোচনায় উভয়ের জন্য বিজয় নিশ্চিত হয়েছে৷ এ বিজয় বন্ধুত্বের বিজয়, বাংলাদেশ ও ভারতের সাধারণ মানুষের বিজয়৷'' এছাড়া ভারত এই রায় মেনে নেয়ায় ভারতকে ধন্যবাদও জানান তিনি৷

Zyklon Phailin Küste Golf von Bengalen 11.10.2013

‘বঙ্গোপসাগরে বিরোধপূর্ণ এলাকার মধ্যে ১৯,৪৬৭ বর্গ কিলোমিটার এলাকা পেয়েছে বাংলাদেশ

অন্যদিকে, আন্তর্জাতিক সমুদ্র আইন বিশেষজ্ঞ প্রকৌশলী ম. ইমামুল হক ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘আদালত ন্যায্যতার সঙ্গে বাংলাদেশে ও ভারতের মধ্যে সমুদ্রসীমা বিরোধের নিষ্পত্তি করেছে৷ এতে উভয়ের অধিকার প্রতিষ্ঠিত হয়েছে৷''

তিনি একে ‘উইন উইন সিচুয়েশন' বলে ব্যখ্যা করেন৷ তাঁর কথায়, ‘‘বাংলাদেশের দাবি করা মোট ১,১১,৬৩১ বর্গ কিলোমিটার সমুদ্রসীমার মধ্যে ভারতের দাবি ছিল ২৫,৬০২ বর্গ কিলোমিটারের৷ আদালতের রায়ে ভারতের দাবিও প্রতিষ্ঠিত হয়েছে৷ কারণ তারা ৬,১৩৫ বর্গ কিলোমিটারের অধিকার পেয়েছে৷''

ইমামুল হক মনে করেন, এই রায়ের ফলে বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে সম্পর্কের আরো উন্নয়ন ঘটবে৷ কারণ ন্যায্যতার ভিত্তিতে একটি বিরোধের সমাধান হলো৷ আর ন্যায্যতার ভিত্তিতে দুই প্রতিবেশী স্থলসীমাসহ আরো অনেক বিরোধের নিষ্পত্তি করতে পারবে বলেও তিনি আশা করেন৷

নেদারল্যান্ডসের হেগে স্থায়ী সালিশি আদালতে ২০১৩ সালের ৯ থেকে ১৮ই ডিসেম্বর সমুদ্রসীমা নির্ধারণের পক্ষে বাংলাদেশ ও ভারত যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করে৷

উল্লেখ্য, মিয়ানমার ও ভারতের সঙ্গে সমুদ্রসীমা নিয়ে ২০০৯ সালের ৮ই অক্টোবর সালিশি আদালতে যায় বাংলাদেশ৷ ২০১২ সালের ১৫ই মার্চ মিয়ানমারের সঙ্গে মামলায় বাংলাদেশের পক্ষে রায় দেয় আদালত৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়