1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

ভারত-বাংলাদেশ

ভারত-বাংলাদেশের বন্ধন কোনো অবস্থাতেই টলবে না: মোদী

এই দু'দেশের সম্পর্ক সময়ের পরীক্ষায় উত্তীর্ণ, তাই তার নড়চড় হবে না৷ প্রধানমন্ত্রী মোদী তাঁর ‘মন কি বাত' বেতার ভাষণে এই মর্মেই বাংলাদেশকে বন্ধুত্বের জোরালো বার্তা দেন৷ শেখ হাসিনার দিল্লি সফরের মুখে যা খুবই তাৎপর্যপূর্ণ৷

সব সংশয় ও দোলাচল কাটিয়ে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দিল্লি আসছেন আগামী ৭ই এপ্রিল৷ গত রবিবার মাসিক ‘মন কি বাত' বা ‘মনের কথা' শীর্ষক বেতার ভাষণে বাংলাদেশের ৪৬তম স্বাধীনতা দিবসকে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী মোদী অন্যায়-অবিচারের বিরুদ্ধে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের ঐতিহাসিক জয়ের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে বলেন, ভারত চিরদিনই বাংলাদেশের এক শক্তিশালী সহযোগী দেশ হয়ে থাকবে৷ শুধু তাই নয়, বাংলাদেশের শান্তি, নিরাপত্তা এবং উন্নয়নের লক্ষ্যে দেশটির সঙ্গে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে কাজ করে যাবে ভারত৷

বলা বাহুল্য, শেখ হাসিনার দিল্লি সফরের ঠিক মুখে বন্ধুত্বের এই জোরাল বার্তা দক্ষিণ এশিয়ার ভূ-রাজনৈতিক প্রেক্ষাপটে বিশেষ তাৎপর্যপূর্ণ বলে মনে করছেন দিল্লির কূটনৈতিক মহল৷ এ সফর দুই দেশের দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের নব মূল্যায়ন ঘটতে পারে বলে ধারণা তাঁদের৷ শুধু তাই নয়, এতে করে পারস্পরিক দেোয়া-নেওয়ার একটা রোডম্যাপ তৈরি হতে পারে বলে আশা৷ আর সেজন্য পররাষ্ট্র মন্ত্রকে কূটনৈতিক আদান-প্রদান চলেছে লাগাতার৷

মোদী সরকার চায় এবারের দিল্লি সফরে শেখ হাসিনা সাফল্যের কিছু তোফা যেন সঙ্গে নিয়ে যেতে পারেন৷ অর্থাৎ বাংলাদেশের আগামী নির্বাচনে সেটা যাতে শেখ হাসিনা কাজে লাগাতে পারেন৷ যদিও এই রোডম্যাপের প্রধান কাঁটা তিস্তা জলবণ্টন চুক্তি ইস্যু৷ সেটা কি এই যাত্রায় চূড়ান্ত করা সম্ভব হবে?  প্রশ্ন সেটাই৷ অনেকে মনে করছেন, এ বিষয়ে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যেভাবে তাঁর অবস্থানে অনড়, তাতে চুক্তিতে শীলমোহর পড়ার বিষয়ে সংশয় রয়ে গেছে৷ তাঁর অভিযোগ, রাজ্যকে পাশে না নিয়ে মোদী সরকার তিস্তা চুক্তি চূড়ান্ত করতে চলেছে৷ তৃণমূল কংগ্রেস সরকার সেটা কোনোমতেই ‘সেট' হতে দেবে না৷ গত সোমবার সংসদে তৃণমূল সাংসদ সৌগত রায় সতর্ক করে দেন, রাজ্যের স্বার্থ বিকিয়ে প্রতিবেশী দেশের সঙ্গে জলবণ্টন চুক্তি সামিল হওয়া সম্ভব নয়৷ সেই দেশ যত বড় বন্ধু দেশই হোক না কেন৷

তৃণমূল নেত্রীর মতে ১৯৯৬ সালের গঙ্গা জলবণ্টন চুক্তির ফলে হলদিয়া বং ফরাক্কা বন্দরের নাব্যতা কমে গেছে৷ বড় বড় জাহাজ ঢুকতে পারছে না৷ শুখা মরশুমে, কেন্দ্র-রাজ্য সম্পর্ক নানা দিক থেকেই এখন তলানিতে এসে ঠেকেছে৷ মোদীর বিরুদ্ধে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের তর্জন-গর্জনে সমানে চলেছে, যদিও নোট বদল কাণ্ড নিয়ে তৃণমূল নেত্রীর আক্রমণে মোদী সরকারের গায়ে আচঁড়টি পর্যন্ত লাগেনি৷

মোদী সরকার আর কী কী তুলে দিতে পারেন ঢাকাকে? জল বিবাদ দু'দেশের প্রধান সমস্যা৷ এই প্রসঙ্গে সমুদ্র বিজ্ঞানী সুগত হাজরা ডয়চে ভেলেকে গঙ্গার ভাঁটির দিকে গঙ্গা বেসিন উন্নয়ন প্রকল্পের কথা বলেন৷ বলেন বেসিনের ভাটির দিকে যেখানে উভয় দেশের সমস্যাগুলি অভিন্ন, সেখানে বেসিন-ভিত্তিক যৌথ ম্যানেজমেন্ট গড়ে তোলার কথা৷ তাঁর মতে, এতে সুন্দরবন এলাকার বিকাশ ত্বরান্বিত হবে৷ তিস্তা, গঙ্গার বিকল্প হিসেবে ভারত-বাংলাদেশের মধ্যে আরও যে ৫৪টি অভিন্ন নদী আছে৷ সেইসব নদীর জলের ভাগ বাঁটোয়ারায় সহমত গড়ে তোলা৷ ভারতের সীমান্ত সড়ক পথে বাংলাদেশি পণ্য চলাচলের সুবিধা, বাংলাদেশকে অতিরিক্ত বিদ্যুৎ সরবরাহ করাসহ অবকাঠামো গড়ে তোলা, সন্ত্রাস দমনে সহযোগিতা বাড়ানো, ঢাকা-কলকাতার মধ্যে যাতায়াতকারী মৈত্রি এক্সপ্রেসকে বাতানুকুল করা ইত্যাদি৷ মোটকথা, দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক যাতে স্রেফ তিস্তা চুক্তির ওপর নির্ভরশীল না হয়৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ভারত-বাংলাদেশ সম্পর্ক এগিয়ে নিয়ে যেতে ঢাকার আন্তরিকতায় ঘাটতি নেই৷ তা সে জঙ্গি দমন হোক, অর্থনৈতিক সহযোগিতা হোক বা সাংস্কৃতিক৷ সাম্প্রতিককালে ভারতকে যেটা সবথেকে বেশি ভাবিয়ে তুলেছে, সেটা হলো চীনের সঙ্গে বাংলাদেশের মাখামাখি, বিশেষ করে প্রতিরক্ষা সহযোগিতার ক্ষেত্রে৷ বেইজিং দু'টি সাবমেরিন দিচ্ছে ঢাকাকে, মাত্র ২১ কোটি ডলার৷ প্রথমটি ইতিমধ্যেই সরবরাহ করা হয়েছে আর পরেরটিও সরবরাহের মুখে৷ শুধু তাই নয়, বাংলাদেশের প্রতিরক্ষা বাহিনীর আধুনিকীকরণেও প্রধান ভূমিকা নিতে চলেছে বেইজিং৷ বিশ্লেষকরা মনে করেন, ভারতকে চারপাশ থেকে ঘিরে রাখার এটা কৌশলগত অভিসন্ধি চীনের৷ অথচ ভৌগলিক দিক থেকে বাংলাদেশের তিন দিক ভারতের সঙ্গে সংলগ্ন৷ জলপথেও বাংলাদেশের বিপদের কোনো আশঙ্কা নেই৷ কাজেই সাবমেরিন কেনার খুব একটা যুক্তি নেই৷ দ্বিতীয়ত এর ভূ-রাজনৈতিক উদ্দেশ্য, দিল্লি ও ঢাকার মধ্যে একটা অবিশ্বাসের বাতাবরণ তৈরি করা৷ তৃতীয়ত, দক্ষিণ এশিয়ায় চীন তার আধিপত্য বিস্তার করতে মরিয়া৷ চীন-পাকিস্তান বাণিজ্যিক করিডর তার অন্যতম নজির৷

কয়েক মাস আগে ভারতের প্রতিরক্ষা মন্ত্রী মনোহর পারিকর ঢাকায় যান৷ দৃষ্টি আকর্ষণ করেন ভারতের দিক থেকে বিষয়টির সংবেদনশীলতার প্রতি হাসিনা সরকারের৷ দ্বিপাক্ষিক সামরিক সহযোগিতা বাড়ানোর ওপর জোর দেন৷ সামরিক সরঞ্জাম সরবরাহে ভারতের আগ্রহের কথা জানান৷ এ জন্য উদার শর্তে ঋণ দিতে রাজি দিল্লি৷ শেখ হাসিনার দিল্লি আসার আগে প্রতিরক্ষা সহযোগিতার খুঁটিনাটি বিষয়ের ‘ফিনিশিং-টাচ' দিতে ভারতের সেনাপ্রধান হরিশ রাওয়াত ঢাকা যাচ্ছেন আগামী বৃহস্পতিবার৷

কী মনে হয় বন্ধু, তিস্তা চুক্তি কি শেষ পর্যন্ত হবে? আপনার মতামত লিখুন নীচের ঘরে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়