1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

ভারত-পাকিস্তান

ভারত-পাক রাজনৈতিক উত্তেজনার বলি কি মানবিকতা?

ভারত-পাকিস্তানের সম্পর্কের অবনতির খেসারত কি সাধারণ মানুষকে দিতে হবে? ক্যানসারে আক্রান্ত এক পাকিস্তানি তরুণীর ভারতে আসার ভিসা মঞ্জুর না হওয়ায় উঠেছে প্রশ্ন৷ কিন্তু কেন দেওয়া হয়নি? অবস্থান স্পষ্ট করলেন সুষমা স্বরাজ৷

সন্ত্রাস এবং অন্যান্য কারণে ভারতের সঙ্গে পাকিস্তানের দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক আজ তলানিতে৷ এরই জেরে মানবিকতাও আজ প্রশ্নের মুখে৷ পাকিস্তানে জেলবন্দি ভারতীয় নাগরিক কুলভূষণ যাদবের মা অবন্তিকা যাদব ছেলের সঙ্গে দেখা করতে চেয়ে পাকিস্তানি ভিসার জন্য আবেদন করেছিলেন৷ পাকিস্তান যাতে সেই আবেদন মঞ্জুর করে, সেজন্য ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রীর পররাষ্ট্র বিষয়ক উপদেষ্টা সারতাজ আজিজকে ব্যক্তিগতভাবে একটি চিঠিও দেন৷ কিন্তু ভিসা দেওয়া তো দূরের কথা, আজিজ তাঁর চিঠির প্রাপ্তি স্বীকারের কূটনৈতিক সৌজন্য পর্যন্ত দেখাননি৷

এ নিয়ে একের পর এক টুইটে ক্ষোভ প্রকাশ করেন ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ৷

এ বছরের প্রথমদিকে চরবৃত্তির অভিযোগে পাকিস্তানের সামরিক আদালত কুলভূষণকে ফাঁসির আদেশ দেয়৷এরপর নতুন দিল্লির বারংবার অনুরোধ সত্ত্বেও কুলভূষণকে কনসুলার সুবিধাটুকু পর্যন্ত দেওয়া হয়নি৷ ভারত বিষয়টি নিয়ে আন্তর্জাতিক আদালতে গেলে গত ১৮ই মে আন্তর্জাতিক আদালত কুলভূষণের ফাঁসি কার্যকর না করার নির্দেশ দেয়৷

পাশাপাশি গত সপ্তাহে পাকিস্তানি মিডিয়ায় প্রকাশিত এক খবরে বলা হয়, ফয়জা তনভির নামে ক্যানসার আক্রান্ত ২৫ বছরের এক পাকিস্তানি তরুণিকে চিকিৎসার জন্য ভারতে যাবার মেডিক্যাল ভিসা দিতে অস্বীকার করেছে ভারত৷ তনভিরের মা টুইট করে সুষমার কাছে মেয়ের প্রাণ বাঁচানোর আবেদন জানিয়েও নাকি কোনো সাড়া পাননি৷ এ প্রসঙ্গে পররাষ্ট্রমন্ত্রী টুইট করে জানান যে, ভারত কখনও মেডিক্যাল ভিসা দিতে আপত্তি করেনি৷ কিন্তু ইসলামাবাদ নতুন যে ভিসা নিয়ম চালু করেছে, তাতে বলা হয়েছে ভারতে যাবার ভিসার জন্য সরতাজ আজিজের সুপারিশ দরকার৷ এখানে নতুন দিল্লি কী করতে পারে? পাকিস্তান নিজেই তার নাগরিকদের দুঃখ-কষ্ট বুঝতে চায় না৷ তা না হলে মেডিক্যাল ভিসার জন্য সুপারিশ করছে না কেন পাকিস্তানি কর্তৃপক্ষ? কেন এই নতুন নিয়ম? সারতাজ আজিজের মানবিক বিবেক কেন সাড়া দিচ্ছে না? সুষমার পাল্টা প্রশ্ন৷

কিছুদিন আগের কথা৷ এক পাকিস্তানি দম্পতির আড়াই বছরের শিশু সন্তানের জটিল হার্ট অপারেশনের জন্য ঐ দম্পতি সুষমা স্বারাজের কাছে টুইটে আবেদন করেছিলেন এবং সঙ্গে সঙ্গে তাঁদের মেডিক্যাল ভিসা মঞ্জুর করা হয়৷

ফয়জা তনভিরের মুখের ভেতরে একটি টিউমার হয়েছে, যা ক্যানসার-আক্রান্ত৷ অবিলম্বে কেমোথেরাপি না করলে তা দ্রুত ছড়িয়ে পড়ার আশংকা৷ পাকিস্তানের জিন্না হাসপাতালে অপারেশন করা যায়৷ কিন্তু সেখানকার ডাক্তারদের মতে, কোমোথেরাপিতে তাঁর চোখ, নাক ও কানের ক্ষতি হোতে পারে৷ অক্ষিবলয় তুলে ফেলতে হতে পারে৷ তনভিরের মা তাই তখন দিল্লির লাগোয়া গাজিয়াবাদের ইন্দ্রপ্রস্ত ডেন্টাল কলেজ ও হাসপাতাল, আইডিসিএইচ-এর সঙ্গে যোগাযোগ করেন৷ কারণ উন্নত দেশে ক্যানসার চিকিৎসার খরচ ভারতের তুলনায় বহুগুণ বেশি৷ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তাঁদের ২০ দিনের মেডিক্যাল ভিসা নিয়ে আসতে বলেন৷ চিকিৎসাবাবদ তনভিরের পরিবার ১০ লাখ টাকা অগ্রিম জমা দেন৷ কিন্তু ইসলামাবাদের ভারতীয় হাই কমিশন দু'দেশের সম্পর্কের অবনতির দোহাই দিয়ে মেডিক্যাল ভিসার আবেদন খারিজ করে দেয়৷ অন্তত এমনটাই অভিযোগ তনভিরের মা পরভিন আখতারের৷ তবে ভারতীয় হাইকমিশন জানিয়েছে, সারতাজ আজিজ সুপারিশ করলে তা অবশ্যই বিবেচিত হবে৷ এখন দু'দেশের রাজনীতিকদের বিবেকের কাছে তনভিরের মায়ের মানবিক আবেদন মেয়ের প্রাণ বাঁচানোর৷ উভয়দেশের সাধারণ মানুষ মনে করে, এইসব ক্ষেত্রে রাজনীতিকে টেনে আনা নেহাতই অমানবিক৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

সংশ্লিষ্ট বিষয়