1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

‘ভারত ধর্ষকের দেশ নয়', মেনে নিলেন অধ্যাপক

জার্মান এক অধ্যাপিকাকে নিয়ে কয়েকদিন বেশ আলোচনা হলো৷ তাঁর বিরুদ্ধে অভিযোগ, এক ভারতীয় ছাত্রকে তিনি শুধু দেশটিতে ‘ধর্ষণ বেড়ে যাওয়ার' কারণে ইন্টার্নশিপের সুযোগ দেননি৷পরে নিন্দার মুখে ভুল স্বীকার করে ক্ষমা চেয়েছেন তিনি৷

‘ইন্ডিয়া'জ ডটার' নিয়ে আলোচনা-সমালোচনা থিতিয়ে পড়ার আগেই ভারতের এক ছাত্রের ইন্টার্নশিপের আবেদন প্রত্যাখ্যান করে সংবাদ শিরোনামে চালে আসেন আনেটে বেক-সিকিঙার৷ ভারতে জার্মানির রাষ্ট্রদূত মিশায়েল স্টাইনার তাঁর কঠোর সমালোচনা করায় অবশেষে নিজের ভুল স্বীকার করে ক্ষমাও চেয়েছেন জার্মান এই অধ্যাপিকা৷

লাইপসিশ বিশ্ববিদ্যালয়ের বায়োকেমিস্ট্রির অধ্যাপিকা আনেটে বেক-সিঙারের বিরুদ্ধে অভিযোগ, ভারতে ধর্ষণ বেড়ে যাওয়ার কারণে এক ছাত্রকে জার্মানিতে ইন্টার্নশিপ করতে দেননি তিনি৷ এ খবর চোখে পড়া মাত্রই চিঠি লিখে বেক-সিকিঙারকে একরকম ভর্ৎসনাই করেন ভারতস্থ জার্মান রাষ্ট্রদূত মিশায়েল স্টাইনার৷ চিঠিতে তিনি লিখেছেন, ‘‘আমি জানতে পেরেছি, শুধু ‘ভারতে ধর্ষণ সমস্যা'-র কারণ উল্লেখ করে আপনি একটি ছেলেকে ইন্টার্নশিপের সুযোগ দেননি৷ আমি কঠোরভাবে আপত্তি জানাচ্ছি৷ একটা কথা খুব পরিষ্কারভাবে বলে দিতে চাই আর তা হলো, ভারত ধর্ষকের দেশ নয়৷''

ভারতে ধর্ষণ বেড়েছে এ কথা অস্বীকার করেননি স্টাইনার৷ ভারত সরকারও কখনো তা অস্বীকার করে না৷ তবে কোনো দেশের কোনো সমস্যার কারণে সে দেশের কোনো নিরপরাধ মানুষকে কোনো অধিকার থেকে বঞ্চিত করার পক্ষে কি কোনো যুক্তি দাঁড় করানো যায়? আনেটে বেক-সিকিঙার কোনো যুক্তি দেখাননি৷

বরং নিজের ভুল স্বীকার করে বলেছেন, ‘‘আমার কথায় যাঁদের মনে আঘাত লেগেছে তাঁদের প্রত্যেকের কাছে আন্তরিকভাবে ক্ষমা চাই৷''

তবে এর পাশাপাশি আনেটে বেক-সিকিঙার জানিয়েছেন, কথিত ছাত্রকে ভারতে ধর্ষণ বেড়ে যাওয়ার কারণে নয়, আসলে তাঁর ল্যাব পূর্ণ হয়ে যাওয়ার কারণেই ইন্টার্নশিপের সুযোগ দেয়া সম্ভব হয়নি৷ তিনি আরো জানান, প্রশ্নোত্তরের ওয়েবসাইট ‘কোরা'-য় এ সম্পর্কে যা লেখা হয়েছে, তা পুরোপুরি ঠিক নয়৷ কোরা-য় লেখা হয়েছিল, কথিত ছাত্রকে সুযোগবঞ্চিত করার কারণ উল্লেখ করতে গিয়ে আনেটে বেক-সিকিঙার বলেছেন, ‘‘আমি ভারতের কোনো ছেলেকে ইন্টার্নশিপের সুযোগ দেই না৷ প্রায়ই শুনি ভারতে ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে৷ ধর্ষণকে তো আমি সমর্থন করতে পারি না৷''

স্টাইনারের কড়া চিঠির পর ক্ষমা প্রার্থনার সময় আনেটে বেক-সিকিঙার দাবি করেছেন, জার্মান এবং ভারতীয়দের এক সম্মীলনে তিনি ধর্ষণ সম্পর্কে কিছু কথা বলেছিলেন, সেই কথাগুলোই ছাত্রের প্রসঙ্গে মিলিয়ে প্রচার করেছে কোরা৷

এসিবি/ডিজি (রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন