1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিজ্ঞান পরিবেশ

ভারতে ‘সুপারবাগ' নিয়ে আবার বিতর্ক

পানীয় জলে ‘সুপারবাগ এনডিএম-১' নিয়ে ফের শুরু হয়েছে বিতর্ক৷ ব্রিটিশ মেডিক্যাল পত্রিকা ‘ল্যানসেট'এ প্রকাশিত এক প্রবন্ধে দাবি করা হয়েছে, দিল্লির পানীয় জলের নমুনায় পাওয়া ব্যাকটিরিয়া অ্যান্টি-বায়োটিক প্রতিরোধক৷

default

দিল্লির পানীয় জলে এনডিএম-১ নিয়ে চলছে বিতর্ক

দিল্লির পানীয় জলের নমুনায় ব্রিটিশ চিকিৎসা বিজ্ঞানীরা কলেরা ও আমাশয়ের ব্যাকটিরিয়ায় এনডিএম-১ নামে এমন এক জিন পেয়েছেন, যার ওপর কোন অ্যান্টি-বায়োটিক ওষুধ কাজ করেনা৷ এই খবর প্রকাশিত হবার পর সরকার ও চিকিৎসা বিশেষজ্ঞদের এক উচ্চ পর্যায়ের বৈঠকে বিষয়টি পর্যালোচনা করা হয়৷ তাতে বলা হয়, কলেরা ও আন্ত্রিক রোগের ব্যাকটিরিয়ায় বর্ধিত মাত্রায় ড্রাগ-প্রতিরোধক ক্ষমতার কোন প্রমাণ পাওয়া যায়নি৷ কাজেই এ নিয়ে অযথা ভয় পাবার কারণ নেই৷ জাতীয় রোগ নিয়ন্ত্রক কেন্দ্রের বিশেষজ্ঞরা কলেরা ব্যাকটিরিয়ার মধ্যে অ্যান্টি-বায়োটিক প্রতিরোধক প্যাটার্ন পরীক্ষা করে দেখছেন৷ তাঁদের মতে, কোন ক্লিনিক্যাল বা বার্ড-ফ্লু-এর মত মহামারির বৈশিষ্ট্য ধরা পড়েনি – জনস্বাস্থ্যের ওপর যার ব্যাপক প্রভাব পড়তে পারে৷ ভারতের কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানাচ্ছে, পরিমাণ অল্প হলেও বিশ্বের সর্বত্রই ওই ব্যাকটিরিয়ার অস্তিত্ব আছে৷ শুধু ভারতকে নিশানা করাটা ঠিক নয়৷

Delhi City Bus

সুপারবাগ এনডিএম-১ নিয়ে ভারত কড়া অবস্থান নিচ্ছে

গত বছর গবেষণাকারীরা দিল্লির ১২ কিলোমিটার এলাকায় চোঁয়ানো জলের ১৭১টি নমুনা এবং সরবরাহ করা পানীয় জলের ৫০টি নমুনা পরীক্ষা করে যথাক্রমে ১৭টি ও ২টিতে ঐ ব্যাকটিরিয়ার জিন পান৷ ঐ জিন থেকে তৈরি এনডিএম-১ এনজাইম অ্যান্টি-বায়োটিক প্রতিরোধক৷

এই এনডিএম-১ বা সুপারবাগ কী এবং কীভাবে তা শরীরে ফুটে ওঠে ?

দিল্লির খ্যাতনামা চিকিৎসক অঞ্জন দে ডয়চে ভেলেকে বললেন, প্রত্যেক মানুষের শরীরে ইকোলাই বলে একটা ব্যাকটিরিয়া থাকে, যা মূত্রনালীতে সংক্রমণ ঘটায়, পেটের রোগের নানা রকম সংক্রমণ ঘটায়৷ তার মধ্যে এনডিএম-১এর মত জিন যদি ঢুকে পড়ে, তাহলে অ্যান্টি-বায়োটিক কাজ করেনা৷ এর প্রতিকার হলো জলটাকে জীবাণুমুক্ত করা, পরিশুদ্ধ রাখা৷ দিল্লির জলবোর্ড বলছে যে, সরবরাহ করা পানীয় জল যেহেতু ক্লোরিনেটেড করা, তাই তাতে সুপারবাগ থাকতে পারেনা৷ আছে কি নেই, তা পরীক্ষা করি আমরা পাযুরস থেকে৷ তবে ব্যাকটিরিয়া থাকলেই যে তাতে ওষুধ প্রতিরোধক জিনটা থাকবে, এমন কোন কথা নেই৷

ওষুধ প্রতিরোধক ব্যাকটিরিয়া পাওয়ার কথাটা কি তাহলে একেবারেই ভুল? ডাক্তার অঞ্জন দে জানালেন, পুরসভার জল ক্লোরিনেটেড৷ কিন্তু দিল্লি মহানগরীতে জলনিকাশি পাইপ বদলানোর সময় হয়ত তাতে দূষণ হয়ে থাকতে পারে৷ দ্বিতীয় কারণ হতে পারে জলের ওভারহেড ট্যাঙ্ক ঠিকমত পরিষ্কার না করা৷ তৃতীয় কারণ হতে পারে বর্ষাকালে ওয়াটার হার্ভেস্টিং করে ধরে রাখা বৃষ্টির জল দুষিত হতে পারে৷ এছাড়া পুরসভার সরবরাহ করা ক্লোরিনেটেড জলে কোনমতেই সুপারবাগ থাকতে পারেনা৷

Indien Flut Überschwemmung Fluß Yamuna in New Delhi

যমুনা নদীতে দূষণ বাড়ছে

সুপারবাগ ব্যাকটিরিয়ায় আক্রান্ত ব্যক্তির লক্ষণ কী? গ্যাস্ট্রোএন্টারাইটিজ বা আন্ত্রিক রোগ হবে, পেট খারাপ হবে, বমি হবে, গা হাতপায়ে ব্যথা হবে, কলেরার উপসর্গ থাকলে জলের মত পায়খানা হবে৷ শরীর দুর্বল হয়ে পড়বে, দেহে জলাভাব দেখা দেবে, রক্তচাপ কমে যাবে৷ অ্যান্টি-বায়োটিকে কাজ না হলে রোগী মারা যেতে পারে৷

সাধারণ ব্যাকটিরিয়ার মধ্যে ওষুধ-প্রতিরোধক জিনটা কীভাবে ঢোকে, সে সম্পর্কে ডাক্তার দে বললেন, ব্যাকটিরিয়ার সেল কাঠামোর মধ্যে সেটা লুকিয়ে থাকে এবং সেটাকে কাজে লাগিয়ে সেই সেল ঠিক করে কোন ওষুধে তারা সাড়া দেবেনা৷ ওদের বাইরের যে সেল আবরণ থাকে সেটা ভেদ করে একটা মিউটেন্ট জিন তৈরি হয়৷ এটাকেই বলা হয় ওষুধ-প্রতিরোধক জিন৷

প্রতিবেদন: অনিল চট্টোপাধ্যায়, নতুনদিল্লি

সম্পাদনা: সঞ্জীব বর্মন

সংশ্লিষ্ট বিষয়